Covid-19 সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে লকডাউন চলাকালীন ব্যারিকেড পেরোনোর অপরাধে এক পথচারীকে আটক করল পুলিশ। সোমবার, ফরিদাবাদে। (PTI)
Covid-19 সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে লকডাউন চলাকালীন ব্যারিকেড পেরোনোর অপরাধে এক পথচারীকে আটক করল পুলিশ। সোমবার, ফরিদাবাদে। (PTI)

Covid-19 Lockdown: সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করলে কারাদণ্ড ও জরিমানা

  • সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করলে অথবা করার চেষ্টায় অবরোধ, বিক্ষোভ বা আঘাত ঘটালে হাজতবাস এবং জরিমানার বিধান।

Covid-19 সংক্রমণ রুখতে দেশজুড়ে লকডাউন সুনিশ্চিত করতে কড়া নির্দেশ জারি করল কেন্দ্র। নির্দেশ অমান্য করলে শাস্তি হিসেবে কারাদণ্ড এবং জরিমানা হতে পারে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সমস্ত রাজ্যে লকডাউন কার্যকর করেছে সরকার। রবিবার থেকে পশ্চিমবঙ্গ-সহ রাজ্য সরকারগুলি দ্রুত পরিবহণ এবং অপ্রয়োজনীয় পরিষেবা বন্ধ রাখার নির্দেশ জারি করে লকডাউন বলবৎ করার উদ্যোগ নিয়েছে।

কেন্দ্র থেকে কড়া বার্তা জারি করা হয়েছে, রাজ্য সরকারকে মহামারী দমন আইন এবং ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারা অনুযায়ী নিষেধাজ্ঞা অমান্যকারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

১৮৯৭ সালে ব্রিটিশ আমলে চালু মহামারী দমন আইন (Epidemic Diseases Act) অনুযায়ী, ‘এই আইনে উল্লিখিত নিষেধাজ্ঞা বা আদেশ অমান্য করলে যে কোনও ব্যক্তিকে অপরাধী হিসেবে গণ্য করা হবে এবং ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায় শাস্তি প্রদান করা হবে।’

এই আইনে নিষেধাজ্ঞা অমান্যকারীর বিরুদ্ধে পদক্ষেপের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে সরকারি কর্মচারীদের। আইনে লেখা রয়েছে, ‘এই আইন ভঙ্গকারী তাঁর বিরুদ্ধে দেওয়া আদালতের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে কোনও আইনি আবেদন বা মামলা করতে পারবেন না।’

পাশাপাশি, ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায় সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করলে অথবা করার চেষ্টায় অবরোধ, বিক্ষোভ বা আঘাত ঘটালে যে কোনও ব্যক্তিকে একমাস হাজতবাস এবং ২০০ টাকা জরিমানা করার বিধান রয়েছে।

মহামারী দমন আইনে আরও বলা হয়েছে যে, আইন অমান্য করতে গিয়ে মানুষের প্রাণ সংশয় ঘটালে, অথবা স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিপদ সৃষ্টি করলে অপরাধীর ৬ মাস পর্যন্ত কারাদণ্ড অথবা/এবং এক হাজার টাকা জরিমানা হতে পারে।

বন্ধ করুন