বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > জুটিতে লুটি, পার্টনারশিপে সকলকে ছাপিয়ে নয়া নজির গড়ল বাবর আজম-রিজওয়ান জুটি

জুটিতে লুটি, পার্টনারশিপে সকলকে ছাপিয়ে নয়া নজির গড়ল বাবর আজম-রিজওয়ান জুটি

এই জুটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি রান করে ফেলেছেন। ছবি: এএনআই

২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে গিলক্রিস্ট এবং হেডেন জুটি মোট ৩৩৫ রান করেছিল। সেটাই ছিল এত দিন কোনও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পার্টনারশিপে মোট সর্বোচ্চ রান। সেটাই চলতি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভ পর্বে ভেঙে দিল বাবর আর রিজওয়ান জুটি।

চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তানের সাফল্যের অন্যতম কারণ বাবর আজম এবং মহম্মদ রিজওয়ান। তাঁদের দুরন্ত পার্টিনারশিপই কিন্তু এই বিশ্বকাপে পাকিস্তানের জয়ের ভিত মজবুত করে দিচ্ছে। যে কারণে চলতি বিশ্বকাপের একমাত্র দল হিসেবে সুপার-টুয়েলভের পাঁচটি ম্যাচেই জয় পেল পাকিস্তান। সেই সঙ্গে এক বিশ্বকাপে বাবর-রিজওয়ান জুটি সবচেয়ে বেশি রান করে ফেলল।

রবিবার স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে যদিও এই জুটি সফল হয়নি। কারণ দলের ৩৫ রানের মাথায় আউট হয়ে যান রিজওয়ান। স্বাভাবিক ভাবেই পাক ওপেনিং জুটি এ দিন মাত্র ৩৫ রানের পার্টনারশিপ গড়ে। তবে এই ৩৫ রানের হাত ধরেই এই বিশ্বকাপে পার্টনারশিপে মোট ৩৪০ রান করে ফেলল তারা। এটাই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জুটিতে সর্বোচ্চ রান। এ দিন এই জুটি ছাপিয়ে গেল অ্যাডম গিলক্রিস্ট এবং ম্যাথু হেডেনকে।

২০০৭ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে গিলক্রিস্ট এবং হেডেন জুটি মোট ৩৩৫ রান করেছিল। সেটাই ছিল এত দিন কোনও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পার্টনারশিপে মোট সর্বোচ্চ রান। সেটাই চলতি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভ পর্বে ভেঙে দিল বাবর আর রিজওয়ান জুটি। এখনও তো নক আউটের খেলা বাকি রয়েছে। এই তালিকায় তিনে রয়েছেন শ্রীলঙ্কার তিলকরত্নে দিলশন এবং সনৎ জয়সূর্য। এই জুটি ২০০৯ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মোট ৩০০ রান করেছিল।

এ দিন স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে রিজওয়ান ১৯ বলে ২৫ করে আউট হয়ে গেলেও, বাবর আজম ৪৭ বলে ৬৬ রান করেন। সেই সঙ্গে ১৮ বলে ৫৪ রান করেন শোয়েব মালিক। পাকিস্তান প্রথমে ব্যাট করে ৪ উইকেটে ১৮৯ রান করে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১১৭ রান করে স্কটল্যান্ড। ৭২ রানে ম্যাচ জিতে যায় পাকিস্তান।

বন্ধ করুন