বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Shweta Tiwari: ছেলের কাস্টডি মামলায় জয় শ্বেতার, রেয়াংশের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন অভিনব
শ্বেতার জয়
শ্বেতার জয়

Shweta Tiwari: ছেলের কাস্টডি মামলায় জয় শ্বেতার, রেয়াংশের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন অভিনব

  • আদালতের রায়কে স্বাগত জানালেন শ্বেতা। অভিনব সপ্তাহে দু-ঘন্টার জন্য দেখা করতে পারবেন রেয়াংশের সঙ্গে।

ছেলের কাস্টডি কার কাছে থাকবে সেই নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই আইনি লড়াই চলছিল অভিনেত্রী শ্বেতা ও তাঁর প্রাক্তন স্বামী অভিনব কোহলির। অবশেষে সেই মামলায় জয় পেলেন শ্বেতা, পাঁচ বছরের রেয়াংশ মায়ের কাছেই থাকবে জানিয়ে দিল আদালত। তবে ছেলের সঙ্গে সপ্তাহে দু-ঘন্টার জন্য দেখা করতে পারবেন অভিনব, জানিয়েছে কোর্ট। শ্বেতার বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ এনেছিলেন অভিনব, ছেলের দেখভাল সঠিকভাবে করেন না অভিনেত্রী, এমনকি ছেলেকে একা ফেলে বিদেশে চলে যাওয়ার মতো অভিযোগও ছিল প্রাক্তন স্বামীর। 

কাস্টডি মামলার রায় তাঁর পক্ষে যাওয়ায় খুশি শ্বেতা। অভিনেত্রীর জানান, ‘আমি এটাই চেয়েছিলাম, এবং এই রায়ে আমি সন্তুষ্ট। গত দু-বছরে আমি যেখানে গেছি অভিনব পিছু ধাওয়া করেছি। দিল্লি, পুনে অথবা রেয়াংশকে নিয়ে শো-এর জন্য আমি যেখানে গিয়েছি সেখানেই হাজির হয়েছে অভিনব। এই ঘটনা আমার এবং আমার দুই সন্তানের জন্য মানসিক অত্যাচার। ও প্রতিটি জায়গায় গিয়ে এটা প্রমাণ করতে চাইত, আমার ছেলে আমার সঙ্গে থেকে ভাল নেই। যখন রেয়াংশ এতটুকু বয়সেও আমার পাশে থাকত, ও রেয়াংশকে বোঝানোর চেষ্টা করত আমি কত খারাপ মা’। অভিনেত্রী আশাবাদী, এবার হয়ত প্রাক্তন স্বামী তাঁকে ‘হয়রান’ করা বন্ধ করবে।

‘কসৌটি জিন্দেগি কি’ খ্যাত এই নায়িকা আরও জানান, ‘আমি সবসময় অভিনবকে রেয়াংশের সঙ্গে দেখা করবার অনুমতি দিয়েছি। পূর্ববর্তী কোর্টের আদেশ অনুযায়ী, রেয়াংশের সঙ্গে মাত্র আধ ঘন্টার জন্য ভিডিয়ো কলে কথা বলবার অনুমতি ছিল অভিনবের, কিন্তু যখন ও কথা বলতে চেয়েছে আমি কোনওদিন বারণ করিনি, কারণ আমি সেটা বুঝি- ও রেয়াংশের বাবা। কিন্তু সেই মানুষটাই আমাকে খারাপ মা প্রমাণ করতে চায়। আমার পরিবারকে যাতে আমি একটা ভালো লাইফস্টাইল দিতে পারি, সেই কারণেই আমি কাজ করি। সেটা কি ভুল? অথচ আমি ওয়ার্কিং মাদার- এটা নাকি আমার দোষ! আমি খুশি কোর্ট সেই অভিযোগগুলোকে গুরুত্ব দেয়নি’।

রেয়াংশের কাস্টডি সংক্রান্ত মামলায় আদালত স্পষ্ট জানিয়েছে, ‘বিষয়টা হল ব্যস্ত দু-নম্বর উত্তরদাতা (শ্বেতা) ব্যস্ত অভিনেত্রী, সেটা কখনই তাঁর অন্তরায় নয় নিজের সন্তানকে কাছে রাখবার জন্য’। মাস কয়েক আগেই খতরোকে খিলাড়ির শ্যুটিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়েছিলেন শ্বেতা। সেই সময় অভিনব অভিযোগ করেন, ছেলেকে হোটেলে একা রেখে শ্যুটিংয়ের কাজে গিয়েছেন প্রাক্তন স্ত্রী। যদিও সেই অভিযোগ উড়িয়ে শ্বেতা জানান, বড় মেয়ে পলক ভাইয়ের দেখভাল করছে। তিনি কখনই রেয়াংশকে একা রাখেননি। 

অভিনেতা-প্রয়োজক রাজাচৌধুরীর সঙ্গে খুব অল্প বয়সে বিয়ে করেছিলেন শ্বেতা। তাঁদের কন্যা সন্তান পলক। সেই বিয়ে ভাঙার দীর্ঘ সময় পর ২০১৩ সালে অভিনবকে বিয়ে করেন অভিনেত্রী, যদিও বিয়ের কয়েক বছরের মাথাতেই তাঁদের দাম্পত্য কলহ প্রকাশ্যে চলে আসে। ২০১৯ সালে ডিভোর্স পাকা হয় শ্বেতা-অভিনবের।

বন্ধ করুন