বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > Mahalaya 2021: শুধু পুরুষই নয়, মহিলারাও করতে পারেন তর্পণ, শ্রাদ্ধ, কী বলছে শাস্ত্র?
পুরাণ মতে মহিলাদেরও মৃত পরিজনদের শ্রাদ্ধ করার অধিকার দেওয়া হয়েছে।
পুরাণ মতে মহিলাদেরও মৃত পরিজনদের শ্রাদ্ধ করার অধিকার দেওয়া হয়েছে।

Mahalaya 2021: শুধু পুরুষই নয়, মহিলারাও করতে পারেন তর্পণ, শ্রাদ্ধ, কী বলছে শাস্ত্র?

দক্ষিণ ও পশ্চিম ভারতে ভাদ্রপূর্ণিমা থেকে এই পক্ষের সূচনা, যা সর্বপিতৃ অমাবস্যা, বিসর্জনী অমাবস্যা, মহালয়া অমাবস্যা বা মহালয়ার দিনে শেষ হয়।

বুধবার মহালয়া। পিতৃপক্ষের সমাপ্তি ও দেবীপক্ষের সূচনা। এই মহালয়ার দিনে পূর্বপুরুষদের তর্পণ ও শ্রাদ্ধকর্ম করে তাঁদের বিদায় জানানো হয়। ধর্মীয় ধ্যান-ধারণা অনুযায়ী, পিতৃপক্ষে শ্রাদ্ধ, তর্পণ ইত্যাদি মৃত্যু সংক্রান্ত আচার-অনুষ্ঠান পালন করা হয়, তাই এই পক্ষে শুভ কাজে করা উচিত নয়। দক্ষিণ ও পশ্চিম ভারতে ভাদ্রপূর্ণিমা থেকে এই পক্ষের সূচনা, যা সর্বপিতৃ অমাবস্যা, বিসর্জনী অমাবস্যা, মহালয়া অমাবস্যা বা মহালয়ার দিনে শেষ হয়। অন্য দিকে উত্তর ভারত ও নেপালে ভাদ্রের পরিবর্তে আশ্বিন মাসের কৃষ্ণপক্ষকে পিতৃপক্ষ বলা হয়।

এ সময় পূর্বপুরুষদের আত্মার শান্তি কামনা করে শ্রাদ্ধকর্ম করেন তাঁদের পুত্র, পৌত্র দৌহিত্ররা। তবে পুরাণ মতে মহিলাদেরও মৃত পরিজনদের শ্রাদ্ধ করার অধিকার দেওয়া হয়েছে। কোনও মৃত ব্যক্তির পুত্র না-থাকলে, ভাইয়ের তাঁর স্ত্রীর শ্রাদ্ধ করার অধিকার রয়েছে। হিন্দুধর্ম অনুযায়ী, মৃত পূর্বপুরুষের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত যে কোনও ব্যক্তি তর্পণ করতে পারেন। সাধারণত পুরুষরা পিণ্ডদান করে থাকেন। তবে মহিলারাও পিণ্ডদানের সমান অধিকারী। রামায়ণ অনুযায়ী, দশরথের মৃত্যুর পর রামের অনুপস্থিতিতে সীতা তাঁর পিণ্ডদান করেছিলেন।

আবার ছেলে না থাকলে মৃত ব্যক্তির মেয়ে বাবার শ্রাদ্ধ কর্ম করতে পারে। মহাভারতে স্ত্রী পর্বে কৌরব রমণীদের তর্পণ করার উল্লেখ পাওয়া যায়।

আবার অবিবাহিত ব্যক্তির মৃত্যু হলে মৃত ব্যক্তির মা এবং বোনও শ্রাদ্ধ করতে পারেন। আবার ছেলে শ্রাদ্ধ কর্ম করতে না-পারলে পুত্রবধূ তা করতে পারেন। আবার পৌত্র ও প্রপৌত্রও পূর্বপুরুষদের শ্রাদ্ধ কর্ম করার অধিকারী। পৌত্র বা প্রপৌত্র না-থাকলে, ভাই, ভাইয়ের সন্তানরাও শ্রাদ্ধ করার অধিকারী। আবার দৌহিত্রও পূর্বপুরুষদের উদ্ধার করতে পারে। আবার ভাগ্নেও শ্রাদ্ধকর্ম করার অধিকারী।

মৃত ব্যক্তির আত্মাকে মুক্তি দিতে পিণ্ডদান করা প্রয়োজনীয় বলে মনে করেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। এর ফলে আত্মা নরক যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পায়। পিণ্ডদান করলে জন্ম ও মৃত্যুর চক্র থেকে আত্মা মুক্তি লাভ করে বলে মনে করা হয়।

বন্ধ করুন