বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > সেপ্টেম্বর থেকে ‘দুয়ারে' পৌঁছে যাবে রেশন, শুরু হবে প্রকল্পের ‘পাইলট রান’
সেপ্টেম্বর থেকে একাংশের ‘দুয়ারে' পৌঁছে যাবে রেশন, শুরু হবে ‘পাইলট রান’। (ছবিটি প্রতীকী, রাজ কে রাজ/হিন্দুস্তান টাইমস)
সেপ্টেম্বর থেকে একাংশের ‘দুয়ারে' পৌঁছে যাবে রেশন, শুরু হবে ‘পাইলট রান’। (ছবিটি প্রতীকী, রাজ কে রাজ/হিন্দুস্তান টাইমস)

সেপ্টেম্বর থেকে ‘দুয়ারে' পৌঁছে যাবে রেশন, শুরু হবে প্রকল্পের ‘পাইলট রান’

  • খাদ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাজ্যের যে কোনও প্রান্তের রেশন দোকানেই রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড সংযুক্তিকরণ হবে।

আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে রাজ্যে শুরু হতে চলেছে ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পের ‘পাইলট রান’।১৫ শতাংশ রেশন ডিলার নিয়ে সেই কর্মসূচি চালানো হবে। সোমবার বনগাঁয় শিবমূর্তির উদ্বোধন করতে এসে একথা জানালেন খাদ্যমন্ত্রী রথীন ঘোষ।

তিনি জানান, ‘দুয়ারে রেশন’ হল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের প্রকল্প। ভাইফোঁটার পর যে কোনওদিন আনুষ্ঠানিকভাবে সেই প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী। তার আগে ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পের ‘পাইলট রান’ শুরু হবে। রাজ্যের ১৫ শতাংশ রেশন ডিলার নিয়ে সেই ‘পাইলট রান’ চলবে। যে প্রকল্প এবার বিধানসভা ভোটে তৃণমূল কংগ্রেসের ইস্তাহারে ছিল।

সেইসঙ্গে খাদ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাজ্যের যে কোনও প্রান্তের রেশন দোকানেই রেশন কার্ডের সঙ্গে আধার কার্ড সংযুক্তিকরণ হবে। যা দিনকয়েক আগে নবান্নের তরফে নির্দেশিকা জারি করে জানানো হয়েছিল। নবান্ন সূত্রে খবর, আপাতত রাজ্যে ১০ কোটি ৩২ লাখ মানুষের কার্ড আছে। ১৬ লাখ উপভোক্তার রেশন কার্ড নিষ্ক্রিয় হয়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যে আধার এবং রেশন কার্ডের সংযুক্তিকরণের কাজ সেরে ফেলেছেন প্রায় ৬.৫ লাখ মানুষ। এখনও যাঁরা রেশন এবং আধারের সংযোগ করে উঠতে পারেননি, তাঁরাও যাতে দ্রুত কাজটা সেরে ফেলেন, সেই চেষ্টা করছে রাজ্য। সেজন্য এবার রাজ্যের যে কোনও প্রান্ত থেকে রেশন কার্ড এবং আধার কার্ডের সংযোগের নিয়ম চালু করেছে নবান্ন। তার ফলে কেউ অন্য কোনও জেলায় থাকলেও তিনি সেই জেলায় রেশন কার্ড এবং আধার কার্ডের সংযোগ করিয়ে নিতে পারবেন। আসতে হবে না নিজের জেলায়।

ইতিমধ্যে খাদ্য ও সরবরাহ দফতরের তরফে জানানো হয়, আধার ও রেশন কার্ড সংযুক্তিকরণের উপায় আরও সহজ হচ্ছে। নির্দেশিকায় জানানো হয়, আধার কার্ড এবং ডিজিটাল রেশন কার্ড সংযুক্তিকরণের জন্য ইনস্পেক্টর রেশনিং অফিসারের কার্যালয়ে যেতে হবে। প্রথমে সেখানে ডিজিটাল রেশন কার্ড এবং আধার কার্ড খতিয়ে দেখবেন দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিকরা। নেওয়া হবে সংশ্লিষ্ট আবেদনকারীর আধার কার্ড নম্বর এবং হাতের ছাপ। আধার কার্ড ও রেশন কার্ডের তথ্য খতিয়ে দেখা হবে।

বন্ধ করুন