বাংলা নিউজ > ময়দান > কোহলিরা মানসিক রোগে আক্রান্ত হতে পারেন, আশঙ্কায় ভারতের প্রাক্তন মনোবিদ

শুভব্রত মুখার্জি

করোনাভাইরাসের কারণে বায়ো-বাবল অর্থাৎ জৈব সুরক্ষা বলয়ে থেকেই বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় খেলতে নামতে হচ্ছে। ক্রিকেটও তার ব্যতিক্রম নয়। দিনের পর দিন, মাসের পর মাস বায়ো-বাবলে থেকে খেলাটা যে শুধু কঠিন ব্যাপার তা নয়, এর অনেক সূদুরপ্রসারী প্রভাবও রয়েছে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। তার মধ্যে অন্যতম মানসিক সমস্যা।

করোনার প্রকোপের মধ্যেই বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে শুরু হয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। জৈব-সুরক্ষা বলয়ে দর্শকশূন্যভাবে বন্দিদশায় থেকেই দর্শকবিহীন স্টেডিয়ামে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই অবস্থায় মারাত্মক আশঙ্কার কথা মনে করিয়ে দিলেন ভারতীয় দলের প্রাক্তন মনোবিদ ও কন্ডিশনিং কোচ প্যাডি আপটন। তাঁর মতে, জৈব বলয়ের মধ্যে বেশিদিন থেকে খেললে বিরাট কোহলি, স্টিভ স্মিথরা মানসিক রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।

কারণ সেখানে বন্দি অবস্থায় দিন কাটাতে হচ্ছে। থাকছেন না পরিবারের সদস্যরা। ফলে জৈব বলয়ে দীর্ঘক্ষণ কাটানোর ফলে ক্রীড়াবিদরা হাঁফিয়ে উঠছেন। আপটন বলেন, 'জৈব বলয়ের মধ্যে থাকার সময় ক্রীড়াবিদরা কী সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন, সেটা নিয়ে কেউ আমল দিচ্ছে না‌।ফলে কেউ যদি বলয়ের মধ্যে মাসের পর মাস থাকার জন্য মানসিক রোগে আক্রান্ত হন, তাহলে তাঁদের চিকিৎসার জন্য সঠিক ওষুধ দেওয়া বেশ কঠিন হবে।'

আপটন আরও বলেন, 'হোটেল থেকে মাঠ, মাঠ থেকে হোটেল, এটাই তো নতুন পৃথিবী। ক্রিকেটারদের এটার সঙ্গে মানিয়ে নিতে সময় লাগবে। মাসের পর মাস বাইরের জগৎ থেকেও সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন থাকার জন্য তাঁদের মনে বিরক্তি আসা স্বাভাবিক। এরপর ক্রিকেটাররা মাঠে নেমে ভালো খেলতে না পারলে সমস্যাটা আরও বাড়বে।'

বন্ধ করুন