বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'দুধে মিশে জল...', ফেসবুকে ফের বিস্ফোরক সৌমিত্র খাঁ, অভিমানে তোপ বেনোজলদের
শুভেন্দু অধিকারী এবং সৌমিত্র খাঁ। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
শুভেন্দু অধিকারী এবং সৌমিত্র খাঁ। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

'দুধে মিশে জল...', ফেসবুকে ফের বিস্ফোরক সৌমিত্র খাঁ, অভিমানে তোপ বেনোজলদের

  • ফের ফেসবুকে দীর্ঘ পোস্ট করলেন অভিমানী সৌমিত্র খাঁ। দুধে জল মেশার উপমা টেনে কাকে বার্তা দিলেন সৌমিত্র?

ফের ফেসবুকে দীর্ঘ পোস্ট করলেন অভিমানী সৌমিত্র খাঁ। দুধে জল মেশার উপমা টেনে কাকে বার্তা দিলেন সৌমিত্র? এই নিয়ে এখন রাজনৈতিক মহলে জল্পনা তুঙ্গে। পোস্টে সৌমিত্র লেখেন, 'জল দুধের সাথে বন্ধুত্ব করল এবং নিজের স্বরূপ ত্যাগ করে দুধের সঙ্গে মিশে গেল। এই দেখে দুধ জলকে বলল, তুমি যেভাবে শুধু বন্ধুত্বের কারণে নিজের স্বরূপ ত্যাগ করে আমার সঙ্গে মিশে গেলে, আমিও আমাদের বন্ধুত্ব পালন করব, আজ থেকে তুমিও আমার দামেই বিক্রি হবে।'

সৌমিত্রর এহেন পোস্ট কি ফের ঘুরিয়ে বিজেপি নেতৃত্ব তথা শুভেন্দু অধিকারী এবং দিলীপ ঘোষকে তোপ দাগা? সেই বিষয়ে স্পষ্ট ভাবে মুখ খুলতে চাননি বিষ্ণুপুরের সাসংদ। তাঁর বক্তব্য, তৃণমূল থেকে অনেকেই বিজেপিতে এসে এমন ভাবে মিশে গিয়েছে যে বিজেপি ছাড়া নাকি তিনি বাঁচবেন না। পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমকে সৌমিত্র খআঁ আরও বলেন, 'কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে আমার সম্পর্ক অনেক ভালো। তাই আমি আশা করছি যে দলে থেকে রাজনীতি করতে পারব। রাজনীতিতে অভিমান থাকবেই। অভিমান ছাড়া রাজনীতি হয় না।'

উল্লেখ্য, এর আগে বুধবার যখন বাংলা থেকে নতুন মন্ত্রী হতে চলা চার সাংসদ প্রধানমন্ত্রীর ক্লাস নিচ্ছেন, তখন দুপুরে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে সৌমিত্র জানান যে তিনি ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতির পদ ছেড়ে দিচ্ছেন। তার পর সন্ধ্যায় তিনি জানালেন যে তিনি আর পদত্যাগ ফিরিয়ে নিচ্ছেন দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের নির্দেশে। ফেসবুকে তিনি লিখেছেন যে বিজেপির জাতীয় সাধারণ সম্পাদক বিএল সন্তোষের নির্দেশেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এর পর আর কিছু জানাননি তিনি।

যদিও বুধবার তিনি কার্যত বিস্ফোরক ছিলেন। প্রথমে তিনি ফেসবুকে দু’টি পোস্ট করে বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন। তার পর ফেসবুক লাইভে এসে দলের রাজ্য নেতৃত্বের বিরুদ্ধে প্রশ্ন তোলেন। সরাসরি অভিযুক্ত করেন বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে ৷তাঁর অভিযোগ ছিল যে বিজেপিতে নিজেকে জাহির করতে চাইছেন শুভেন্দু। তিনি দিল্লির নেতৃত্বকে ভুল বোঝাচ্ছেন। তাই তিনি সংগঠনের কাজ ঠিকমতো করতে পারছেন না। সেই কারণেই তিনি সরে যাচ্ছেন। এমনকি, ওই লাইভ থেকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধেও তিনি তোপ দাগেন। তাঁর দাবি ছিল, বিজেপির রাজ্য সভাপতিকে কোনও কথা বলা হলে তিনি অর্ধেক বোঝেন, অর্ধেক বোঝেন না ৷ এদিকে সৌমিত্রর অভিযোগকে গুরুত্বহীন বলে গোটা বিষয়টি এড়িয়ে গিয়েছিলেন বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। তিনি এই বিষয়ে কোনও মন্তব্যই করেননি। শুধু সৌমিত্রকে নিজের ভাই বলে উল্লেখ করেন। তবে ফের সৌমিত্র এই পোস্ট আগুনে ঘী ঢালার কাজ করবে কিনা, এখন সেটাই দেখার।

 

বন্ধ করুন