বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ‘মন্দির কোনও রাজনৈতিক ইস্যু নয়’, মথুরা নিয়ে বিতর্ক উস্কে দাবি যোগীর ডেপুটির
যোগী আদিত্যনাথ, নরেন্দ্র মোদী এবং কেসব প্রসাদ মৌর্য (ফাই ছবি) (Amlan Paliwal)

‘মন্দির কোনও রাজনৈতিক ইস্যু নয়’, মথুরা নিয়ে বিতর্ক উস্কে দাবি যোগীর ডেপুটির

  • আগামী বছর উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রীর মথুরা নিয়ে করা মন্তব্যে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন অনেকেই। 

উত্তরপ্রদেশের উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্য্য টুইট করে লিখেছিলেন যে মথুরার জন্য ‘প্রস্তুত’ হচ্ছে সরকার। বারবি মসজিদ ধ্বংসের মাসেই এহেন মন্তব্যে উত্তেজনা বৃদ্ধির সম্ভাবনা দেখা দেয়। প্রশ্ন ওঠে, রাম মন্দিরের পর এবার কৃষ্ণ জন্মভূমির নামে রাজনীতি করবে বিজেপি? আগামী বছর উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণাকে কেন্দ্র করে সিঁদুরে মেঘ দেখছেন অনেকেই। 

এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে সংবাদ সংস্থা এএনআইকে যোদী আদিত্যনাথের ডেপুটি বলেন, ‘অযোধ্যায় একটি বিশাল রাম মন্দির তৈরি করা হচ্ছে, বারাণসীতে কাশী বিশ্বনাথ করিডোর প্রকল্পের কাজ চলছে এবং এখন আমরা মথুরার কৃষ্ণ জন্মভূমিতে একটি মন্দির নির্মাণের জন্য অপেক্ষা করছি। বিজেপির জন্য এগুলো নির্বাচনী বিষয় নয়।’

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, পশ্চিম উত্তরপ্রদেশের মথুরায় শ্রী কৃষ্ণের জন্ম হয়েছিল বলে মনে করা হয়। এই আবহে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের বর্ষপূর্তি ৬ ডিসেম্বরে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের ‘প্রকৃত জন্মস্থানে’ কৃষ্ণের মূর্তি স্থাপন করা হবে বলে ‘হুঁশিয়ারি’ দিয়েছিল অখিল ভারত হিন্দু মহাসভা। এই হুঁশিয়ারির পরই মথুরা জেলা প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করে। তবে এই পরিস্থিতিতেও উপমুখ্যমন্ত্রীর উস্কানিমূলক মন্তব্যে অনেকেরই মনে পড়ছে বাবরি ধ্বংসের সময়কালের কথা। সেই সময় বার বার স্লোগান তোলা হত, ইয়ে সিরফ ঝাঁকি হ্যায়, কাশী, মথুরা বাকি হ্যায়। উত্তরপ্রদেশের নির্বাচনের প্রাক্কালে তাই ভগবানের নামে ফের রাজনীতি হবে কি না, তা নিয়ে শঙ্কিত অনেকেই।

বন্ধ করুন