বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > বলিউডের ড্রাগ চক্রের মাস্টারমাইন্ড এক অভিনেতা তথা প্রাক্তন সুপারমডেল : রিপোর্ট
এনসিবির অফিসে দীপিকা-শ্রদ্ধা ও সারা (ফাইল ছবি) (PTI)
এনসিবির অফিসে দীপিকা-শ্রদ্ধা ও সারা (ফাইল ছবি) (PTI)

বলিউডের ড্রাগ চক্রের মাস্টারমাইন্ড এক অভিনেতা তথা প্রাক্তন সুপারমডেল : রিপোর্ট

  • এনসিবির নজরে বলিউডের তিন অভিনেতা। এর মধ্যে এক প্রাক্তন সুপারমডেল তথা বর্তমান অভিনেতাকেই বি-টাউনে মাদক যোগের মাথা হিসাবে মনে করছে এনসিবি। 

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকে বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে বলিউড। আর রিয়ার মাদকযোগের তথ্য-প্রমাণ মেলার পর থেকে কার্যত প্রশ্নের মুখে গোটা ইন্ডাস্ট্রি। ইতিমধ্যেই এনসিবির দফতরে হাজিরা দিতে হয়েছে বলিডের এ-লিস্টার তারকাদের। দীপিকা পাড়ুকোন থেকে শ্রদ্ধা,সারা, রকুল প্রীত- সকলেই কেন্দ্রীয় মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থার (NCB) ম্যারাথন জেরার মুখে পড়েছেন। তবে সূত্রের খবর বলিউডের মাদকযোগের জট আরও জটিল হচ্ছে দিন-দিন। এবং গোটা মামলার মাস্টারমাইন্ড হিসাবে উঠে আসছে এক বলিউড অভিনেতার নাম। 

এসিএনএন-নিউজ১৮ এর প্রতিবেদন অনুসারে এই মুহূর্তে এনসিবির নজরে রয়েছেন তিনজন বলিউড অভিনেতা। তবে এই গোটা চক্রের মাথা হিসাবে উঠে আসছে একজন অভিনেতার নাম, যিনি প্রাক্তন সুপারমডেলও বটে। শীঘ্রই এই তিন অভিনেতাকে সমন পাঠানো হবে এনসিবির তরফে। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির বহু মানুষকেই নাকি মাদক পাচার করতেন তাঁরা। সেই তালিকায় রয়েছে একাধিক অভিনেতা, অভিনেত্রী, পরিচালক ও প্রযোজক। সেই বড় মাথার নাকি যোগাযোগ রয়েছে সমস্ত মাদক পাচারকারীদের সঙ্গে এবং ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অন্দরের মাদক ব্যবসা নাকি তাঁর অঙ্গুলি হেলেনেই চলত। যদিও এই বিষয়ে এখনও কোনও আনুষ্ঠানিক মন্তব্য করেনি নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। 

এর আগে রিপাবলিক টিভি সূত্রে জানানো হয়, তিন ধাপে বলিউডের মাদকযোগের তদন্ত চালাচ্ছে এনসিবি। বলিউডের বেশ কিছু বড় মাপের তারকা এনসিবির নজরদাড়ির আওতায় রয়েছে। 

বলিউডের মাদকযোগের মামলায় গত ৮ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার হয়েছেন রিয়া চক্রবর্তী, আগেই গ্রেফতার করা হয়েছিল তাঁর ভাই শৌভিক চক্রবর্তী এবং সুশান্তের হাউজ ম্যানেজার স্যামুয়েল মিরান্ডা ও দীপেশ সাওয়ান্তকে। এছাড়াও গত সপ্তাহেই ধর্মা প্রোডাকশনের এক্সিকিউটিভ প্রোডিউসার ক্ষিতিশ রবি প্রসাদকে গ্রেফতার নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। 

সুশান্ত মৃত্যু মামলার সঙ্গে জড়িত আর্থিক তছরুপের মামলার তদন্তে নেমে রিয়ার মাদকযোগের হদিশ পায় এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। এরপর ইডির ডাকে এই তদন্তে যোগ দেয় নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। 

গত মঙ্গলবার বম্বে হাইকোর্টে রিয়া চক্রবর্তী, শৌভিক চক্রবর্তীর জামিনের শুনানি চলাকালীন এই মামলায় এনসিবির হস্তক্ষেপ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন অভিযুক্তদের আইনজীবী সতীশ মানেসিন্ধে। এনসিবির সাফ জানায় সুশান্তের অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে শুনানি ও রায়দান হয়েছে। তার সঙ্গে এই মামলার যোগ কোথায়? এখানে জুরিসডিকশনের প্রশ্ন উঠছে কোথা থেকে? এনসিবি এই দেশের কেন্দ্রীয় মাদক নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তাঁরা একটি মামলার তদন্ত চালাচ্ছে,যেখানে প্রয়াত সুশান্ত সিং রাজপুতও জড়িত। তার মানে এই নয় মাদক মামলার তদন্ত সিবিআই করবে। আর সুপ্রিম কোর্ট নিজের রায়ে পরিষ্কার জানিয়েছে অভিযুক্তের তদন্তকারী সংস্থা বাছাইয়ের অধিকার নেই।

পাশাপাশি নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর তরফে আদালতকে এটাও জানানো হয় এই মামলাটি শুধু সুশান্তের মৃত্যুর সঙ্গে জড়িত নয়- বলিউডের মাদকযোগ নিমূর্ল করতেই এই তদন্ত। এনসিবি জানায়- ড্রাগ সমাজের সবক্ষেত্রে আছে- তবে ভুলে গেলে চলবে না তারকাদের দেশের যুব সম্প্রদায় তাঁদের অনুপ্রেরণা মনে করে। সেই যুব সমাজই দেশের ভবিষ্যত, যাঁদের রক্ষাই আমাদের দায়িত্ব। 

বন্ধ করুন