বাংলা নিউজ > টেকটক > রসায়নে দুর্দান্ত অবদান, সুইস ‘ইয়ং ইনভেস্টিগেটর’ সম্মান বাঙালি বিজ্ঞানীকে
ফাইল ছবি : ফেসবুক (Facebook)
ফাইল ছবি : ফেসবুক (Facebook)

রসায়নে দুর্দান্ত অবদান, সুইস ‘ইয়ং ইনভেস্টিগেটর’ সম্মান বাঙালি বিজ্ঞানীকে

  • বিপ্লববাবু জানান, বিভিন্ন রাসায়নিক বিক্রিয়ায় সোনা, প্ল্যাটিনাম, প্যালাডিয়ামের মতো দামি ধাতু অনুঘটক হিসাবে ব্যবহার করা হয়। কিছুক্ষেত্রে আবার সিসার মতো পরিবেশের পক্ষে ক্ষতিকর ধাতু ব্যবহার করা হয়। সেটারই বিকল্প তুলে ধরেছেন বিপ্লব মাজি।

সুইজারল্যান্ডের ‘ইয়ং ইনভেস্টিগেটর’ সম্মান পেলেন বাঙালি গবেষক বিপ্লব মাজি। প্রকাশনা সংস্থা এমডিপিআইয়ের জার্নাল ‘মলিকিউলস'-এর পক্ষ থেকে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। রসায়নে অভূতপূর্ব আবিষ্কারের জন্য বিপ্লব মাজিকে এই সম্মান প্রদান করা হয়েছে। বিপ্লব মাজি ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ (আইসার), কলকাতার অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর। ২০০০ সুইস ফ্রাঙ্ক নগদ পুরস্কার, মলিকিউলস জার্নালে বিনামূল্যে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশের সুযোগ এবং একটি খোদাই করা মানপত্র দেওয়া হচ্ছে তাঁকে।

বিপ্লববাবু জানান, বিভিন্ন রাসায়নিক বিক্রিয়ায় সোনা, প্ল্যাটিনাম, প্যালাডিয়ামের মতো দামি ধাতু অনুঘটক হিসাবে ব্যবহার করা হয়। কিছুক্ষেত্রে আবার সিসার মতো পরিবেশের পক্ষে ক্ষতিকর ধাতু ব্যবহার করা হয়। সেটারই বিকল্প তুলে ধরেছেন বিপ্লব মাজি।

সোনা, প্ল্যাটিনাম, প্যালাডিয়ামের বদলে ম্যাঙ্গানিজ দিয়েই কাজ সারার পন্থা দেখিয়েছেন তিনি। আবার যে কাজে সিসা ব্যবহার করা হয়, তাতে কম ক্ষতিকর কোবাল্টের বিকল্প দেখিয়েছেন তিনি।

তাঁর এই আবিষ্কারের ফলে ওষুধ, রাসায়নিক শিল্প উপকৃত হবে।

বিপ্লববাবু জানান, ক্রমেই দাম বাড়ছে দুষ্প্রাপ্য মৌলগুলির। এদিকে সীসার মতো ধাতুর পরিবেশে প্রভাব কারও অজানা নয়। এই সমস্যার সমাধানের খোঁজেই গবেষণা এগিয়ে নিয়ে যান তিনি।

কানপুর আইআইটি থেকে রসায়নে এমএসসি এবং লুডউইগ ম্যাক্সিমিলিয়ান ইউনিভার্সিটি অব মিউনিখ থেকে জৈব রসায়নে পিএইচডি করেছেন বিপ্লব মাজি। ২০১৬ সালে তিনি আইসারে অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর হিসেবে যোগ দেন। পরে সেখানে অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর হন।

বন্ধ করুন