বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Bangladesh Power crisis- লোডশেডিং কি বিদ্যুৎ পরিস্থিতি সামাল দিতে পারবে?
বাংলাদেশে চলছে লোডশেডিং (Getty Images )

Bangladesh Power crisis- লোডশেডিং কি বিদ্যুৎ পরিস্থিতি সামাল দিতে পারবে?

Bangladesh reeling under power cuts- বিদ্যুতের লোডশেডিং-এর জন্য এলাকা ভিত্তিক শিডিউল তৈরি করা হয়েছে৷ কোন এলাকায় কখন এক ঘন্টা করে বিদ্যুৎ থাকবে না ম্যাপে তা উল্লেখ করে দেয়া হয়েছে৷ ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে এখন পর্যন্ত লোডশেডিং-এর শিডিউল মানা হলেও গ্রামাঞ্চলে মানা হচ্ছে না৷ গ্রামে আগে থেকেই লোডশেডিং বেশি৷ এখন আরো বেড়ে গেছে৷ কোনো কোনো এলাকায় চার-পাঁচ ঘন্টাও হচ্ছে৷ বিশেষ করে রংপুর এলাকায় শহর গ্রাম কোথাও লোডশেডিং-এর শিডিউল মানা হচ্ছে না বলে খবর পাওয়া গেছে।

বাংলাদেশে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি মোকাবেলায় রেশনিং শুরু করেছে সরকার৷ চাহিদার চেয়ে দেড় হাজার মেগাওয়াট কম বিদ্যুৎ নিয়ে এলাকাভিত্তিক এক ঘন্টার লোডশেডিং দিয়ে এটা শুরু হয়েছে৷ কিন্তু তাতে কি পরিস্থিতি সামাল দেয়া যাবে?

বিশ্লেষকেরা বলছেন, এতে হয়তো সাময়িক উপশম হবে৷ কিন্তু পরিস্থিতি সামাল দিতে হলে কম খরচে বিদ্যুৎ উৎপাদনের দিকে যেতে হবে৷ আর সেটা সম্ভব গ্যাস ও কয়লা দিয়ে৷ তবে এই খাতে লুটপাট বন্ধ না হলে কিছুতেই কিছু হবে না।

সরকার বিদ্যুতের রেশনিং-এর সাথে সাথে ডিজেল ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোও বন্ধ করে দিয়েছে ৷ তাতে আরো এক হাজার ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন কম হবে৷ সব মিলিয়ে দেশে পিক আওয়ারে বিদ্যুতের চাহিদা আছে ১৪ হাজার ৫০০ মেগাওয়াট৷ পাওয়া যাচ্ছে ১৩ হাজার মেগাওয়াট৷ ঘাটতি আছে এক হাজার ৫০০ মেগাওয়াট৷ এই ঘাটতি মেকাবেলা করতেই এখন এলাকা ভিত্তিক প্রতিদিন গড়ে এক ঘন্টা করে লোডশেডিং করা হচ্ছে৷ এতে প্রায় এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কম লাগবে বলে সরকার বলছে।

তবে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. শামসুল আলম মনে করেন,'বিদ্যুৎ উৎপাদনের হিসেবে ফাঁকি আছে৷ পিক আওয়ারে যদি শপিংমলসহ দোকান পাট বন্ধ রাখা হয় তাহলে খুব সামান্যই লোডশেডিং হওয়ার কথা, এক ঘণ্টা নয়৷ বাস্তবে গ্রামে আগে থেকেই লোডশেডিং আছে৷ এখন এক ঘন্টা নয় আরো বেড়েছে।'

সরকার বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার জন্য আজ ( মঙ্গলবার) থেকে রাত আটটার পর শপিংমল, দোকানপাট বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে৷ অফিস সময়ও পরিবর্তন হতে পারে৷ সব দাপ্তরিক মিটিং ভার্চুয়ালি করার জন্য বলেছে৷ নামাজ ও প্রার্থনার সময় ছাড়া মসজিদ ও উপসনালয়ে এসি বন্ধ রাখতে বলেছে৷  আর জ্বালানি তেলের ওপর চাপ কমাতে সপ্তাহে একদিন পেট্রোল পাম্প বন্ধ রাখার পরিকল্পনা করছে৷

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ খান বলেছেন, পরিস্থিতি দেখে এক সপ্তাহ পর লোডশেডিং দিনে দুই ঘন্টা করা হতে পারে।

সরকারের পরিকল্পনায় খরচ কমানোর বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছে৷ কারণ এলএনজি ও জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে৷ বাংলাদেশে এখন দিনে উৎপাদন হয় ২৩০ কোটি ঘনফুট গ্যাস৷ আর ৮৫ কোটি ঘনফুট এলএনজি আমদানি করা হয়৷ যা দিয়ে মোট চাহিদা মেটে না৷ আর জ্বালানি তেলের দাম ব্যারেল ১০০ ডলারে নেমে এলেও বিপিসি লোকসানে আছে৷  ৮৫ ডলার হলে বিপিসির লোকসান হয় না।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সদস্য মকবুল ই ইলাহী বলেন,'লোডশেডিং করে সাময়িকভাবে পরিস্থিতি সামলানো যাবে৷ কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে এটা সমাধান নয়৷ আর সাশ্রয়ী মানে হলো বিদ্যুতের অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার কমানো৷ এখন আমাদানি ব্যয় বেড়ে গেছে৷ টাকার তুলনায় ডলারের দাম বেড়ে গেছে৷ তাই এটা করা ছাড়া সরকারের উপায় নেই৷ কিন্তু আমাদের যে গ্যাস আছে তা আসলে এখনো আমরা সঠিকভাবে পরিমাপ করতে পারিনি৷ গ্যাসের উৎপাদন বাড়িয়ে গ্যাসভিত্তিক উৎপাদন না বাড়ালে হবে না৷ কয়লাভিত্তিক উৎপাদনে যেতে হবে৷ এছাড়া সমাধানের কোনো উপায় নেই'।

সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান হবে বলে সরকার যে বলছে সে ব্যাপারে তিনি বলেন,'ওই সময় থেকে ডিসেম্বর জানুয়ারি পর্যন্ত বিদ্যুতের চাহিদা কম থাকে৷ সবচেয়ে বড় কৃষিখাতে বিদ্যুতের চাহিদা থাকে না৷ আর আবহাওয়ার কারণে ঘরে, অফিসে কম বিদ্যুৎ লাগে৷ সরকার আশা করছে ওই সময়ের মধ্যে পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদনে যাবে, রামপালের একটি প্ল্যান্টও উৎপাদনে যাবে৷ এগুলো কয়লাভিত্তিক বলে উৎপাদন খরচ অনেক কম৷ কিন্তু সেটা তো এখনো পরিকল্পনার মধ্যেই আছে।'

বিদ্যুতের লোডশেডিং-এর জন্য এলাকা ভিত্তিক শিডিউল তৈরি করা হয়েছে৷ কোন এলাকায় কখন এক ঘন্টা করে বিদ্যুৎ থাকবে না ম্যাপে তা উল্লেখ করে দেয়া হয়েছে৷ ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে এখন পর্যন্ত লোডশেডিং-এর শিডিউল মানা হলেও গ্রামাঞ্চলে মানা হচ্ছে না৷ গ্রামে আগে থেকেই লোডশেডিং বেশি৷ এখন আরো বেড়ে গেছে৷ কোনো কোনো এলাকায় চার-পাঁচ ঘন্টাও হচ্ছে৷ বিশেষ করে রংপুর এলাকায় শহর গ্রাম কোথাও লোডশেডিং-এর শিডিউল মানা হচ্ছে না বলে খবর পাওয়া গেছে।

বুয়েটের অধ্যাপক ও জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ম. তামিম বলেন, ‘সরকারের এই লোডশেডিং করা ছাড়া এখন আরা কোনো উপায় নেই৷ আর বিশ্ব পরিস্থিতি আরো খারাপ হলে এখানে পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে৷ কারণ যুদ্ধ মাথায় রেখে তো আর পরিকল্পনা করা যায় না৷ কিন্তু এভাবে চলতে থাকলে বিদ্যুতের ব্যবহার আরো কমাতে হবে৷ এর আশু কোনো সমাধান দেখছি না।’

তার কথা,'জ্বালানি আমদানি করতে হয়, সব দেশই করে৷ তবে আমরা যদি আমাদের গ্যাসের হিসাবটা করতে পারতাম৷ সেটা যদি উত্তোলন করতে পারতাম তাহলে পরিস্থিতি ভিন্ন হতো৷ নিজেদের গ্যাসের চেয়ে আমদানি করা গ্যাসের দাম তো সব সময় বেশিই হবে৷ আমি জানিনা এই গ্যাসের হিসাবটা কবে হবে৷ পাঁচ বছর, পাঁচ বছর বলে কত সময় কাটিয়ে দেওয়া হবে! নিজস্ব গ্যাস, কয়লা দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে হবে৷ রিনিউএবল এনার্জি যতটা সম্ভব উৎপাদনের ব্যবস্থা করতে হবে।"

বাংলাদেশে রেন্টাল পাওয়ার প্ল্যান্ট নিয়ে সমালোচনা আছে৷ তাদের বসিয়ে বসিয়ে অর্থ দেওয়া হচ্ছে৷ এখানে কোনো মহলকে সুবিধা দেয়ার অভিযোগ আছে৷ তেমনি নিজেদের গ্যাস নিয়ে গড়িমসির নেপথ্যে বড় বড় প্রতিষ্ঠানকে সুবিধা দেয়ার অভিযোগ আছে৷ ড. শামসুল আলম বলেন,"এখন যেটা করা হচেছ সেটা কোরামিন দিয়ে কোনোভাবে বাঁচিয়ে রাখা৷ এখানে আসল সমস্যা হচ্ছে লুটপাটের৷ সেটা বন্ধ করতে না পারলে কিছুতেই কিছু হবে না৷ ব্যাপক দুর্নীতিও চলবে আবার সক্ষমতার সাথে প্লান্টও কাজ করবে এটা বাংলাদেশ কেন বিশ্বের কোনো দেশেই সম্ভব নয়।

 

 

বন্ধ করুন