বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > India Slams Pakistan at UN: ২৬/১১ প্রসঙ্গ তুলে বিশ্বদরবারে পাকিস্তানকে মোক্ষম জবাব ভারতের
রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের ডিবেটে পাকিস্তানকে তুলোধনা ভারতের।  (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)
রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের ডিবেটে পাকিস্তানকে তুলোধনা ভারতের।  (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য রয়টার্স)

India Slams Pakistan at UN: ২৬/১১ প্রসঙ্গ তুলে বিশ্বদরবারে পাকিস্তানকে মোক্ষম জবাব ভারতের

রাষ্ট্রসংঘের মঞ্চে ভারতের তরফে আর মধুসূদন বলেন, ‘পুরো জম্মু, কাশ্মীর ও লাদাখ ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল , আছে থাকবে।’ 

বিশ্বের যত সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছে, তারমধ্যে থাকা সবচেয়ে বেশি সংখ্যক জঙ্গীর আবাসস্থল পাকিস্তান। রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ঠিক এই ভাষাতেই পাকিস্তানকে তোপ দাগতে ছাড়ল না ভারত। এই প্রসঙ্গে, ২৬/১১ মুম্বই হামলা নিয়েও ইসলামাবাদকে একহাত নেয় দিল্লি। ভারত সাফ জানায় মুম্বই হামলার মূল চক্রীরা আজও পাকিস্তানের ছত্রছায়ায় খোলাখুলি ঘুরে বেড়াচ্ছে। কার্যত এই বার্তা দিয়েই সন্ত্রাস ইস্যুতে পাকিস্তানের অবস্থান ঘিরে ইসলামাবাদের মুখোশ ফের একবার খুলে দিল ভারত।

উল্লেখ্য, রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত 'প্রটেকশন অফ সিভিলিয়ানস ইন আর্মড কনফ্লিক্ট' শীর্ষক এক ডিবেটে, রাষ্ট্রসংঘে পাকিস্তানের প্রতিনিধি মুনির আক্রম জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতির কথা তুলে ধরেন। এর জবাবেই ভারতের তরফে আর মধুসূদন বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, 'সদস্য দেশগুলি প্রত্যেকেই জানে যে, সন্ত্রাসের কার্যকলাপ, সাহায্য, প্রত্যক্ষ সমর্থন দিয়ে আসছে পাকিস্তান।এই দেশটি বিশ্বের কাছে পরিচিত হয়েছে সন্ত্রাসের প্রযোজক হিসাবে।' একই সঙ্গে তিনি বলেন, বিশ্বে যে সমস্ত সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছে, তার মধ্যে জড়িত থাকা জঙ্গিদের বেশিরভাগেরই দেশ পাকিস্তান। উল্লেখ্য, সাম্প্রতিককালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের একটি ঘটনায়, এক ব্রিটিশকে পণবন্দি করার ঘটনায় অভিযুক্তের তালিকায় আসে পাকিস্তানি বংশোদ্বূত মালিক ফয়জল আক্রমের নাম। তারপরই ভারত পাকিস্তানকে টার্গেট করে ওই ডিবেটে কার্যত সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে তুলোধনা করে।

বিশ্বের যত সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছে, তারমধ্যে থাকা সবচেয়ে বেশি সংখ্যক জঙ্গীর আবাসস্থল পাকিস্তান। রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ঠিক এই ভাষাতেই পাকিস্তানকে তোপ দাগতে ছাড়ল না ভারত। এই প্রসঙ্গে, ২৬/১১ মুম্বই হামলা নিয়েও ইসলামাবাদকে একহাত নেয় দিল্লি। ভারত সাফ জানায় মুম্বই হামলার মূল চক্রীরা আজও পাকিস্তানের ছত্রছায়ায় খোলাখুলি ঘুরে বেড়াচ্ছে। কার্যত এই বার্তা দিয়েই সন্ত্রাস ইস্যুতে পাকিস্তানের অবস্থান ঘিরে ইসলামাবাদের মুখোশ ফের একবার খুলে দিল ভারত।

উল্লেখ্য, রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত 'প্রটেকশন অফ সিভিলিয়ানস ইন আর্মড কনফ্লিক্ট' শীর্ষক এক ডিবেটে, রাষ্ট্রসংঘে পাকিস্তানের প্রতিনিধি মুনির আক্রম জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতির কথা তুলে ধরেন। এর জবাবেই ভারতের তরফে আর মধুসূদন বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, 'সদস্য দেশগুলি প্রত্যেকেই জানে যে, সন্ত্রাসের কার্যকলাপ, সাহায্য, প্রত্যক্ষ সমর্থন দিয়ে আসছে পাকিস্তান।এই দেশটি বিশ্বের কাছে পরিচিত হয়েছে সন্ত্রাসের প্রযোজক হিসাবে।' একই সঙ্গে তিনি বলেন, বিশ্বে যে সমস্ত সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছে, তার মধ্যে জড়িত থাকা জঙ্গিদের বেশিরভাগেরই দেশ পাকিস্তান। উল্লেখ্য, সাম্প্রতিককালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের একটি ঘটনায়, এক ব্রিটিশকে পণবন্দি করার ঘটনায় অভিযুক্তের তালিকায় আসে পাকিস্তানি বংশোদ্বূত মালিক ফয়জল আক্রমের নাম। তারপরই ভারত পাকিস্তানকে টার্গেট করে ওই ডিবেটে কার্যত সন্ত্রাসবাদ ইস্যুতে তুলোধনা করে।

|#+|

এখানেই শেষ নয়। আর মধুসূদন কাশ্মীরের প্রশ্নেও কার্যত পাকিস্তানকে মোক্ষম জবাব দিয়েছেন রাষ্ট্রসংঘের মঞ্চে। তিনি বলেন, 'পুরো জম্মু, কাশ্মীর ও লাদাখ ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল , আছে থাকবে। পাকিস্তানের প্রতিনিধি যাই বিশ্বাস করে থাকুন না কেন, আমারা পাকিস্তানকে আহ্বান জানাচ্ছি, তার অবৈধ দখলের আওতায় থাকা জমি অবিলম্বে যেন খালি করা হয়।' এদিকে, এই ডিবেটে দেশের তরফে জাতীয় বিবৃতি প্রকাশ করেন রাষ্ট্রসংঘে ভারতের প্রতিনিধি টি এস তিরুমূর্তি। তিনি সেখানে জানান, যে নাগরিক অধিকার নিয়ে আলোচনা হচ্ছে, সেই নাগরিক অধিকারের বড় অংশই ক্ষুণ্ণ হচ্ছে সন্ত্রাসবাদীদের দ্বারা। এরসঙ্গেই তিনি ২৬/১১, ২০০৮ সালে মুম্বইতে হামলার প্রসঙ্গ তোলেন। হামলার বীভৎসতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, সেই জঙ্গি হামলায় ১৬৬ জন নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি পাকিস্তান মিথ্যাচার করতে বিশ্বমঞ্চকে ব্যবহার করছে বলেও সুর চড়ান টি এস তিরুমূর্তি। এরপরই ভারতের তরফে পার্মানেন্ট মিশনের কাউন্সিলর আর মধু সূদন বলেন, যতক্ষণ না পর্যন্ত সন্ত্রাসের আবহ বন্ধ হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত ততক্ষণ পর্যন্ত কোনও অর্থবহ আলোচনা সম্বব নয়। ফলে আপাতত ওই বিষয়টি নির্ভর করে রয়েছে পাকিস্তানের ওপর।

বন্ধ করুন