দীপিকা কুমারির সঙ্গে লিম্বা রাম। ছবি- টুইটার।
দীপিকা কুমারির সঙ্গে লিম্বা রাম। ছবি- টুইটার।

লকডাউনে মিলছে না ওষুধ, প্রাক্তন তিরন্দাজ লিম্বা রামের চিকিৎসা থমকে

দিল্লিতে সাইয়ের হস্টেলে থেকে চিকিৎসা করাচ্ছেন অসুস্থ প্রাক্তন জাতীয় কোচ।

লকডাউনের জেরে ঘোর সমস্যায় রয়েছেন অসুস্থ প্রাক্তন তিরন্দাজ লিম্বা রাম। করোনা মহামারির জন্য তিনি অসুস্থতার যথাযথ চিকিৎসা করাতে পারছেন না । এমনকি প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র মিলছে না লকডাউনের জন্য।

অর্জুন ও পদ্মশ্রী পুরস্কারে ভূষিত লিম্বা রাম বেশ কিছুদিন ধরে স্নায়ুর জটিল রোগে ভুগছেন। আপাতত তিনি দিল্লিতে সাইয়ের হস্টেলে থেকে চিকিৎসা করাচ্ছেন। চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় ইঞ্জেকশন মিলছে না লকডাউনে মেডিক্যাল ল্যাব বন্ধ থাকায়।

হস্টেলের এক নিরাপত্তাকর্মীর সাহায্যে কিছু ওষুধ সংগ্রহ করেছেন লিম্বা রাম। তবে কোনওভাবেই মিলছে না গুরুত্বপূর্ণ ইঞ্জেকশন।

লিম্বার স্ত্রী মেরিয়ান জেনি সংবাদ সংস্থা এএনআইকে বলেন, 'লিম্বা মোটেও ভাল নেই। ওর পা ফুলে গিয়েছে। যে ইঞ্জেকশনগুলো দেওয়ার কথা ছিল, ল্যাব বন্ধ থাকায় তা পাওয়া যাচ্ছে না। লকডাউনের পর থেকে আমি ওকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে পারছি না। হাসপাতাল যেখানে অবস্থিত সেটা করোনা হটস্পট জোন হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। তাই হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে ওর করোনা সংক্রামিত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে। সেই ভয়েই আমি ওকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে চাই না। ল্যাবের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি। যদি প্রয়োজনীয় ইঞ্জেকশন পাওয়া যায়। ১০টার মধ্যে মাত্র ৬টা ইঞ্জেকশন এখনও পর্যন্ত দেওয়া গিয়েছে ওকে। বাকি ৪টি এখনও পাওয়া যায়নি।'

প্রাক্তন বক্সার ডিঙ্কো সিংও লকডাউনের জন্য দিল্লিতে গিয়ে চিকিৎসা করাতে পারছিলেন না। কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রীর সাহায্য চাওয়ার পর ক্রীড়ামন্ত্রক ও সর্বভারতীয় বক্সিং ফেডারেশনের সহায়তায় এয়ার অ্যাম্বুল্যান্সে করে ইম্ফল থেকে দিল্লিতে পৌঁছতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। ডিঙ্কো দুরারোগ্য লিভার ক্যান্সারে ভুগছেন। রেডিয়েশন থেরাপির জন্য তাঁর দিল্লি যাওয়া প্রয়োজন হয়ে পড়েছিল।

লিম্বা রামও অবশ্য পাশে পেয়েছেন সর্বভারতীয় তিরন্দাজি সংস্থাকে। হস্টেলে থাকার সময়সীমা শেষ হলেও লিম্বার পরিবারের তরফে আরও কিছুদিন দিল্লিতে থাকার অনুমতি চাওয়া হয়েছিল। মৌখিক সম্মতি ও মিলেছে আর্চারি অ্যাসোসিয়েশনের তরফে।

বন্ধ করুন