বাংলা নিউজ > ময়দান > ভবিষ্যতের অধিনায়ক হিসেবে এখন থেকেই কাউকে তৈরি করা উচিত, দাবি দিলীপ বেঙ্গসরকারের
রোহিত শর্মা এবং বিরাট কোহলি।

ভবিষ্যতের অধিনায়ক হিসেবে এখন থেকেই কাউকে তৈরি করা উচিত, দাবি দিলীপ বেঙ্গসরকারের

  • রোহিত শর্মার বয়স এখন ৩৪। দীর্ঘদিন তিনি ক্রিকেট খেলতে পারবেন না। বিরাট কোহলিরও ৩৩ বছর হয়ে গেল। যে কারণে, বেঙ্গসরকার দাবি করেছেন, এখন থেকেই ভবিষ্যতের জন্য অধিনায়ক তৈরি করা উচিত ভারতের।

রোহিত শর্মাকে ভারতের ওডিআই এবং টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়কের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই নানা বিতর্ক চলছে। বিসিসিআই-এর এই সিদ্ধান্ত নিয়ে চলছে বিতর্কও। একপক্ষ এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে। অন্যপক্ষ আবার এর তীব্র সমালোচনা করছে। তবে বিসিসিআই একেবারে সঠিক পদক্ষেপ নিয়েছে বলে দাবি করেছেন ভারতের প্রাক্তন অধিনায়ক দিলীপ বেঙ্গসরকার।

বিরাট কোহলি অবশ্য স্বেচ্ছায় ওডিআই-এর নেতৃত্ব ছাড়তে রাজি হননি। ২০২৩ বিশ্বকাপ পর্যন্ত তিনি ওডিআই-এ নেতৃত্ব দিতে চেয়েছিলেন। তবে তাঁকে জোর করেই নেতৃত্ব থেকে সরানো হয়। তবে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে নিজের একটি কলামে বেঙ্গসরকার লিখেছেন, ‘রোহিত শর্মাকে ওডিআই এবং টি-টোয়েন্টিতে ভারতের সাদা বলের অধিনায়ক করার ক্ষেত্রে বিসিসিআই সঠিক পদক্ষেপ নিয়েছে। রোহিত বেশ কিছুদিন ধরে ভালো করছে এবং ওকে অধিনায়ক করাটা আমি মনে করি, একটি ভাল পদক্ষেপ।’

এর সঙ্গে তিনি যোগ করেছেন, ‘বিরাট কোহলি এ বার টেস্ট ক্রিকেটে মনোনিবেশ করতে পারবে এবং রোহিত সাদা বলের ক্রিকেটে মন দিতে পারবে। সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে এখনও পর্যন্ত ও একজন নেতা হিসাবে অসাধারণ ভালো করেছে। ওর নেতৃত্বে আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের অনেকগুলো খেতাব জিতেছে এবং ভারতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে যেক'টি ম্যাচ ও পেয়েছে, তাতেও ভালো ফল করেছে।’

ভারতীয় দলে দুই অধিনায়ক রাখার নীতি নিয়ে বেঙ্গসরকারের দাবি, ‘আমরা যেমন ইংল্যান্ডে দেখছি, জো রুট এবং ইয়ন মর্গ্যান দু'জনেই টেস্ট ও সাদা বলের অধিনায়ক হিসেবে ভালো করছে। ভারতের ক্ষেত্রেও অধিনায়ক হিসেবে বিরাট এবং রোহিত উভয়েরই সুবিধে হবে। কারও জন্যই অতিরিক্ত বোঝা হবে না। এতে ওদের উপর থেকে চাপ কমে যাবে।’

তবে রোহিত শর্মার বয়স এখন ৩৪। দীর্ঘদিন তিনি ক্রিকেট খেলতে পারবেন না। বিরাট কোহলিরও ৩৩ বছর হয়ে গেল। যে কারণে, বেঙ্গসরকার দাবি করেছেন, এখন থেকেই ভবিষ্যতের জন্য অধিনায়ক তৈরি করা উচিত ভারতের। তাঁর মতে. ‘এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, জাতীয় নির্বাচক কমিটিকে এমন একজনকে তৈরি করতে হবে, যে ভবিষ্যতে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব নেবে। এটা শুধু অধিনায়কত্বের ক্ষেত্রেই নয়, খেলোয়াড়দের জন্যও প্রযোজ্য। ব্যাক-আপ খেলোয়াড়দের তৈরি করাটা গুরুত্বপূর্ণ কারণ অনেকেই কিছু দিন পরেই অবসর নেওয়ার জায়গায় পৌঁছে যাবে।’

বন্ধ করুন