বাংলা নিউজ > ময়দান > ১৩ বছরের সফর শেষ করলেন মর্গ্যান, জল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবসর নিলেন বিশ্বজয়ী অধিনায়ক
অবসর নিলেন ইয়ন মর্গ্যান।

১৩ বছরের সফর শেষ করলেন মর্গ্যান, জল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবসর নিলেন বিশ্বজয়ী অধিনায়ক

  • ২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের হতাশাজনক ব্যর্থতার পর থেকে সাদা বলের ক্রিকেটের দায়িত্ব পান মর্গ্যান। তাঁর সময়কালে দলকে অভূতপূর্ব উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি শুধু ইংল্যান্ডকে ২০১৯ ওডিআই বিশ্বকাপে প্রথম বার চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন, তা নয়। তিনি ওডিআই এবং টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডকে ১ নম্বরে নিয়ে যান।

জল্পনা ছিলই। মঙ্গলবার সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইয়ন মর্গ্যান। ইংল্যান্ডের জার্সিতে ১৩ বছরের সফর শেষ করলেন মর্গ্যান।

২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের হতাশাজনক ব্যর্থতার পর অ্যালিস্টার কুকের থেকে সাদা বলের ক্রিকেটের দায়িত্ব পান মর্গ্যান। তাঁর সময়কালে দলকে অভূতপূর্ব উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন। তিনি শুধু ইংল্যান্ডকে ২০১৯ ওডিআই বিশ্বকাপে প্রথম বার চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন, তা নয়। তিনি একদিনের আন্তর্জাতিক (ওডিআই) এবং টি-টোয়েন্টিতে ইংল্যান্ডকে ১ নম্বর র‌্যাঙ্কিংয়ে নিয়ে যান।

১২৬টি ওডিআই এবং ৭২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ইংল্যান্ডকে নেতৃত্ব দিয়েছেন মর্গ্যান। ২০১৯ সালে ৫০ ওভারের বিশ্বকাপ জয় তাঁর সবচেয়ে বড় সাফল্য। তার আগে তিনি ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে তুলেছিলেন দলকে।

মর্গ্যানের এই ঘোষণা প্রত্যাশিতই ছিল। কারণ খারাপ ফর্ম এবং চোটের সঙ্গে বহু দিন ধরেই লড়াই করেছিলেন তিনি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে সরে দাঁড়ালেও, তিনি দ্য হান্ড্রেডে লন্ডন স্পিরিটের অধিনায়ক হয়ে যেমন খেলবেন, তেমনই ঘরোয়া ক্রিকেটের বিভিন্ন টুর্নামেন্টে খেলা চালিয়ে যাবেন। পাশাপাশি ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে আসন্ন সাদা বলের সিরিজের জন্য স্কাই স্পোর্টসের ধারাভাষ্য দলে যোগ দেবেন।

২০০৯ সালে ইংল্যান্ডের জার্সিতে খেলার আগে, তিনি ২০০৬ সাল থেকে প্রাথমিক ভাবে আয়ারল্যান্ডের হয়ে খেলা শুরু করেছিলেন। সীমিত ওভারের আন্তর্জাতিকে ৩৪০টি ম্যাচে ইংল্যান্ডের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার পাশাপাশি, মর্গ্যান ২০১০ থেকে ২০১২-এর মধ্যে ১৬টি টেস্ট খেলে দু'টি শতরান করেছিলেন।

ইসিবি-র এক বিবৃতিতে মর্গ্যান বলেছেন, ‘সব দিক বিবেচনার পর, আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করছি। নিঃসন্দেহে আমার কেরিয়ারের সবচেয়ে আনন্দদায়ক এবং ফলপ্রসূ অধ্যায়টির ইতি টানার সিদ্ধান্ত, সহজ ছিল না। তবে আমি বিশ্বাস করি, এখনই এটি করার সঠিক সময়।’

তিনি আরও যোগ করেছেন, ‘আয়ারল্যান্ডের জার্সিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে হাতেখড়ি থেকে ২০১৯ সালে বিশ্বকাপ জেতা পর্যন্ত- আমি কখনও-ই পরিবারের সমর্থন হারাইনি। যে কোনও আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়ের কাছে পারিবারিক সমর্থন প্রয়োজন। আমার মা ও বাবা, আমার স্ত্রী এবং আমার পুরো পরিবারকে আমি ধন্যবাদ জানাব, তারা যে ভাবে আমার কর্মজীবনের ভালো এবং চ্যালেঞ্জিং সময়ে নিঃশর্ত ভাবে সমর্থন করেছে, তার জন্য। তোমাদের সমর্থন ছাড়া, এই অবিশ্বাস্য যাত্রা সম্ভব হত না।’

কোচ, সতীর্থদের কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মর্গ্যান বলেছেন, ‘আমার সতীর্থ, কোচ, সমর্থক এবং পর্দার পিছনে যারা আমার কেরিয়ার এবং যে কোনও সাফল্য সম্ভব করতে সাহায্য করেছে, তাদের সকলকে ধন্যবাদ জানাব। একজন খেলোয়াড় এবং অধিনায়ক হিসাবে আমি যা অর্জন করেছি, তার জন্য আমি অত্যন্ত গর্বিত। এবং এই জিনিসগুলি সারা জীবন মনে রাখব। ’

তিনি আরও যোগ করেছেন, ‘দু'টি বিশ্বকাপ জয়ী দলে খেলার জন্য আমি যথেষ্ট ভাগ্যবান। আমি বিশ্বাস করি, ইংল্যান্ডের সাদা বলের দলের ভবিষ্যৎ আগের চেয়ে উজ্জ্বল। আমাদের কাছে আগের চেয়ে অনেক বেশি অভিজ্ঞতা, আরও শক্তি এবং আরও গভীরতা রয়েছে। আর আমি যতক্ষণ পারব ঘরোয়া স্তরে খেলা উপভোগ করতে থাকব। আমি সত্যিই এই বছর হান্ড্রেডের দ্বিতীয় সংস্করণে লন্ডন স্পিরিটের হয়ে খেলতে এবং অধিনায়কত্ব করার জন্য মুখিয়ে আছি।’

বন্ধ করুন