বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > কর্ণাটকের পুরভোটে কংগ্রেসের জয়জকার, মুখ্যমন্ত্রীর এলাকাতেও হার বিজেপির!
কর্ণাটকের পুরভোট কংগ্রেসের জয়জয়কার (ছবি সৌজন্যে হিন্দুস্তান টাইমস) (HT_PRINT)
কর্ণাটকের পুরভোট কংগ্রেসের জয়জয়কার (ছবি সৌজন্যে হিন্দুস্তান টাইমস) (HT_PRINT)

কর্ণাটকের পুরভোটে কংগ্রেসের জয়জকার, মুখ্যমন্ত্রীর এলাকাতেও হার বিজেপির!

  • কর্ণাটকের ৫৮টি শহরে স্থানীয় নির্বাচনে কংগ্রেস একক বৃহত্তম দল হিসাবে উঠে এসেছে।

কর্ণাটকের ৫৮টি শহরে স্থানীয় নির্বাচনে কংগ্রেস একক বৃহত্তম দল হিসাবে উঠে এসেছে। বৃহস্পতিবার ৫৮টি পুরসভা নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়। অর্ধশতাধিক শহরে মোট ১,১৮৪টি ওয়ার্ডে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। তার মধ্যে রাজ্যের বিরোধী দল কংগ্রেস ৪৯৮টি আসনে জয়লাভ করেছে। এদিকে রাজ্যের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি ৪৩৭টি আসনে জয়ী হয়েছে। এদিকে জেডিএস মাত্র ৪৫টি আসনে জিতেছে। অপরদিকে নির্দলরা জিতেছে ২০৪টি আসনে।

সিটি কাউন্সিল ওয়ার্ড, টাউন মিউনিসিপাল ওয়ার্ড এবং পাটানা পঞ্চায়েতের জন্য ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছিল কর্ণাটকে। সিটি মিউনিসিপ্যাল কাউন্সিল ওয়ার্ডে ১১৬টি আসনের মধ্যে কংগ্রেস ৬১টি আসন জিতেছে, যেখানে বিজেপি ৬৭টি আসন পেয়েছে। জেডিএস মাত্র ১২টি আসনে জিতেছে। তাছাড়া ২৬টি আসনে জিতেছেন নির্দল প্রার্থীরা। এদিকে ৪৪১টি টাউন মিউনিসিপাল ওয়ার্ডের মধ্যে কংগ্রেস জিতেছে ২০১টিতে। বিজেপির ঝুলিতে গিয়েছে ১৭৬টি আসন। জেডিএস পেয়েছএ মাত্র ২৬টি আসন। এদিকে পাটানা পঞ্চায়েতের ৫৮৮টি ওয়ার্ডের লড়াইতেও এগিয়ে কংগ্রেস। সেখানে কংগ্রেস পেয়েছে ২৩৬টি আসন। বিজেপি জিতেছে ১৯৪টি আসন। জেডিএস পেয়েছে মাত্র ১২টি আসন।

ভোটের হারের নিরিখে কংগ্রেস ৪২.০৬ শতাংশ ভোট পেয়েছে, যেখানে বিজেপি এবং জেডিএস যথাক্রমে ৩৬.৯০ শতাংশ এবং ৩.৮ শতাংশ ভোট পেয়েছে। সংবাদ সংস্থা পিটিআই-এ খবর অনুযায়ী, মুখ্যমন্ত্রী বাসবরাজ বোম্মাইয়ের বিধানসভা কেন্দ্র শিগ্গাওঁয়ের আন্তর্গত বাঁকাপুর টাউন মিউনিসিপাল কাউন্সিল ও গুট্টাল টাউন পঞ্চায়েতে জয় পেয়েছে কংগ্রেস।

কর্ণাটক প্রদেশ কংগ্রেস কমিটির সভাপতি ডিকে শিবকুমার বলেছেন যে এই নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণ বর্তমান সরকার সম্পর্কে তাদের মতামত প্রকাশ করেছে। তিনি বলেন, ‘এই ফলাফলে স্পষ্ট যে কর্ণাটকের জনগণ কংগ্রেসকে সমর্থন করছে। এই ভোট রাজ্যের মানুষের মতামতের সাক্ষী। যদিও রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় রয়েছে, তাও তাদের সিনিয়র নেতা ও মন্ত্রীদের ওয়ার্ডে আমরা জিতেছি। মুখ্যমন্ত্রীর জেলা ধরওয়াড়ের মতো জায়গায় মানুষ তাদের মতামত তুলে ধরেছে। মানুষ আমাদের উপর তাদের বিশ্বাস রেখেছে এবং আগামী দিনে আমরা এটি বজায় রাখব।’

বন্ধ করুন