বাংলা নিউজ > ময়দান > 'জীবনে আবার এমন ছবি দেখতে হবে ভাবিনি', বিশ্বাস হচ্ছে না ৪২ রানে অল-আউট দলের সদস্য গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথের
টিম ইন্ডিয়া ও গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ। ছবি- গেটি ইমেজেস/রয়টার্স।
টিম ইন্ডিয়া ও গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ। ছবি- গেটি ইমেজেস/রয়টার্স।

'জীবনে আবার এমন ছবি দেখতে হবে ভাবিনি', বিশ্বাস হচ্ছে না ৪২ রানে অল-আউট দলের সদস্য গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথের

  • কোহলিদের ৩৬ রানে গুটিয়ে যেতে দেখে প্রতিক্রিয়া প্রাক্তন তারকার।

'কখনও ভাবিনি আমার জীবনে ভারতকে আবার ৪২ বা তারও কম রানে অল-আউট হতে দেখব।' অ্যাডিলেড টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে টিম ইন্ডিয়া ৩৬ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর এটাই ছিল গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথের প্রতিক্রিয়া।

১৯৭৪ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে যেবার ভারতীয় দল ৪২ রানে অল-আউট হয়ে যায়, সেই দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন বিশ্বনাথ। সেই ইনিংসে তাঁর অবদান ছিল ৫ রানের। সেই যন্ত্রণার অধ্যায় কোহলির ভারত ফিরিয়ে এনেছে বলে এখনও বিশ্বাসই হচ্ছে না প্রাক্তন তারকার।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বিশ্বনাথ বলেন, ‘লর্ডসে যখন আমরা ৪২ রানে অল-আউট হয়ে যাই, আমি সেই দলে ছিলাম। আমি কখনই খুশি হতে পারি না। কখনই ভাবিনি জীবনে আবার কখনও দেখতে হবে ভারত ৪২ বা তারও কম রানে অল-আউট হয়েছে।’

প্রাক্তন তারকা আরও বলেন, ‘এমন কম রানে অল-আউট হলে সবকিছু একসঙ্গে দায়ি থাকে। সব বোলারদের দারুণ বল করতে হবে। টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের অসাধারণ কিছু বলের মুখোমুখি হতে হবে এবং লোয়ার অর্ডারে তেমন কোনও প্রতিরোধ দেখা যাবে না। অ্যাডিলেডের পিচ তৃতীয় দিনে তুলনায় গতিশীল হয়ে দেখা দেয়। অস্ট্রেলিয়ার বোলাররা ধারাবাহিকভাবে ভালো বল করে। লর্ডসেও ঠিক একই ঘটনা ঘটেছিল। মেঘাচ্ছন্ন আবহাওয়ায় বলের নড়াচড়া বেড়ে গিয়েছিল। অ্যাডিলেডের পিচে অবশ্য বাড়তি বাউন্স ছিল। তবে বলের আড়াআড়ি নড়াচড়া বা সিম মুভমেন্ট তেমন একটা দেখা যায়নি।’

বন্ধ করুন