কেরালার একটি মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে চলছে পরীক্ষা (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
কেরালার একটি মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে চলছে পরীক্ষা (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

COVID-19 Updates: রাজ্যে করোনা টেস্টের কিটে সমস্যা আছে, স্বীকার NICED-এর

নাইসেডের তরফে জানানো হয়েছে, বিষয়টি খতিয়ে দেখছে আইসিএমআর।

নমুনা পরীক্ষার ত্রুটিপূর্ণ কিট নিয়ে রাজ্যের অভিযোগ স্বীকার করে নিল বেলেঘাটা নাইসেড। অধিকর্তা শান্তা দত্ত জানান, টেস্টিং কিটে কিছু সমস্যা আছে।

আরও পড়ুন :করোনার জেরে আমেরিকায় শূন্য ডলারের নিচে বিক্রি হল অপরিশোধিত তেল!

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে নাইসেড অধিকর্তা বলেন, 'বিষয়টি নোট করেছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চও (আইসিএমআর)। এটা দুর্ভাগ্যজনক যে, একদম ঠিক ফলাফল দেওয়ার জন্য কিটগুলিকে স্ট্যান্ডার্ডাইজ করেনি উৎপাদনকারী সংস্থা। প্রতিটি মেডিক্যাল কলেজের পক্ষে কিটের স্ট্যান্ডার্ডাইজ করা কঠিন। তাই সেগুলিতে ভিন্ন ও মীমাংসাহীন ফল দেখাচ্ছে। বিষয়টি দেখছে আইসিএমআর।'

আরও পড়ুন : করোনা সংকটে প্রোমোশন ও বেতন বৃদ্ধি স্থগিত রাখলেও কর্মী ছাঁটাই করছে না ইনফোসিস

তিনি আরও জানান, ত্রুটিপূর্ণ কিট সরবরাহ না করার নির্দেশ পাঠিয়েছে আইসিএমআর। পরিবর্তে এনআইভি কিট দিতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন : দেশজুড়ে সংক্রমণের মাঝে করোনামুক্ত এই দুই রাজ্য

এদিকে, সোমবার আইসিএমআরের মহামারীবিদ্যা ও সংক্রামক রোগের প্রধান রমন আর গঙ্গাখেদকর দাবি করেন, বিজিআই (যে কিট নিয়ে অভিযোগ তুলেছে রাজ্য) কিটের মান ভালো। তিনি বলেন, 'এক্ষেত্রে আমাদের দু'তিনটি জিনিস খেয়াল রাখতে হবে। এই বিজিআই কিটগুলি আমেরিকা এফডির ছাড়পত্র পেয়েছে। মান বেশ ভালোই।'

আরও পড়ুন :ওড়িশায় বাড়ছে পশ্চিমবঙ্গ থেকে ফেরা করোনা রোগীর সংখ্যা, বর্ডার সিল করছে রাজ্য

তবে সেই কিটে তাপমাত্রাজনিত কিছু সমস্যা আছে বলে জানান আইসিএমআরের বিজ্ঞানী। তিনি বলেন, 'এখানে শুধু একটাই সমস্যা আছে। এই কিট যখন রাখতে হবে, তখন ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে রাখতে হবে। ২০ ডিগ্রির উপর গেলে টেস্টের ফলাফল ঠিকঠাক আসবে না।'

আরও পড়ুন :Lockdown 2.0: করোনা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয়ে নিশ্চিত হলে উড়ান বিধিনিষেধ উঠবে : কেন্দ্র

তারপরই ঘুরিয়ে রাজ্যের দিকেই আঙুল তোলেন তিনি। বলেন, 'কয়েকজনের (নমুনা) পুনরায় পরীক্ষা করতে হচ্ছে বলে অভিযোগ এসেছে। কারণ কন্ট্রোলে যেগুলি থাকে সেগুলি লাইট আপ হয়নি। যখন টেকনিশিয়ান কাজ করেন ও বেশি নমুনা না থাকে, তাহলে ওটার স্ট্রিপ বাইরে বের করে আরও একবার রান করান, দ্বিতীয় নমুনা পরীক্ষা করার জন্য। সেরকম যখন করবেন, তখন ঘরের তাপমাত্রায় রেখে পরীক্ষার চেষ্টা করেছিলেন কিনা, সেটা দেখতে হবে।'

বন্ধ করুন