বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > লাগামহীন করোনা, বিহারে পঞ্চায়েত নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল বিরোধীদের
করোনা আবহে ভোট (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)
করোনা আবহে ভোট (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)

লাগামহীন করোনা, বিহারে পঞ্চায়েত নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল বিরোধীদের

  • বিহারে অনুষ্ঠিত হতে চলা পঞ্চায়েত নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল করল সেরাজ্যের বিরোধী দলগুলি।

করোনা সংক্রমণ ক্রমেই মাত্রা ছাড়াচ্ছে দেশ জুড়ে। এই আবহে বিহারে অনুষ্ঠিত হতে চলা পঞ্চায়েত নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল করল সেরাজ্যের বিরোধী দলগুলি।

বর্তমানে বিহারে সক্রিয় করোনা রোগীর সংখ্যা ২৯ হাজারের বেশি। এই পরিস্থিতিতে সেই রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর হিমশিম খাচ্ছে সংক্রমণের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে আনতে। করোনা রোধের জন্য রাজ্য সরকারের কাছে পর্যাপ্ত সংস্থান নেই বলেও অভিযোগ উঠছে। এই আবহে এবার কংগ্রেসের তরফে আনন্দ মহাদেব আসন্ন পঞ্চায়েত ভোট পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন। কংগ্রেসে ইস্তাহার কমিটির চেয়ারম্যান আনন্দ। তিনি এই বিষয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন করে বলেন, 'করোনা সংক্রমণের জেরে মানুষ বিপুল সংখ্যায় অসুস্থ হচ্ছেন। শুধু তাই নয়, সংক্রমণের জেরে মৃতের সংখ্যাও উদ্বেগজনক।'

কংগ্রসের সঙ্গে সুর মিলিয়েছে আরজেডিও। আরজডির প্রধান মুখপাত্র তথা বিধায়ক ভাই বীরেন্দ্র এই প্রসঙ্গে বলেন, 'পরিস্থিতি এতটা উদ্বেগজনক হত না যদি সরকার অতীতের ভুলগুলি থেকে শিক্ষা গ্রহণ করত এবং চিকিত্সার সুবিধাগুলি বাড়িয়ে তুলতে সক্ষম হত।'

এদিকে এই নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রাজ্য নির্বাচন কমিশনের দাবি, তারা পরিস্থিতি মোকাবিলা করে নির্বাচন করানোর জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। রাজ্য নির্বাচন কমিশনার দীপক প্রসাদের সঙ্গে অবশ্য এই বিষয়ে যোগাযোগ করা যায়নি।

পঞ্চায়েতি রাজ দপ্তর অনুযায়ী, ছটি পৃথক পদের জন্য ৮ হাজার ৪০০-র বেশি পঞ্চায়েতে নির্বাচন হওয়ার কথা জুন মাসে। এর জন্য রাজ্য জুড়ে ১ লক্ষ ১৪ হাজার বুথ চিহ্নিত করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০২০ সালে করোনা আবহে বিহারে বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই নির্বাচনকে মডেল করেই ২০২১ সালে ৪টি রাজ্য এবং একটি কেন্দ্র সাশিত অঞ্চলে ভোটগ্রহণ করানোর পরিকল্পনা করে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। তবে করোনার দ্বীতিয় ঢেউ এতটাই প্রবল যে বিরোধীরা পঞ্চায়েত নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার পক্ষে সওয়াল করছে। 

 

বন্ধ করুন