বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বিজেপি কর্মীর মাকে মারধরের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে
নিমতায় আক্রান্ত বৃদ্ধা। (‌ফাইল ছবি)‌ সৌজন্য–এএনআই।
নিমতায় আক্রান্ত বৃদ্ধা। (‌ফাইল ছবি)‌ সৌজন্য–এএনআই।

বিজেপি কর্মীর মাকে মারধরের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে

  • ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার নিমতা এলাকায়।

বিজেপি কর্মীর অশীতিপর বৃদ্ধা মাকে মারধরের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব। শনিবার ভোরে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার নিমতা এলাকায়। বিজেপির অভিযোগ, তাদের কর্মী গোপাল মজুমদারের ৮২ বছর বয়সের বৃদ্ধা মাকে বেধড়ক পিটিয়েছে তৃণমূল কর্মীরা। ওই বৃদ্ধা নিজের ছেলের সঙ্গে থাকেন। তার ছেলে বিজেপির সক্রিয় কর্মী। বিজেপি ওই বৃদ্ধার কিছু ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে।

সেখানে দেখা যায়, ওই বৃদ্ধা বলছেন কয়েকজন দুষ্কৃতী বাড়িতে ঢুকে তাঁকে ও তাঁর ছেলেকে মারধর করে। তবে তিনি এও বলেন, যারা মেরেছে তাঁদের চিনতে পারেননি তিনি। তারা যাওয়ার আগে এই ঘটনার কথা কাউকে না বলার হুমকি দিয়ে যায়। বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পল আক্রান্ত ওই বৃদ্ধার সঙ্গে দেখা করেন। তিনি অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানান। তিনি বলেন, ‘‌মুখ্যমন্ত্রী নিজেকে বাংলার মেয়ে বলে পরিচয় দিলেও মায়ের জন্য কোনও সম্মান নেই।

’‌ তৃণমূল নেতৃত্ব এই ঘটনাকে ভুয়ো আখ্যা দেয়। তাদের দাবি, নির্বাচনের আগে বাজার গরম করতে ভুয়ো খবর ছড়াচ্ছে বিজেপি। পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত বক্সি বলেন, ‘‌ভোটের আগে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে চাইছে বিজেপি। তৃণমূলের কোনও কর্মী ওই বৃদ্ধাকে মারার সঙ্গে যুক্ত নয়।’‌

এই ঘটনা প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় টুইট করে বলেন, ‘‌পারিবারিক বিবাদের জেরে ওই বৃদ্ধার এই অবস্থা হয়েছে। তিনি একটি ভিডিও পোস্ট করেন সেখানে ওই বৃদ্ধার নাতি গোবিন্দ মজুমদার দাবি করেছেন যে, তাঁর দিদার ওপর কোনও আক্রমণ হয়নি। আমার দিদা গত তিন বছর ধরে শয্যাশায়ী। কীভাবে এই ঘটনার সঙ্গে রাজনীতি জড়াল জানি না। তবে এই ঘটনার মধ্যে কোনও সত্যতা নেই।’‌ উল্লেখ্য,

গত শনিবার ভোররাতে উত্তর দমদম পুরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নিমতা পাটনা স্কুল রোডের ঘটনা। বিজেপি কর্মীর অভিযোগ, তিনজন তৃণমূল কর্মী তাঁদের বাড়িতে জোর করে ঢুকে পড়ে। তাঁকে বন্দুকের বাঁট দিয়ে মারধর করা হয়। এই সময়ই গোপালবাবুর মা অভিযুক্তদের বাধা দিতে এলে অশীতিপর বৃদ্ধা মাকেও বেধড়ক মারধর করে শাসকদলের ওই কর্মীরা। নাক–মুখ ফুলে লাল হয়ে যায় তাঁর।

অসুস্থ বৃদ্ধা শুভা মজুমদার জানান, ‘‌তৃণমূলের লোকজন আমার ছেলেকে মারধর করেছে। আমাকে ঘাড়ধাক্কা দিয়েছে। আমাকে খুব মেরেছে ওরা। এই অবস্থা দেখেও ওরা আমায় ছাড়েনি।’‌ রাতেই বিজেপি কর্মী ও শুভাদেবীকে হাসপাতালে নিয়ে যায় নিমতা থানার পুলিশ। প্রাথমিক চিকিৎসার পর তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। ইতিমধ্যেই এই ঘটনার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন গোপালবাবু। আচমকা মারধরে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বৃদ্ধা। যাঁরা এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।

তৃণমূলের দিকে অভিযোগের আঙুল তোলা হলে মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সাফ জানিয়ে দেন, ঘৃণার রাজনীতির খেলায় মেতেছে বিজেপি। নিমতার বৃদ্ধা পারিবারিক হিংসার শিকার। তাঁর কষ্টকে রাজনৈতিক কারণে ব্যবহার করে বিজেপি বুঝিয়ে দিল এরা কারও কথা ভাবে না।

বন্ধ করুন