বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > অলিম্পিক্স পদক একধাপ দূরে জানতেন, 'টুইটার দেখে জানলাম হেরে গিয়েছি', ক্ষুব্ধ মেরি
মেরি কম। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
মেরি কম। (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

অলিম্পিক্স পদক একধাপ দূরে জানতেন, 'টুইটার দেখে জানলাম হেরে গিয়েছি', ক্ষুব্ধ মেরি

  • আর একধাপ দূরেই অলিম্পিক্স পদক - সেই আনন্দেই ডোপ টেস্টের জন্য যাচ্ছিলেন।

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে একটুর জন্য হেরে গিয়েছেন। অথচ তা জানতেনই না ভারতীয় তারকা মেরি কম। বরং আর একধাপ দূরেই অলিম্পিক্স পদক - সেই আনন্দেই ডোপ টেস্টের জন্য যাচ্ছিলেন। সেই সময় টুইটার থেকে জানতে পারেন যে অলিম্পিক্স থেকে ছিটকে গিয়েছেন। এমনই জানালেন ভারতীয় বক্সার।

(টোকিয়ো অলিম্পিক্স ২০২০-এর যাবতীয় খবর, আপডেটের জন্য চোখ রাখুন -- এখানে)

মেয়েদের ফ্লাইওয়েট (৪৮-৫১ কেজি) বিভাগের দ্বিতীয় ম্যাচে রিও অলিম্পিক্সের ব্রোঞ্জজয়ী বক্সার কলম্বিয়ার ইংগ্রিট ভ্যালেন্সিয়ার কাছে হেরে যান মেরি। যিনি বিচারকদের সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর হাসছিলেন। হাতও তুলতে দেখা যায় তাঁকে। পরে ইন্ডিয়া টুডে'কে তিনি বলেন, ‘ম্যাচের পর আমি যখন ডোপিং কেন্দ্রে নমুনা দিতে ঢুকেছি, তখনও আমি বিশ্বাস করতে পারিনি যে আমি হেরে গিয়েছি। আমার কোচ বলার চেষ্টা করেছিলেন যে আমি জিতে গিয়েছি। কিন্তু সেটার অর্থ কী, তা আমি বুঝে উঠতে পারিনি।’

বৃহস্পতিবার স্প্লিট ডিসিশনে ২-৩ ব্যবধানে হেরে যান মেরি। যদিও ৩৮ বছরের ভারতীয় বক্সারের দাবি, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কিরেণ রিজিজুর টুইট দেখেই জানতে পারেন যে তিনি হেরে গিয়েছেন। ওই সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেন, ‘আমি ভেবেছিলাম, আমি জিতে গিয়েছি। তারপর আমার হারের বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কিরেণ রিজিজুর টুইট দেখি। আমি হতবাক হয়ে যাই। ভেঙে পড়ি। আমি জানি না যে কী বলব। আমি বিশ্বাস করতে পারছি না যে এরকম সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’ সঙ্গে তিনি যোগ করেন, ‘আমি প্রতিবাদও করতে পারিনি। কারণ আমাদের বলা হয়েছে যে আমরা টোকিও অলিম্পিক্সে তা করতে পারব না। অতীতে অন্য প্রতিযোগিতায় আমার সঙ্গে এরকম ঘটনা ঘটেছে। শেষ বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপেও আমার সঙ্গে এরকম ঘটনা ঘটেছিল।’

বন্ধ করুন