বাংলা নিউজ > ময়দান > ফুটবলের মহারণ > Player working as delivery agent: দিনে আয় ১৫০ টাকা! সংসারের বোঝা বইতে ফুড ডেলিভারি ভারতের হয়ে খেলা পৌলমী অধিকারীর

Player working as delivery agent: দিনে আয় ১৫০ টাকা! সংসারের বোঝা বইতে ফুড ডেলিভারি ভারতের হয়ে খেলা পৌলমী অধিকারীর

পৌলমী অধিকারী। (ছবি সৌজন্যে, ইউটিউব ভিডিয়ো)

Football Player working as food delivery agent: সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে। তাতে দেখা গিয়েছে, একটি ফুড ডেলিভারি সংস্থার জামা পরে এক যুবতী রাস্তা দিয়ে যাচ্ছেন। চোখে মোটা গ্লাসের চশমা। যিনি ভিডিয়ো করেছেন, তাঁর প্রশ্নের প্রেক্ষিতে যুবতী জানান, বেহালার শিবরামপুরের মেয়ে তিনি। নাম পৌলমী অধিকারী। ভারতের অনূর্ধ্ব-১৬ দলের হয়ে খেলেছেন।

আন্তর্জাতিক মঞ্চে ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দেশে-বিদেশে একাধিক প্রতিযোগিতায় খেলেছেন। শংসাপত্র গুছিয়েও রাখা আছে। সেইসব শংসাপত্রকে সাক্ষী রেখে সেই ফুটবলারকেই এখন বেঁচে থাকার জন্য ফুড ডেলিভারি সংস্থার হয়ে বাড়ি-বাড়ি খাবার পৌঁছে দিতে হচ্ছে। তাতে দৈনিক মেরেকেটে ৩০০ টাকা আয় হয়। যা কখনও কখনও ১৫০ টাকায় ঠেকে।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছে। তাতে দেখা গিয়েছে, একটি ফুড ডেলিভারি সংস্থার জামা পরে এক যুবতী রাস্তা দিয়ে যাচ্ছেন। চোখে মোটা গ্লাসের চশমা। যিনি ভিডিয়ো করেছেন, তাঁর প্রশ্নের প্রেক্ষিতে যুবতী জানান, বেহালার শিবরামপুরের মেয়ে তিনি। নাম পৌলমী অধিকারী। ভারতের অনূর্ধ্ব-১৬ দলের হয়ে খেলেছেন। গৃহহীনদের বিশ্বকাপে খেলেছেন। আমেরিকা, জার্মানি, স্কটল্যান্ডে খেলতে গিয়েছেন।

অথচ কেউ তাঁকে মনে রাখেননি। বাড়িতে যত্ন করে সাজানো সার্টিফিকেট, পুরনো দিনের ছবির ভিড়ের মধ্যেই জীবন সংগ্রামে নামতে হয়েছে বলে জানান পৌলমী। তিনি জানান, বিভিন্ন ফুড ডেলিভারি সংস্থার হয়ে কাজ করেন। সংসার চালাতে অন্য কাজও করতে হয় বলে জানিয়েছেন পৌলমী। তিনি জানান, হাতভাঙা পরিশ্রমের পর দিনে মেরেকেটে ৩০০-৪০০ টাকা আয় হয়। কখনও কখনও দিনে ১৫০ টাকার বেশি রোজগার করতে পারেন না।

আরও পড়ুন: রোনাল্ডোর দেশের ঘরোয়া ফুটবলে গড়াপেটা, আর্থিক তছরুপ! তদন্ত শুরু বেনফিকার বিরুদ্ধে

তারইমধ্যে স্নাতক স্তরের পড়াশোনা চালাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন পৌলমী। তিনি জানান, পড়াশোনা করেন। সংসারের বোঝার বেশিরভাগটাই টানেন। তাই তাঁর যে অবস্থা হয়েছে, সেরকম পরিস্থিতির মধ্যে যাতে কাউকে না পড়তে হয়, সেই আর্জি জানিয়েছেন পৌলমী। যিনি রাজ্য সরকারের তরফে কোনও সাহায্য পাননি বলে দাবি করেছেন।

চোখের জল মুছতে-মুছতে ওই ভাইরাল ভিডিয়োয় পৌলমীকে বলতে শোনা যায়, ‘চাওয়া-পাওয়া বলতে এটুকুই আছে যে আমি যদি নাও (সুযোগ পাই), যে কোনও মেয়ে খেললে যেন প্রাপ্য সম্মানটা দেওয়া হোক। সেইসঙ্গে তাঁর পারিবারিক অবস্থা খতিয়ে দেখা উচিত। সে এত ভালো খেলছে। সে সারাদিন কী খায়, তার জুতো আছে কিনা, দেখতে হবে।'

আরও পড়ুন: অধরা থাকল টানা ২ বার বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন,আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় জানালেন লরিস

সোমবার ফেসবুক পোস্টে রাজ্য তৃণমূলের মুখপাত্র তথা তৃণমূলের তথ্যপ্রযুক্তি সেলের প্রধান দেবাংশু ভট্টাচার্য লিখেছিলেন, ‘ভারতের হয়ে ফুটবল খেলা পৌলমী অধিকারী, যিনি আপাতত ফুড ডেলিভারির কাজ করছেন, তার কন্ট্যাক্ট ডিটেলস কেউ দিতে পারবেন?’ পরে ওই পোস্টেই দেবাংশু বলেন, ‘পেয়ে গিয়েছি। কথা হয়েছে। ধন্যবাদ সবাইকে।’

বন্ধ করুন