বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘জিও রে বাহুবলী’, স্পাইডার-ক্যাম নিয়ে অশ্বিনের কসরত, সূর্যের মন্তব্যে হাসির রোল

‘জিও রে বাহুবলী’, স্পাইডার-ক্যাম নিয়ে অশ্বিনের কসরত, সূর্যের মন্তব্যে হাসির রোল

বাহুবলী অশ্বিন।

আসলে রবিবার চতুর্থ ওভারের শেষ বলে টম লাথামকে আউট করেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। তার পর যখন তিন নম্বরে ব্যাট করতে আসেন ড্যারিল মিচেল, সেই সময়ে দেখা যায়, একটি স্পাইডার ক্যাম মাঠের নীচের দিকে আটকে পড়েছে। সেটি উপরেও উঠছিল না, আবার তাকে কোনও ভাবে সরানোও যাচ্ছিল না। যার জেরে কিছুক্ষণ খেলাও বন্ধ হয়ে যায়।

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টেস্টের তৃতীয় দিন বিসিসিআই-এর অফিসিয়াল টুইটার থেকে ছবি একটি পোস্ট করা হয়েছিল। যেটা নিয়ে ভারতের ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদব একটি হাস্যকর মন্তব্য করেন। আর তাঁর মন্তব্যে হাসির রোল উঠেছে নেটপাড়াতেও। 

আসলে রবিবার চতুর্থ ওভারের শেষ বলে টম লাথামকে আউট করেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। তার পর যখন তিন নম্বরে ব্যাট করতে আসেন ড্যারিল মিচেল, সেই সময়ে দেখা যায়, একটি স্পাইডার ক্যাম মাঠের নীচের দিকে আটকে পড়েছে। সেটি উপরেও উঠছিল না, আবার তাকে কোনও ভাবে সরানোও যাচ্ছিল না। যার জেরে কিছুক্ষণ খেলাও বন্ধ হয়ে যায়। 

ভারতীয় প্লেয়াররা সেই ক্যামেরাটাকে সরানোর চেষ্টা করতে থাকেন, সেটা করতে না পেরে সেই ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে নানা অঙ্গভঙ্গি করে মজাও করতে দেখা যায় তাঁদের। আর সেই ছবিগুলোই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়।

বিসিসিআই তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে এই ঘটনার ছবির পাশাপাশি একটি ভিডিও পোস্ট করে। তবে একটি ছবিতেই দেখা গিয়েছে, অশ্বিন সেই স্পাইডার-ক্যামটি তোলার চেষ্টা করছেন। পুরো বাহুবলী-র স্টাইলে।

সেটা দেখেই সূর্যকুমার যাদব মজা করে সেই ছবিতে লিখেছেন, ‘গালি গালি তেরি রাহ চলিও জিও রে বাহুবলি’। আর সূর্যকুমারের এই মন্তব্যে মজা পেয়েছেন নেটিজেনরাও।

আসলে কর্মকর্তারা চেয়েছিলেন, স্পাইডার-ক্যামটি যাতে স্বাভাবিক ভাবে কাজ করে এবং নিজে থেকে উপরে উঠে যায়। তার জন্য তারা অপেক্ষাও করেছিলেন। কিন্তু প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণে সেটা সম্ভব হয়নি। নিজে থেকে সেটি সরেনি। যে কারণে আম্পায়ারদের তাড়াতাড়ি চা বিরতি নিতে হয়েছিল। যাইহোক পরে স্পাইডার-ক্যামটি সরানো হলে আবার স্বাভাবিক ভাবে খেলা শুরু হয়।

বন্ধ করুন