বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবল > এসসি ইস্টবেঙ্গল ISL খেলবে কিনা ঠিক নেই, তবু ডার্বি খেলার অপেক্ষায় রয়েছেন কাউকো
জনি কাউকো।
জনি কাউকো।

এসসি ইস্টবেঙ্গল ISL খেলবে কিনা ঠিক নেই, তবু ডার্বি খেলার অপেক্ষায় রয়েছেন কাউকো

  • চলতি ইউরোয় তিনটি ম্যাচেই খেলেছেন কাউকো। তাঁর পাসিং অ্যাকিউরেসি ৮০ শতাংশ। ফাউল করেছেন দু’বার এবং গোলের চেষ্টা করেছেন দু’বার। তবে কোনও বারই সফল হননি।

এটিকে মোহনবাগানে সই করেই কলকাতা ডার্বির কথা ভাবতে শুরু করে দিয়েছেন জনি কাউকো। আদৌ লাল-হলুদ ব্রিগেড এই বছর আইএসএল খেলবে কিনা, জানা নেই। কারণ তাদের সঙ্গে বিনিয়োগকারীদের সমস্যা এখনও মেটেনি। এই বছর ইউরোতে খেলা ফিনল্যান্ডের মিডফিল্ডার জনি কাউকো অবশ্য কলকাতার ডার্বির সব খবর নিয়ে নিয়েছেন। যে কারণে আইএসএলে এটিকে মোহনবাগানকে চ্যাম্পিয়ন করার পাশাপাশি ডার্বি খেলতেও মুখিয়ে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন কাউকো।

আইএসএল কর্তৃপক্ষকে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময়ে কাউকো বলেছেন, ‘আমি শুনেছি এই ডার্বির কথা। আসলে সব জায়গাতেই বিশেষ কিছু না কিছু থাকে। ফিনল্যান্ডেও এ রকম ম্যাচ হয়। একই শহরের দুটো দল রয়েছে, যারা একে অপরের মুখোমুখি হয়। এ রকম প্রতিদ্বন্দিতা আগেও দেখেছি আমি। এই ধরনের ম্যাচই তো খেলতে ভাল লাগে। ফুটবলার ও সমর্থকদের মধ্যে তুমুল উত্তেজনা তৈরি হয়। লিগ টেবলে কে কোথায়, তা এই ম্যাচগুলোতে খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে না। এই ম্যাচে সব সময়ই নতুন লড়াই। যে কোনও ফল হতে পারে এই ধরনের ম্যাচে। এমন ম্যাচে খেলতে পারব জেনে আমি খুবই উত্তেজিত হয়ে পড়ছি।’ গত বছর কিন্তু দু'বারই এসসি ইস্টবেঙ্গলকে হারিয়েছে এটিকে মোহনবাগান।

জনি কাউকোকে সই করানোটা এই বছর সবুজ-মেরুনের বড় বাজি বলে দাবি করছে ফুুটবল মহল। ৩০ বছর বয়সি কাউকোর লক্ষ্যই সবুজ-মেরুনের অধরা স্বপ্নকে সত্য়ি করা। গত মরশুমে হিরো আইএসএল ফাইনালে উঠেও মুম্বই সিটি এফসি-র কাছে হেরে যায় এটিকে মোহনবাগান। তার আগে তারা লিগশিল্ড পাওয়ার সুবর্ণ সুযোগও হাতছাড়া করেছিল। এ বার আর সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি চান না কাউকো। তিনি বলেছেন, ‘আগামী মরশুমে আমার লক্ষ্য একটাই, চ্যাম্পিয়ন হওয়া। দলকে ট্রফি জেতানোর ক্ষমতা যে সব ফুটবলারের রয়েছে, তাদের মধ্যে বোধহয় আমিও পড়ি।’

এটিকে মোহনবাগান সমর্থকেরা তাঁদের প্রিয় দলের সেরা তারকার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে রয়েছেন। তাঁদের উদ্দেশ্যে দেওয়া বার্তায় কাউকো বলেছেন, ‘সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচুর মেসেজ আমি পেয়েছি। সবাইকে উত্তর দিতে না পারায় দুঃখিত। প্রতিটা মেসেজই যে আমি পড়ি, আশা করি, সবাই তা জানে। এটা অবিশ্বাস্য। প্রত্যেকের প্রতিই আমার শ্রদ্ধা রইল। সমর্থকেরা আমাকে প্রচুর শক্তি জোগান। স্টেডিয়ামের পরিবেশ ও অনুভূতি ভাল হওয়াটা খুবই জরুরি। সেই পরিবেশ দেখার জন্য আর অপেক্ষা করতে পারছি না।’

ভাল ভাল দলের প্রস্তাব থাকা সত্ত্বেও কেন কাউকো এটিকে মোহনবাগানে সই করলেন? জবাবে ৩০ বছরের মিডিও বলেছেন, ‘ছোট থেকেই বরাবর অন্যরকম কিছু করার ইচ্ছা আমার। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সারা দুনিয়া ঘুরে বেড়ানোর ইচ্ছাটা প্রবল হয়। নতুন সংস্কৃতি, নতুন ভাষা আমাকে টানে। নতুন নতুন মানুষের সঙ্গে আলাপ করতে ভাল লাগে আমার। যখন শুনলাম এটিকে মোহনবাগান আমার ব্যাপারে আগ্রহী, তখন কথাবার্তা শুরু হল। তার পরে সব ঠিক হয়ে গেল। ওখানে সব কিছুই আমার কাছে নতুন। আশা করি দ্রুত মানিয়ে নিতে পারব।’

চলতি ইউরোয় তিনটি ম্যাচেই খেলেছেন কাউকো। তাঁর পাসিং অ্যাকিউরেসি ৮০ শতাংশ। ফাউল করেছেন দু’বার এবং গোলের চেষ্টা করেছেন দু’বার। তবে কোনও বারই সফল হননি।

৮১টি ম্যাচ খেলেছেন কাইকো। ২১টি গোলও রয়েছে তাঁর। এটিকে মোহনবাগানের এএফসি কাপ অভিযানেও তাঁকে খেলতে দেখা যাবে বলে ক্লাব সূত্রের খবর। কাউকো যোগ দেওয়ায় এটিকে মোহনবাগানের মাঝমাঠের শক্তি নিঃসন্দেহে বেড়েছে।

বন্ধ করুন