বাংলা নিউজ > ময়দান > বিরাট কোহলি ফিটনেস মন্ত্রে অনুপ্রাণিত প্রীতম কোটালও
দুই অধিনায়কই প্রীতমের অনুপ্রেরণা।
দুই অধিনায়কই প্রীতমের অনুপ্রেরণা।

বিরাট কোহলি ফিটনেস মন্ত্রে অনুপ্রাণিত প্রীতম কোটালও

  • ক্রিকেট এবং ফুটবলের ভারতীয় দলের দুই অধিনায়কই প্রীতম কোটালের ফিটনেসের অনুপ্রেরণা।

বিরাট কোহলির ফিটনেস নিয়ে খুবই সতর্ক থাকেন। এর জন্য কঠোর পরিশ্রম করেন। শুধু ফিটনেস ট্রেনিং-ই নয়, কঠোর ডায়েট মেনে চলেন। অবশ্য একা বিরাট কোহলি নন, ভারতীয় ফুটবল দলের অধিনায়ক সুনীল ছেত্রীও নিজের ফিটনেস সম্পর্কে সজাগ। আর এই দুই অধিনায়কই অনুপ্রেরণা প্রীতম কোটালের কাছে।

ভারতের নির্ভরযোগ্য ডিফেন্ডার প্রীতম কোটাল বলেছেন, ‘আমি বিভিন্ন জায়গায় পড়েছি, বিরাট কোহলির ফিটনেস নিয়ে কত সচেতন। ওর কঠোর প্র্যাক্টিস, ডায়েট, সবটাই জেনেছি। শুনেছি, ও কখনও-ই ওর ব্যক্তিগত ফিটনেস ট্রেনারের নির্দেশের বাইরে কিছুই করে না।’

এর সঙ্গেই তিনি বলেছেন, ‘আমি যখন এআইএফএফ অ্যাকাডেমীতে ছিলাম, তখন ক্রীড়াবিদদের ডায়েট নিয়ে পড়াশোনা করেছিলাম। ২০১৫-'১৬ সালে এসে এর কার্যকারিতা অনুভব করেছিলাম, তখন থেকেই এটা খুব সিরিয়াসলি নিয়েছিলাম। ’

একা বিরাট নন। ফিটনেস নিয়ে সুনীল ছেত্রীদের থেকেও অনেক কিছু শিখেছেন বলে দাবি প্রীতমের। ৩৬ বছরের সুনীল এখনও দাপটের সঙ্গে ক্লাব ফুটবল থেকে জাতীয় দলে খেলে চলেছেন। প্রীতম বলছিলেন, ‘সুনীল ভাইও (ছেত্রী) ডায়েটের বিষয়ে ভীষণই সজাগ। যে কারণে ওর ফিটনেস এবং পারফরম্যান্স লেভেল অন্য পর্যায়ে পৌঁছে যায়। বিরাট এবং সুনীল ভাই দু'জনেই এই বিষয়ে সকলের পথ প্রদর্শক।’

প্রীতমরা এখন দোহায় শিবিরে ব্যস্ত। ২০২২ বিশ্বকাপের যোগ্যতা নির্ণয় পর্বের ম্যাচ রয়েছে। তবে যোগ্যতা অর্জনের সুযোগ ইতিমধ্যেই তারা হারিয়ে ফেলেছে। তবে ২০২২ বিশ্বকাপে যোগ্যতা অর্জন করার কোনও সম্ভাবনা না থাকলেও এশিয়ান কাপে যোগ্যতা অর্জন করার এখনও সুযোগ রয়েছে। আর সেই সুযোগটাই কাজে লাগাতে চান সুনীল ছেত্রীরা। যোগ্যতা অর্জন পর্বে ভারতকে খেলতে হবে কাতার (৩ জুন), বাংলাদেশ (৭ জুন) এবং আফগানিস্তানের (১৫ জুন) বিরুদ্ধে। 

বন্ধ করুন