বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2022 > MI vs CSK: ধোনির হাতে ‘ফিনিশ’ MI, ৪ বলে ১৬ রানের পর নেট দুনিয়া বলল ‘জোর সে বল' ফিনিশার মাহি
‘ফিনিশ’ হননি ‘ফিনিশার’ ধোনি, শেষ ৪ বলে ১৬ রানের পর নেটিজেনরা বললেন ‘হিলা ডালা’। (ছবি সৌজন্যে আইপিএল এবং অ্যামাজন প্রাইম)

MI vs CSK: ধোনির হাতে ‘ফিনিশ’ MI, ৪ বলে ১৬ রানের পর নেট দুনিয়া বলল ‘জোর সে বল' ফিনিশার মাহি

  • MI vs CSK: মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে জয়ের জন্য শেষ ওভারে চেন্নাই সুপার কিংসের প্রয়োজন ছিল ১৭ রান। প্রথম বলে আউট হয়ে যান ডোয়েন প্রিটোরিয়াস। দ্বিতীয় বলে এক রান নেন ডোয়েন ব্র্যাভো। তার ফলে চার ফলে দরকার ছিল ১৬ রান। সেখান থেকে যে কোনও ম্যাচে একজনই নায়ক হতে পারতেন। সেটাই হয়েছে। শেষ বলে চার বলে মহেন্দ্র সিং ধোনি জেতানোর পর উত্তাল হয়ে উঠল টুইটার।

মঞ্চটা তৈরি ছিল। চার বলে দরকার ছিল ১৬ রান। সেখান থেকে যে কোনও ম্যাচে একজনই নায়ক হতে পারতেন। সেটাই হয়েছে। শেষ বলে চার বলে মহেন্দ্র সিং ধোনি জেতানোর পর উত্তাল হয়ে উঠল টুইটার। নেটিজেনদের বক্তব্য, ‘ধোনি ফিনিশেশ অফ ইন স্টাইল (আবারও)।’

আরও পড়ুন: MI vs CSK: ৬, ৪, ২, ৪, শেষ ওভারে ধোনি ধামাকা, রোহিতদের মুখের গ্রাস কাড়লেন মাহি

বৃহস্পতিবার আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে জয়ের জন্য শেষ ওভারে চেন্নাই সুপার কিংসের প্রয়োজন ছিল ১৭ রান। প্রথম বলে আউট হয়ে যান ডোয়েন প্রিটোরিয়াস। দ্বিতীয় বলে এক রান নেন ডোয়েন ব্র্যাভো। তার ফলে চার ফলে দরকার ছিল ১৬ রান। প্রথম বলে মারাত্মক জোরে ছক্কা মারেন ধোনি। পরের বলটি ফাইন লেগের বাউন্ডারিতে চলে যায়। পঞ্চম বলে দু'রান নেন ধোনি। শেষ বলে চার রান দরকার ছিল চেন্নাইয়ের। লেগ স্টাম্পে ভালো ইয়র্কার করেন জয়দেব উনাদকাট। কিন্তু ধোনি তো ধোনিই হন। কবজির মোচড়ে শর্ট ফাইন লেগ দিয়ে বাউন্ডারিতে বল পাঠিয়ে দেন মাহি। শেষপর্যন্ত ১৩ বলে ২৮ রান অপরাজিত থাকেন।

তারপরই উত্তাল হয়ে ওঠে টুইটার। অ্যামাজন প্রাইমের তরফে টুইটারে রজনীকান্তের ছবি পোস্ট করা হয়। যেখানে রজনীকান্ত বলেছিলেন, ‘কিউ হিলা ডালা না!’ অপর একজন বলেন, 'ধোনির জয়সূচক বাউন্ডারি। ২০২২ সালের আইপিএলকে সিপিআর দিয়ে বাঁচিয়ে রাখার মতো হল।' উপস্থাপক ঋদ্ধিমা পাঠক বলেন, ‘মাহি মাহি, জোর সে বল, মাহি মাহি, সারে বল, মাহি মাহি। কী দুর্ধর্ষ ফিনিশার।’

বৃহস্পতিবার নবি মুম্বইয়ে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে সাত উইকেটে ১৫৫ রান তোলেন রোহিত শর্মারা। শুরুটা অবশ্য একেবারে জঘন্য হয়েছিল। প্রথম ওভারেই দুই উইকেট পড়ে গিয়েছিল। সেখান থেকে তিলক বর্মা এবং উনাদকাটের সৌজন্যে ১৫০ রানের গণ্ডি পার হয় মুম্বই। তাও একাধিক ক্যাচ ফস্কায় চেন্নাই। রান তাড়া করতে নেমে প্রথম বলেই উইকেট হারায় সিংহ বাহিনী। একটা সময় প্রবল চাপেও ছিল। সেখান থেকে চেন্নাইকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন ধোনি এবং প্রিটোরিয়াস। শেষ ওভারে প্রিটোরিয়াস আউট হলেও নিজের স্বভাবসিদ্ধ কাজটা করে দেন ধোনি। 

বন্ধ করুন