বাংলা নিউজ > ময়দান > আইপিএল-2022 > ৪,৬,৬,২,W,W-আশা থেকে স্বপ্নভঙ্গ, রিঙ্কু-স্টোইনিস-উমেশের শেষ ওভার যেন জীবনের প্রতিচ্ছবি
রিঙ্কু সিং, মার্কাস স্টোইনিস ও উমেশ যাদব

৪,৬,৬,২,W,W-আশা থেকে স্বপ্নভঙ্গ, রিঙ্কু-স্টোইনিস-উমেশের শেষ ওভার যেন জীবনের প্রতিচ্ছবি

এ দিনের ম্যাচের শেষ ওভারে কলকাতা নাইট রাইডার্সের দরকার ছিল ২১ রান। এই সময় বল ছিল মার্কাস স্টোইনিসের হাতে। স্ট্রাইকে ব্যাট করছিলেন রিঙ্কু সিং। স্টোইনিসের প্রথম বলেই চার হাঁকান রিঙ্কু। এর পরের দুই বলে দুটি ব্যাক টু ব্যাক ছক্কা মারেন নাইট তারকা। কিছুক্ষণের জন্য থমকে গিয়েছিলেন লখনউয়ের ভক্তরা।

আইপিএল-এর ১৫তম মরশুমের ৬৬তম ম্যাচে, কলকাতা নাইট রাইডার্স বনাম লখনউ সুপার জায়ান্টসের মধ্যে একটি রোমাঞ্চকর ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। এই ম্যাচে কেএল রাহুলদের দল ২ রানে জয় পায়। এ দিনের জয়ের ফলে তারা প্লে অফে পৌঁছে যায়। অন্যদিকে, কেকেআর দলের খেলোয়াড় রিঙ্কু সিং যেভাবে শেষ ওভারে খেলার মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন তাতে তিনি সকলের মন জয় করেন।

এ দিনের ম্যাচের শেষ ওভারে কলকাতা নাইট রাইডার্সের দরকার ছিল ২১ রান। এই সময় বল ছিল মার্কাস স্টোইনিসের হাতে। স্ট্রাইকে ব্যাট করছিলেন রিঙ্কু সিং। মার্কাস স্টোইনিসের প্রথম বলেই চার হাঁকান রিঙ্কু। এর পরের দুই বলে দুটি ব্যাক টু ব্যাক ছক্কা মারেন নাইট তারকা। রিঙ্কুর এই ঝড়ো ব্যাটিং দেখে কিছুক্ষণের জন্য থমকে গিয়েছিলেন লখনউয়ের ভক্তরা। প্রথম তিন বলে ১৬ রান সংগ্রহ করার পর শেষ ৩ বলে কলকাতার দরকার ছিল ৫ রান। চতুর্থ বলে রিঙ্কু সিং ছুটে যান দুই রানে। এখন KKR-এর ২ বলে ৩ রান প্রয়োজন ছিল। মনে হচ্ছে KKRএই মরশুমের সবচেয়ে বড় রান তাড়া করতে সফল হবে। কিন্তু ভাগ্যের লেখা হয়তো অন্য কিছু ছিল।

পঞ্চম বলেরিঙ্কু সিং এক্সট্রা কভারের উপর থেকে মারতে চেয়েছিলেন, কিন্তু তিনি বলটি হাওয়ায় মেরে বসেন। ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টের দিকে অবস্থানরত লুইস দ্রুত বলের দিকে দৌড়ে উল্টো হাত দিয়ে ক্যাচ ধরেন। লুইসের এই ক্যাচ দেখে সবাই অবাক হয়ে যায় এবং সেটাই হয়ে যায় ম্যাচের টার্নিং পয়েন্ট। লুইসের এই শক্তিশালী ক্যাচের পর শেষ বলে তিন রান দরকার ছিল কলকাতা নাইট রাইডার্সের। একটি চার মারলেই কেকেআর ম্যাচটি জিতে যেত। যেখানে দুটি রান নিলে আইপিএল ২০২২-এর প্রথম সুপার ওভার খেলা হত। কিন্তু স্টোইনিস শেষ বলে উমেশ যাদবকে ইয়র্কারে বোল্ড করে লখনউ সুপার জায়ান্টসকে জয়ী করেন।

বন্ধ করুন