বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ভাইরাল হওয়া সেক্স টেপ নিয়ে মুখ খুললেন প্যারিস হিলটন, ‘ভেবেছিলাম জীবন শেষ হয়ে গিয়েছে’!
প্যারিস হিলটন
প্যারিস হিলটন

ভাইরাল হওয়া সেক্স টেপ নিয়ে মুখ খুললেন প্যারিস হিলটন, ‘ভেবেছিলাম জীবন শেষ হয়ে গিয়েছে’!

হিলটনের রিয়েলিটি টিভি শো ‘দ্য সিম্পল লাইফ’-এর দ্বিতীয় সিজনের সময়তেই মুক্তি পায় এই সেক্স টেপ।

২০০৪ সালে ভাইরাল হয়েছিল আমেরিকান অভিনেত্রী, গায়ক এবং মডেল প্যারিস হিলটনের সেক্স টেপ। সম্প্রতি এই নিয়ে এক সাক্ষাৎকারে কথা বলতে শোনা গেল তাঁকে।হিলটনের দাবি, তাঁর প্রাক্তন প্রেমিক রিক সালোমন তাঁদের ব্যক্তিগত মুহুর্তের একটি ভিডিও তৈরি করেছিলেন এবং সেটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন। সেই ঘটনার কথা বলতে গেলে এখনও ভয় পেয়ে যান, হাত-পা কাঁপে, চোখে জল আসে বলেই জানান প্যারিস হিলটন।

রিক সলোমন সেই টেপটি অ্যাডাল্ট এন্টারটেনমেন্ট ডিসট্রিবিটর রেড লাইট ডিস্ট্রক্টকে বিক্রি করে দেয়। যার নাম দেওয়া হয়েছিল ‘ওয়ান নাইট ইন প্যারিস’। হিলটনের রিয়েলিটি টিভি শো ‘দ্য সিম্পল লাইফ’-এর দ্বিতীয় সিজনের সময়তেই মুক্তি পায় এই সেক্স টেপ। তাই অনেকেই মনে করেছিলেন এর পিছনে হিলটনের নিজস্ব হাত রয়েছে। যদিও সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, টেপটি তাঁর অনুমতি ছাড়াই সোশ্যাল মিডিয়ায় ফাঁস হয়েছিল। যা দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছিলেন।

প্যারিস সাম্প্রতি সাক্ষাত্কারে বলেছন, 'পুরো ঘটনাটা আমার কাছে অত্যন্ত অপমানজনক ছিল। আমার এখনও সেই দিনটার কথা মনে আছে, যা ভাবলেও গায়ে কাঁটা দেয়। একেকজন একেকভাবে এটার ব্যাখ্যা করেছিল। আমি সবার বিশ্বাস হারিয়ে ফেলেছি। তখন দিনরাত কাঁদতাম। এমনকী বাড়ি বের হতে পারতাম না। আমার মনে হয়েছিল, আমার জীবন শেষ হয়ে গিয়েছে।'

প্যারিস আরও বলেন, ‘এটি খুব ব্যক্তিগত একটা ব্যাপার। যখন দুটো মানুষ একে-অপরকে ভালোবাসে তখন খুব স্বাভাবিকও। কিন্তু, কীভাবে তা কেউ জনসাধারণ সামনে নিয়ে আসতে পারে!’ প্যারিস তাঁর প্রাক্তন প্রেমিকের বিরুদ্ধে সে সময় মানহানির মামলা করেন। তাঁকে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এরপরে দু’জনের সহমতে ২০০৫ সালে মামলাটি বন্ধ হয়ে যায়।

বন্ধ করুন