বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > মদ্যপান নিয়ে অশান্তি পরিবারে, ধূপগুড়িতে বাবার মাথায় ধারাল অস্ত্রের কোপ মেয়ের
আনিসুরকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারে তারই মেয়ে।

মদ্যপান নিয়ে অশান্তি পরিবারে, ধূপগুড়িতে বাবার মাথায় ধারাল অস্ত্রের কোপ মেয়ের

  • এই ঘটনা নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পারিবারিক অশান্তি নাকি অন্য কিছু তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলা চলছে। মাথায় গভীর ক্ষত রয়েছে আনিসুরের। ক্ষত থেকে প্রচুর রক্তপাত হয়। পালিয়ে গিয়েছেন পরিবারের সকলে। তাঁদের খোঁজ করা হচ্ছে। তদন্তে নেমেছে ধূপগুড়ি থানার পুলিশ।

মদ্যপান নিয়ে সংসারে অশান্তি ছিল। তা নিয়ে রোজই বচসা হতো। আর এই মদ্যপান নিয়ে অশান্তির জেরে গোটা পরিবারে রোজ ঝগড়াঝাটি লেগেই থাকত। অতিষ্ঠ পরিবার বারবার নিষেধ করলেও তা শোনেনি পেশায় দিনমজুর আনিসুর ইসলাম। বৃহস্পতিবার রাতেও মদ্যপান নিয়ে অশান্তি চরমে উঠেছিল। আর সেটা সহ্য করতে না পেরে আনিসুরকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারে তারই মেয়ে।

ঠিক কী ঘটেছে ধূপগুড়িতে?‌ স্থানীয় সূত্রে খবর, বাবার মাথায় ধারাল অস্ত্রের কোপ বসায় মেয়ে। কারণ বৃহস্পতিবার রাতে মদ খেয়ে বাড়ি ফেরে আনিসুর ইসলাম। তারপর বাড়িতে অশান্তি শুরু হয়। তখনই এই রোজকার অশান্তি থেকে মুক্তি পেতে আঘাত করে মেয়ে। রক্তাক্ত অবস্থায় বাবা আনিসুরকে ফেলে পালিয়ে যায় তারা। রাস্তার ধারে কোনওরকমে এসে পড়ে থাকে আনিনুর। গ্রামবাসীরা তাঁকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করেন। ধূপগুড়ি ব্লকের দক্ষিণ ঘরবাড়ি ভোটপাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটেছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, এই ঘটনা নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পারিবারিক অশান্তি নাকি অন্য কিছু তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলা চলছে। মাথায় গভীর ক্ষত রয়েছে আনিসুরের। ক্ষত থেকে প্রচুর রক্তপাত হয়। পালিয়ে গিয়েছেন পরিবারের সকলে। তাঁদের খোঁজ করা হচ্ছে। তদন্তে নেমেছে ধূপগুড়ি থানার পুলিশ।

কী করে প্রকাশ্যে এল ঘটনা?‌ মাথায় কোপ লাগার পর বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসে আনিসুর। তখন রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন এক টোটো চালক। তাঁরাই আনিসুরকে উদ্ধার করে প্রথমে ধূপগুড়ি হাসপাতালে নিয়ে যান। মাথায় গভীর ক্ষত থাকায় তিনটি সেলাই হয়। আনিসুরের অভিযোগ, রোজ মদ্যপান করার জন্য তাঁকে ছেলে, মেয়ে ও বউ নিয়মিত মারধর করত।

বন্ধ করুন