মহ্গলবার সোনারপুরে বিজেপির অভিনন্দন যাত্রায় জনজোয়ার। নিজস্ব চিত্র
মহ্গলবার সোনারপুরে বিজেপির অভিনন্দন যাত্রায় জনজোয়ার। নিজস্ব চিত্র

সোনারপুরে বিজেপির মিছিল উদ্দেশ্য করে তৃণমূলের গালিগালাজ, রণক্ষেত্র এলাকা

  • অভিযোগ, মিছিল বৈকুণ্ঠপুর মোড়ের কাছে পৌঁছতেই রাস্তার পাশ থেকে মিছিলকে উদ্দেশ্য করে কটূক্তি করতে থাকে কিছু তৃণমূলি দুষ্কৃতী।

ফের বিজেপির কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে আশান্তি। এবার অশান্তি দক্ষিণ ২৪ পরগনার সোনারপুরে। মঙ্গলবার বিকেলে সেখানে অভিনন্দন যাত্রার আয়োজন করেছিল বিজেপি। অভিযোগ, মিছিলকে উদ্দেশ্য করে গালি গালাজ করতে থাকে কিছু স্থানীয় তৃণমূলি গুন্ডা। তাতেই অশান্তি ছড়ায়। দুপক্ষের হাতাহাতি বাঁধে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রীতিমতো বেগ পেতে হয় পুলিশকর্মীদের।

বিজেপির কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে এদিন এলাকা পুলিশকর্মী দিয়ে ছেয়ে দিয়েছিল প্রশাসন। তবু এড়ানো গেল না অশান্তি। এদিনের মিছিলে হাজির ছিলেন মুকুল রায়, জয়প্রকাশ মজুমদারের মতো রাজ্য বিজেপির প্রথম সারির নেতারা। সোনারপুর থানার সামনে থেকে হরিনাভি পর্যন্ত যায় মিছিল।

অভিযোগ, মিছিল বৈকুণ্ঠপুর মোড়ের কাছে পৌঁছতেই রাস্তার পাশ থেকে মিছিলকে উদ্দেশ্য করে কটূক্তি করতে থাকে কিছু তৃণমূলি দুষ্কৃতী। প্রতিবাদ করেন বিজেপি কর্মীরা। এর পরই দুপক্ষের বচসা বাঁধে। যার জেরে শুরু হয় হাতাহাতি। পুলিশকর্মীদের মধ্যেই হাতাহাতি চলতে থাকে বেশ কিছুক্ষণ।

ঘটনায় প্রশ্ন উঠছে, অশান্তি যদি রোখাই না যায় তাহলে এত পুলিশ মোতায়েন করে লাভ কী হল? বিজেপি নেতা মুকুল রায় এদিনের সংঘর্ষের দায় সম্পূর্ণ তৃণমূলের ঘাড়ে চাপিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বিজেপিকে সব জায়গায় বাধা দিচ্ছে তৃণমূল। কোথাও পুলিশ দিয়ে কোথাও গুন্ডা লেলিয়ে বিজেপিকে রোখার চেষ্টা হচ্ছে। বিজেপির সঙ্গে মানুষের সমর্থন দেখে ভয় পেয়েছে তৃণমূল। আর কোনও উপায় না দেখে তাই মিছিল উদ্দেশ্য করে গালি দিচ্ছে তারা।’



বন্ধ করুন