বাংলা নিউজ > ময়দান > যশপালের মৃত্যুতে শোকাহত বিশ্বনাথ, স্মৃতির সরণী বেয়ে ফিরে গেলেন ৮২-র চেন্নাই টেস্টে দু'জনের ঐতিহাসিক পার্টনারশিপে
যশপাল শর্মা। ছবি- টুইটার (@ianuragthakur)।
যশপাল শর্মা। ছবি- টুইটার (@ianuragthakur)।

যশপালের মৃত্যুতে শোকাহত বিশ্বনাথ, স্মৃতির সরণী বেয়ে ফিরে গেলেন ৮২-র চেন্নাই টেস্টে দু'জনের ঐতিহাসিক পার্টনারশিপে

  • ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চেন্নাই টেস্টেই যশপাল শর্মা তাঁর কেরিয়ারের সর্বোচ্চ ১৪০ রানের অবিস্মরণীয় ইনিংস খেলেন।

১৯৮৩-র বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় দলের অন্যতম সদস্য যশপাল শর্মার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করলেন গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ। সেই সঙ্গে ১৯৮২-র চেন্নাই টেস্টে যশপালের সঙ্গে গড়া তার ঐতিহাসিক ৩১৬ রানের পার্টনারশিপ নিয়ে স্মৃতিচারণ করলেন তিনি। বিশ্বনাথ যশপালকে ‘টোটাল ক্রিকেটার’ আখ্যা দেন।

১৯৮২ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে চেন্নাই টেস্টে জুটিতে সারা দিন ব্যাট করেছিলেন বিশ্বনাথ ও যশপাল। সেই ম্যাচেই যশপাল তাঁর টেস্ট কেরিয়ারের সর্বোচ্চ ১৪০ রানের অবিস্মরণীয় ইনিংস খেলেন। বিশ্বনাথ সেই ম্যাচে ডাবল সেঞ্চুরি করেন। তৃতীয় ভারতীয় জুটি হিসেবে দু'জনে টেস্ট ক্রিকেটে সারা দিন ব্যাট করার নজির গড়েছিলেন।

The Indian Express-কে বিশ্বনাথ বলেন, ‘টেস্টে সারা দিন ব্যাট করা মোটেও সহজ নয়। এটা বিরল কৃতিত্ব। খুব বেশি ব্যাটসম্যান এমনটা করতে পারেনি। আমরা সারাদিন একসঙ্গে ক্রিজে কাটিয়ে ছিলাম। এটা আমার কাছে সারাজীবন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। যশপাল অত্যন্ত ভালো ক্রিকেটার ছিল। পরিশ্রমী ও যথাযথ টিম ম্যান। আমি ওকে টোটাল ক্রিকেটার হিসেবে বিবেচনা করি। অত্যন্ত আকর্ষক ছিল ওর ইনিংসটা।’

বিশ্বনাথ আরও বলেন, ‘পিচ একটু বাউন্সি ছিল। আমরা তাড়াতাড়ি সুনীল গাভাসকর ও প্রণব রায়ের উইকেট হারিয়ে ছিলাম। দিলীপ বেঙ্গসরকার বাউন্সারে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়ে। তারপর যশপাল ক্রিজে আসে। শুরুতে সতর্ক হয়ে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিই। ও অসাধারণ একটা ইনিংস খেলে। ও বলে ভিশি ভাই একদম ছেড়ো না, আজ আমরা খেলবো। দিনের শেষ বেলাতেও আমাকে উদ্দীপ্ত করে বলে, আমরা সারা দিন ব্যাট করব।’

যশপালের মৃত্যুকে ভেঙে পড়েন বিশ্বনাথ। বলেন, ‘খবরটা আমাকে মর্মাহত করে। আমি কারও কাছ থেকে কখনও শুনিনি ও অসুস্থ ছিল বলে। তাই এখনও বিশ্বাস হচ্ছে না যে, ও আর নেই।'

বন্ধ করুন