বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'দেশবিরোধী মনোভাব কী?' কেন্দ্রের কাছে সংজ্ঞা চাইল প্যানেল, সুপারিশ ভুয়ো খবর রোধে
তথ্য ও প্রযুক্তি সংক্রান্ত সংসদীয় প্যানেলের প্রধান কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর (ছবি সৌজন্যে এএনআ) (Amit Sharma)
তথ্য ও প্রযুক্তি সংক্রান্ত সংসদীয় প্যানেলের প্রধান কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর (ছবি সৌজন্যে এএনআ) (Amit Sharma)

'দেশবিরোধী মনোভাব কী?' কেন্দ্রের কাছে সংজ্ঞা চাইল প্যানেল, সুপারিশ ভুয়ো খবর রোধে

  • তথ্য ও প্রযুক্তি সংক্রান্ত সংসদীয় প্যানেলের প্রধান কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর। প্যানেলে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রও আছেন।

'দেশবিরোধী' মনোভাব কী? কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রককের থেকে এই সংজ্ঞা জানতে চাইল সংসদীয় প্যানেল। টেলিভিশন রেটিং পয়েন্টের মূল্যায়নের জন্য ভালো একটি ব্যবস্থা তৈরি করতে এবং ভুয়ো খবর রুখতে আইন পরিবর্তন করতে তথ্য ও প্রযুক্তি সংক্রান্ত সংসদীয় প্যানেল এই জবাব চেয়েছে। পাশাপাশি এই গতানুগতিক ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির জন্য অনেকগুলি সংস্কারের সুপারিশও করেছে সংসদীয় প্যানেল।

কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুর নেতৃত্বাধীন প্যানেলটি মনে করে যে এটা 'গভীর উদ্বেগের বিষয় যে মিডিয়া, যা একসময় আমাদের গণতন্ত্রে নাগরিকদের হাতে সবচেয়ে বিশ্বস্ত অস্ত্র ছিল এবং জনস্বার্থে কাজ করছিল, ধীরে ধীরে সেখানে মূল্যবোধ এবং নৈতিকতার সাথে আপস করা হচ্ছে এবং এর জেরে তার বিশ্বাসযোগ্যতা এবং সততা হারাচ্ছে'। ২৯ নভেম্বর থেকে শুরু হতে চলা সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে এই সংক্রান্ত রিপোর্টটি পেশ করা হবে।

প্যানেলের রিপোর্টে উল্লেখ করা সমস্যাগুলির মধ্যে রয়েছে পেইড নিউজ, ভুয়ো খবর, টিআরপি ম্যানিপুলেশন, মিডিয়া ট্রায়াল, চাঞ্চল্যকর এবং পক্ষপাতদুষ্ট প্রতিবেদন, নৈতিক আচরণবিধি লঙ্ঘন। রিপোর্টে বলা হয়েছে, '(এগুলি) জনগণের মনে এর (মিডিয়া) বিশ্বাসযোগ্যতার উপর একটি বড় প্রশ্ন চিহ্ন তুলে দিয়েছে। সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য এটা ভালো লক্ষণ নয়। একটি সুস্থ গণতন্ত্র জনগণের অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিকশিত হয়। শুধুমাত্র দায়িত্বশীল মিডিয়া সঠিক তথ্য প্রচারের মাধ্যমে এটাকে সম্ভব করতে পারে।'

নতুন সোশ্যাল মিডিয়া এবং মধ্যস্থতাকারী নির্দেশিকা আনায় সরকারের প্রশংসা করা হয়েছে রিপোর্টে। তবে সেগুলি চালু করার উদ্দেশ্যগুলি কতটা ভালোভাবে অর্জন করা হয়েছে সেই সম্পর্কে কেন্দ্রের কাছ থেকে প্রতিক্রিয়া চাওয়া হয়েছে। কমিটি আশা করে যে এই নির্দেশিকাগুলি ডিজিটাল মিডিয়া বিষয়বস্তু নিয়ন্ত্রণে একটি দীর্ঘকালীন পথ বাতলে দেবে এবং উভয় মন্ত্রণালয়ই সুসংহতভাবে কাজ করে নিশ্চিত করবে যাতে ডিজিটাল মিডিয়াও নৈতিকতা অনুসরণ করে।

 

বন্ধ করুন