বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'যৌন হেনস্থার জন্য দায়ী স্বাধীনচেতা মেয়েরা', বিতর্কিত মন্তব্য মুকেশ খান্নার
মুকেশ খান্না (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

'যৌন হেনস্থার জন্য দায়ী স্বাধীনচেতা মেয়েরা', বিতর্কিত মন্তব্য মুকেশ খান্নার

  • শক্তিমানের মতে- মিটুর উত্স হল বাইরে বেরিয়ে মেয়েদের কাজ করা এবং ছেলেদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে টক্কর দেওয়ার মনোভাব। 

শক্তিমান হয়ে নব্বইয়ের দশকে ভারতীয় দর্শকদের মনে রাজ করেছেন মুকেশ খান্না। ছেলে-মেয়ে নির্বিষে সকলেই শক্তিমানের ভক্ত। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু থেকে সম্প্রতি কপিল শর্মার শো নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে মাসখানেক ধরেই সংবাদ শিরোনামে এই বর্ষীয়ান শিল্পী। এবার মিটু আন্দোলন নিয়ে উদ্ভূট এবং ‘নারীবিদ্বেষী’ তত্ত্ব খাড়া করলেন অভিনেতা। অভিনেতার দাবি মিটু আন্দোলন শুরু হয়েছে কারণ মেয়েরা এখন ভাবতে শুরু করেছে নারী-পুরুষ সমান। মেয়েদের কাজ হল সংসারের দায়িত্ব সামলানো। 

মুকেশ খান্নার সাম্প্রতিক এক সাক্ষাত্কারের ক্লিপিং সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। ফিল্মি চর্চাকে দেওয়া সেই সাক্ষাত্কারে মুকেশ খান্না বলছেন- ‘মেয়েদের কাজ হল সংসারের দায়িত্ব সামলানো। ক্ষমা করবেন সেটা আমিও আজকাল মাঝেমাঝে ভুলে যাই। মিটু নামের সমস্যা কোথা থেকে শুরু হয়েছে জানেন যবে থেকে মেয়েরা কাজ করতে শুরু করেছে। আজ মেয়েরা ছেলেদের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে সবেতে টক্কর দেওয়ার চেষ্টা করে’।

মেয়েরা বাইরে কাজ করে বলেই নাকি বাড়িতে ছেলেমেয়েদের প্রতি মনোযোগ দিতে পারে না, সন্তানরা এতে সমস্যায় পরে, যোগ করেন মুকেশ খান্না। 

টুইটারে এই মন্তব্য নিয়ে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।'প্ল্যাটফর্ম পেলে নোংরা মানসিকতার মানুষরা এমনই কথা বলে', মন্তব্য নেটিজেনদের। কেউ আবার লিখেছেন- শক্তিমানের সবচেয়ে বড় দুর্বলতা যে তাঁর মানসিকতা সেটা জানতাম না'। 

নেটিজেনদের মতে আমাদের তথাকথিত পুরুষতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থার ফসল এই নারীবিদ্বেষী মনো। এরা শুধু পর্দাতেই সুপারহিরো হতে পারে, তবে বাস্তবটা এক্কেবারে আলাদা। দ্রুত এই ধরণের মানসিকতা ঝেরে ফেলেটা খুব জরুরি, বলছেন নেট নাগরিকরা। 

বন্ধ করুন