বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > HTLS 2021: 'সীমান্তে উত্তেজনার মধ্যে অন্য ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক দারুণ হতে পারে না'
এস জয়শংকর।

HTLS 2021: 'সীমান্তে উত্তেজনার মধ্যে অন্য ক্ষেত্রে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক দারুণ হতে পারে না'

  • ভারত-চিনের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে কড়া বার্তা জয়শংকরের।

সীমান্তে যে পরিস্থিতি আছে, তার প্রভাব পড়বে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কেও। সীমান্তে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে এবং অন্যান্য সকল ক্ষেত্রে দারুণ সম্পর্ক আছে, এমনটা হতে পারে না। ভারত-চিনের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে স্পষ্টভাবে একথা জানিয়ে দিলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর।

বৃহস্পতিবার ‘হিন্দুস্তান টাইমস লিডারশিপ সামিটে’ বিদেশমন্ত্রী জানান, সীমান্তে যে পরিস্থিতি আছে, তার উপর দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নির্ভর করবে। কড়া ভাষায় তিনি বলেন, ‘আমরা আগেই স্পষ্ট করে দিয়েছি যে সীমান্তের পরিস্থিতির উপর (দ্বিপাক্ষিক) সম্পর্ক নির্ভর করবে। এরকম হতে পারে না যে সীমান্তে উত্তেজনাপূর্ণ আবহ তৈরি হয়েছে এবং জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রে দারুণ সম্পর্ক আছে। সেভাবে বিষয়টা চলে না। এটা অনিবার্য ছিল যে বিষয়টা (সীমান্তের উত্তেজনামূলক আবহ) অনেক ক্ষেত্রেও ছড়িয়ে যাবে। ইতিমধ্যে গিয়েছেও। একটা ছোটো জায়গায় সেটা আমরা আটকে রাখব এবং বাকি ক্ষেত্রে স্বাভাবিকভাবে এগিয়ে যাব, এই বিষয়টা মোটেও বাস্তবসম্মত নয়।’

গত বছর মে'তে পূর্ব লাদাখ সীমান্ত বরাবর ভারত এবং চিনের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে। মুখোমুখি অবতীর্ণ হওয়ার পাশাপাশি ১৫ জুন গালওয়ান উপত্যকায় ভারতীয় এবং চিনা সেনার সংঘর্ষ হয়েছিল। তাতে ২০ জন ভারতীয় জওয়ান মারা গিয়েছিলেন। চিনের তরফে যথারীতি হতাহতের সংখ্যা প্রকাশ করা হয়নি। তবে সংশ্লিষ্ট মহলের মতে, সেই সংখ্যাটা ৪৫-এর কম নয়। পরে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্যাংগং সো লেকের উত্তর এবং দক্ষিণ সীমান্ত থেকে সেনা পিছনে সরিয়ে নেয় ভারত এবং চিন। সেইসঙ্গে প্রথম থেকেই ভারত স্পষ্ট জানিয়ে আসছে, সার্বিকভাবে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের জন্য সীমান্ত শান্তি ফেরাতে হবে।

যদিও চিনের তরফে বরাবর দাবি করা হয়েছে যে সীমান্তের দ্বন্দ্বের সঙ্গে যেন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে জুড়ে দেওয়া না হয়। গত জুলাইয়ে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বলেন, ‘কিছুটা সময় ধরেই সীমান্ত বরাবর সৈন্যের সংখ্যা বাড়াচ্ছে ভারত এবং চিনা ভূখণ্ডে জবরদখল চালিয়ে যাচ্ছে। সীমান্ত বরাবর উত্তেজনা তৈরি হওয়ার এটাই মূল কারণ। আমরা শান্তিপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে সীমান্ত সমস্যার সমাধান করতে চাই। আমাদের মতে, দু'দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সঙ্গে সীমান্তের সমস্যাকে জুড়ে দেওয়া উচিত নয়।’

বন্ধ করুন