বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > বারাণসী থেকে অসম যাবে বিশ্বের দীর্ঘতম নদী ক্রুজ! উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

বারাণসী থেকে অসম যাবে বিশ্বের দীর্ঘতম নদী ক্রুজ! উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

অলকানন্দা ক্রুজ। ফাইল ছবি: পিটিআই (PTI)

ক্রুজের প্রথম যাত্রা ১৩ জানুয়ারি থেকেই শুরু হবেষ এরপর প্রায় ৫০টি বড় পর্যটন স্থান ছুঁয়ে যাবে এই ক্রুজ। ক্রুজে বসে যেমন বারাণসীর গঙ্গা আরতি দেখতে পাবেন, তেমনই কাজিরাঙা, সুন্দরবন এলাকার গহীন অরণ্যেরও সাক্ষী থাকতে পারবেন। ক্রুজের মোট রুটের প্রায় ১,১০০ কিলোমিটার যাবে বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে।

বিশ্বের দীর্ঘতম নদী ক্রুজ-এর সূচনা করতে চলেছে ভারত। আগামী ১৩ জানুয়ারি তার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বারাণসী থেকে এই 'রিভার ক্রুজ' যাত্রা শুরু করবে। তারপর বাংলাদেশ হয়ে অসময়ের ডিব্রুগড় পর্যন্ত যাবে।

সূত্রের খবর, এই ক্রুজের মাধ্যমে পর্যটকরা প্রায় ৪,০০০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেবেন। ২৭টি নদী অববাহিকার মধ্যে দিয়ে যাবেন। এর মধ্যে যেমন গঙ্গা-ভাগিরথী-হুগলি রয়েছে, তেমনই ব্রহ্মপুত্রও রয়েছে। একবার সম্পূর্ণ যাত্রা সম্পন্ন করতে প্রায় ৫০ দিন সময় লাগবে বলে জানা গিয়েছে। তবে এমনটা নয় যে একবার উঠে টানা ৫০ দিন যাত্রা করতে হবে। নির্দিষ্ট কিছু স্থানের মধ্যেই যেতে পারেন পর্যটকরা।  আরও পড়ুন: কেমন হতে পারে হাওড়া - বারাণসী বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের সময়সূচি?

এটির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, এটি বিশ্বের অন্যতম আলোচিত নদী-ক্রুজ প্রকল্প হতে চলেছে। ভারতে ক্রুজ পর্যটনের উন্নতির স্পষ্ট নিদর্শক এটি। তিনি আরও বলেন, এই ক্রুজের প্রথম যাত্রা ১৩ জানুয়ারি থেকেই শুরু হবেষ এরপর প্রায় ৫০টি বড় পর্যটন স্থান ছুঁয়ে যাবে এই ক্রুজ। ক্রুজে বসে যেমন বারাণসীর গঙ্গা আরতি দেখতে পাবেন, তেমনই কাজিরাঙা, সুন্দরবন এলাকার গহীন অরণ্যেরও সাক্ষী থাকতে পারবেন। ক্রুজের মোট রুটের প্রায় ১,১০০ কিলোমিটার যাবে বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে।

বারণসী থেকে আসা এই ক্রুজ ফারাক্কা, মুর্শিদাবাদ হয়ে কালনা, নামখানা, সজনেখালি পার করে বাংলাদেশে প্রবেশ করবে। সেখানে মরেলগঞ্জ, মেঘনা ঘাট, সোনারগাঁও দিয়ে উত্তরমুখী হয়ে হয়ে চিলমারি পার করে ফের ভারতে প্রবেশ করবে। ধুবরি, পেরি অসমের গুয়াহাটি যাবে এই ক্রুজ। এরপর উত্তর-পূর্ব দিকে শিলঘাট, বিশ্বনাথ হয়ে ডিব্রুগড় পর্যন্ত যাবে।

TOI-কে এই বিষয়ে ওয়াকিবহাল এক সরকারি আধিকারিক জানান, কেন্দ্র বর্তমানে দেশের অভ্যন্তরীণ নদী ব্যবস্থায় জলযান চলাচলের বিষয়ে জোর দিচ্ছে। আর সেই কারণে এই সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রকল্পের সূচনা করা হচ্ছে। এই প্রকল্পগুলির অংশ হিসাবে নদীবক্ষের গভীরতা বৃদ্ধি, নেভিগেশনের জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো গড়ে তোলা, আরও উন্নত, আধুনিক জেটি গড়ে তোলার মতো কাজ করা হচ্ছে।

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় নৌ পরিবহন ও নৌপথ মন্ত্রী সর্বানন্দ সোনওয়াল জানান, ক্রুজ পরিষেবা ছাড়াও উপকূল এবং নদীতে নৌ চলাচলের উন্নয়নকে অগ্রাধিকারের দেওয়া হবে। এই বিষয়ে, প্রধানমন্ত্রী বলেন, কেন্দ্র প্রায় ১০০টি জাতীয় জলপথের উন্নয়নের কাজ হাতে নিয়েছে। আগামিদিনে এই জলপথগুলিতে বিশ্বমানের ক্রুজ চালানোর লক্ষ্য রয়েছে। আরও পড়ুন: দিঘা মেরিন ড্রাইভের অসাধারণ ড্রোন ভিডিয়ো! 

ক্রুজ চালানোর লক্ষ্য নিয়ে এই প্রকল্পের কাজ করা হলেও এতে আমজনতাও উপকৃত হবে। আরও বেশি ঘাট, তার উন্নয়ন, জেটি, নদীর নাব্যতা বৃদ্ধির কারণে বর্তমান যে যাতায়াত ব্যবস্থা আছে, তার আধুনিকিকরণ হবে। ফলে সামগ্রিকভাবে নৌ চলাচল ব্যবস্থার উন্নতি হবে।

বন্ধ করুন