বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > শিকলবন্দি বেজি কীভাবে পৌঁছল শ্রাবন্তীর কাছে, ধীরে ধীরে খুলছে রহস্যের জট, জানুন…
শ্রাবন্তী।

শিকলবন্দি বেজি কীভাবে পৌঁছল শ্রাবন্তীর কাছে, ধীরে ধীরে খুলছে রহস্যের জট, জানুন…

  • সোমবার ও মঙ্গলবার জেরার পরেও স্বস্তি নেই শ্রাবন্তীর, আবার ডাকা হতে পারে নায়িকাকে।

শ্রাবন্তীর হাতে থাকা বেজিটি এল কোথা থেকে এখন এটাই একটা বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে বন দফতরের কাছে। আর যতদিন না গোটা ব্যাপারটা সামনে আসছে নায়িকাকে প্রশ্নবানে বিদ্ধ হতেই হবে বলে খবর। সোমবারের পর মঙ্গলবারও দীর্ঘসময় জেরা করা হয় তাঁকে ওয়াইল্ড লাইফ ক্রাইম কন্ট্রোলের দফতরে। 

যতদূর জানা যাচ্ছে, শ্রাবন্তী ওয়াইল্ড লাইফ ক্রাইম কন্ট্রোল সেলের কর্তাদের নিশ্চিত করেছেন তিনি কোনও বেজি বাড়িতে লুকিয়ে রাখেননি বা পুষছেন না। বরং শ্যুটিংয়ের সময়তেই এই ছোট্ট প্রাণীটি তাঁর হাতে আসে। আর তাঁর এত ভালো লাগে যে সেটাকে নিয়ে ছবি তুলেছেন। সম্ভবত শ্রাবন্তীর কোনও গাড়ির চালক সেটিকে নিয়ে আসেন বলে খবর। 

তবে, এখানেই শেষ হচ্ছে না জেরা। শ্রাবন্তী ধরে না রাখলেও ওই বেজির গলায় শিকল কে পরিয়েছিল, কীভাবে সেটি তাঁর হাতে এসে পৌঁছয় এসব নিয়ে যতক্ষণ না সদুত্তর মিলছে ততক্ষণ স্বস্তি নেই তাঁর। জেরার জন্য হাজিরাও দিতে হতে পারে। তবে এর জন্য কোনও শাস্তি তাঁকে দেওয়া হবে কি না, তা নিয়ে এখনই মুখ খুলতে চায়নি সমশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। 

গত ১৫ জানুয়ারি নিজের ইনস্টাগ্রামে একটি বেজির সাথে ছবি শেয়ার করে নেন তিনি। পশুটির গলায় পরানো ছিল একটা বকলেস, তার সাথে বাঁধা ছিল একটি চেন। আর তারপর থেকেই ওঠে নিন্দার ঝড়। এরকম একটা অমানবিক কাজ তিনি কীভাবে করলেন প্রশ্ন তুলতে থাকে নেটপাড়া। ওয়াইল্ড লাইফ ক্রাইম কন্ট্রোল সেলের পক্ষ থেকে তাঁর কাছে সমন গিয়েছিল ১৫ ফেব্রুয়ারি। তবে সেই সময় শ্যুটে ব্যস্ত থাকায় নায়িকা কিছুটা সময় চেয়ে নেন।

বন্ধ করুন