বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Dhaka New Market Clash: ঢাকার নিউ মার্কেটে পড়ুয়া-দোকানদারদের সংঘর্ষে মৃত বেড়ে ২, মামলা ৭০০ জনের বিরুদ্ধে
বুধবার ঢাকার নিউ মার্কেটে কড়া নিরাপত্তা। (ছবি সৌজন্যে এএফপি)

Dhaka New Market Clash: ঢাকার নিউ মার্কেটে পড়ুয়া-দোকানদারদের সংঘর্ষে মৃত বেড়ে ২, মামলা ৭০০ জনের বিরুদ্ধে

  • মঙ্গলবার দিনভর ঢাকার নিউ মার্কেটে সংঘর্ষ হয়। আহত হন কমপক্ষে ৫০ জন। হন৷ তাঁদের মধ্যে নাহিদ মিয়া নামের ১৮ বছর বয়সি এক তরুণকে রাস্তার উপর কোপানো হয়৷ নাহিদ এলিফ্যান্ট রোডের ডাটা টেক কম্পিউটার নামের একটি দোকানের ডেলিভারি অ্যাসিসট্যান্ট হিসেবে কাজ করতেন৷ ইটের আঘাতে আহত মোরসালিন নামের এক দোকান কর্মচারীও চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গিয়েছেন বৃহস্পতিবার ভোরে৷

ঢাকার নিউ মার্কেট এলাকায় দোকান মালিক ও কর্মীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষের ঘটনায় অজ্ঞাতপরিচয় ৭০০ মানুষকে আসামি করে তিনটি মামলা হয়েছে৷

এর মধ্যে বিস্ফোরণ, দাঙ্গা-হাঙ্গামা, জ্বালানো, পোড়াও, পুলিশের কাজের বাধা দেওয়ার অভিযোগ দুটি মামলা করেছেন নিউ মার্কেট থানার এসআই মেহেদি হাসান ও পরিদর্শক (তদন্ত) ইয়ামিন কবির৷ আর সংঘর্ষের মধ্যে পড়ে নিহত ডেলিভারিম্যান নাহিদ মিয়ার কাকা মো. সাইদ হত্যার অভিযোগ এনে অন্য মামলাটি দায়ের করেছেন৷

নিউ মার্কেট থানার এসআই শাহ আলম বলেন, বুধবার রাতেই মামলা তিনটি রেকর্ড করা হয়৷ আসামিরা সব অজ্ঞাত৷ মেহেদি হাসানের মামলায় আসামি ১৫০ থেকে ২০০ জন, ইয়ামিন কবিরের মামলায় আসামি ২০০ থেকে ৩০০ জন এবং সাইদের মামলায় আসামি ১৫০ থেকে ২০০ জন৷

আরও পড়ুন: Dhaka New Market Clash: ঝামেলা বহিরাগতদের, ভেঙেছিল লোহা, নিউ মার্কেটের সংঘর্ষ নিয়ে দাবি ব্যবসায়ীদের

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দোকানকর্মীদের রক্তক্ষয়ী ওই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়েছিল গত সোমবার রাতে নিউ মার্কেটের একটি খাবারের দোকানে ঢাকা কলেজের কয়েকজন ছাত্র মারধরের শিকার হওয়ার পর৷ দোকান মালিকরা দাবি করেন, দুই দোকানের কর্মীদের বচসা থেকে একপক্ষ ঢাকা কলেজ ছাত্রাবাস থেকে ছাত্রলিগের কয়েক কর্মীকে ডেকে আনে৷ তারা গিয়ে মারধরের শিকার হওয়ার পর ছাত্রাবাসে ফিরে আরও শিক্ষার্থীদের নিয়ে মধ্যরাতে নিউ মার্কেটে হামলা চালাতে গেলে বাঁধে সংঘর্ষ৷ 

মঙ্গলবার দিনভর চলা এই সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক মানুষ আহত হন৷ তাঁদের মধ্যে নাহিদ মিয়া নামের ১৮ বছর বয়সি এক তরুণকে রাস্তার উপর কোপানো হয়৷ নাহিদ এলিফ্যান্ট রোডের ডাটা টেক কম্পিউটার নামের একটি দোকানের ডেলিভারি অ্যাসিসট্যান্ট হিসেবে কাজ করতেন৷ ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাতে তাঁর মৃত্যু হয়৷

পুলিশের করা সুরতহাল প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নাহিদের মাথার বাম পাশে পাশাপাশি চারটি কাটা জখম ছিল, জখমগুলো দুই থেকে সাড়ে তিন ইঞ্চি লম্বা৷ চারটি জখমে ২৩টি সেলাই পড়েছে৷ পিঠের বাঁ পাশে পাঁচ ইঞ্চি করে লম্বা পাশাপাশি তিনটি কাটা জখম৷ বাঁ পায়ের গোড়ালির নিচে কাটা জখমেও পাঁচটি সেলাই লেগেছিল, এছাড়া উভয় পায়ের বিভিন্ন জায়গায় নীল-ফোলা কালা জখম ছিল৷ নাক, মুখের ছোলা জখম ছিল৷

আরও পড়ুন: দাম কমছে ভোজ্য তেল, চিনি ও ছোলার - আমদানিতে ভ্যাট প্রত্যাহার করল বাংলাদেশ

মঙ্গলবার সংঘর্ষের মধ্যে ইটের আঘাতে আহত মোরসালিন নামের এক দোকান কর্মচারীও চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গিয়েছেন বৃহস্পতিবার ভোরে৷ এ বিষয়ে এখনও কোনও মামলা হয়নি৷

(বিশেষ দ্রষ্টব্য : প্রতিবেদনটি ডয়চে ভেলে থেকে নেওয়া হয়েছে। সেই প্রতিবেদনই তুলে ধরা হয়েছে। হিন্দুস্তান টাইমস বাংলার কোনও প্রতিনিধি এই প্রতিবেদন লেখেননি।)

বন্ধ করুন