বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ট্রাফিক জ্যামে আটকে গাড়ি, ৪৫ মিনিট দৌড়ে অপারেশন করতে গেলেন ডাক্তারবাবু
এভাবে সেদিন দৌড়ে হাসপাতালে গিয়েছিলেন চিকিৎসক। সংগৃহীত ছবি

ট্রাফিক জ্যামে আটকে গাড়ি, ৪৫ মিনিট দৌড়ে অপারেশন করতে গেলেন ডাক্তারবাবু

  • চিকিৎসক বলেন, এর আগেও আমায় জ্যামে আটকে গিয়ে হাঁটতে হয়েছে।তবে আমাদের হাসপাতালে পর্যাপ্ত স্টাফ রয়েছে। সেকারণে এনিয়ে বিশেষ চিন্তা হয় না। তবে অনেক সময় অ্যাম্বুল্যান্সও আটকে যায়। এটাই চিন্তার।

একেই বলে কর্তব্যবোধ। বেঙ্গালুরুর এক চিকিৎসকের গাড়ি হাসপাতালে যাওয়ার পথে ট্রাফিক জ্যামে আটকে যায়। এদিকে তাঁকে সঠিক সময়ে হাসপাতালে পৌঁছতে হবে। কারণ অপারেশনের জন্য রোগী অপেক্ষা করছেন। কিন্তু এত জ্যাম ঠেলে, জল জমা রাস্তা পেরিয়ে তিনি যাবেন কীভাবে? অগত্যা গাড়িটিকে চালকের কাছে রেখে ছুটতে শুরু করেন তিনি। তিনি ডাঃ গোবিন্দ নন্দকুমার। গ্য়াসএনট্রোলজির সার্জেন। সারজাপুর-মারাঠাহাল্লির রাস্তায় তাঁর গাড়ি আটকে গিয়েছিল। তাঁর যাওয়ার কথা মনিপাল হাসপাতালে। জরুরী ভিত্তিতে এক রোগীর গলব্লাডার অপারেশন করার জন্য তিনি বেরিয়েছিলেন।

একটি ইংরাজি সংবাদমাধ্য়মে তিনি জানিয়েছেন, আমি নার্ভাস হয়ে যাচ্ছিলাম পাছে দেরি হয়ে যায়। এরপর ছুটতে শুরু করি। প্রায় তিন কিমি রাস্তা তিনি ছুটতে শুরু করেন। প্রায় ৪৫ মিনিট ছোটেন তিনি। তিনি জানিয়েছেন, হাসপাতালে যাওয়ার পথে রাস্তায় প্রচন্ড জ্যাম। জল জমেছিল রাস্তায়। সেকারণেই ছুটতে শুরু করি।

তিনি জানিয়েছেন সার্জারি না করলে আমার রুগী খেতে পারতেন না। সেকারণে আমি দেরি করতে চাইনি। ছুটতে শুরু করি। গাড়িতে আমার চালক ছিলেন। সেকারণে আমি গাড়িটি ছেড়ে দিই। রোজ জিমে যাই। সেকারণে ছুটতে সমস্যা হয়নি। তিন কিমি ছুটে সঠিক সময়ে হাসপাতালে পৌঁছই।

চিকিৎসক বলেন, এর আগেও আমায় জ্যামে আটকে গিয়ে হাঁটতে হয়েছে।তবে আমাদের হাসপাতালে পর্যাপ্ত স্টাফ রয়েছে। সেকারণে এনিয়ে বিশেষ চিন্তা হয় না। তবে অনেক সময় অ্যাম্বুল্যান্সও আটকে যায়। এটাই চিন্তার।

 

বন্ধ করুন