বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > 'অত্যন্ত দুঃখিত..Air India..', ভাইরাল ১৯৭৮ সালে JRD টাটাকে লেখা ইন্দিরার চিঠি
ইন্দিরা গান্ধীর লেথা চিঠির কপি (বাঁদিকে), রতন টাটার টুইট করা ছবি (ডানদিকে)। (ছবি সৌজন্য টুইটার)
ইন্দিরা গান্ধীর লেথা চিঠির কপি (বাঁদিকে), রতন টাটার টুইট করা ছবি (ডানদিকে)। (ছবি সৌজন্য টুইটার)

'অত্যন্ত দুঃখিত..Air India..', ভাইরাল ১৯৭৮ সালে JRD টাটাকে লেখা ইন্দিরার চিঠি

‘আপনি শুধুমাত্র চেয়ারম্যান ছিলেন না, আপনি ছিলেন (এয়ার ইন্ডিয়ার) প্রতিষ্ঠাতা এবং লালন-পালনকারী।’

'আমি অত্যন্ত দুঃখিত যে আপনি আর এয়ার ইন্ডিয়ার সঙ্গে যুক্ত নেই।' ১৯৭৮ সালে হাতে লেখা চিঠিতে জাহাঙ্গির রতনজি দাদাভাই টাটাকে (জেআরডি টাটা) এমনই লিখেছিলেন প্রাক্তন ইন্দিরা গান্ধী। যিনি সেই সময় প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে ছিলেন না। ৪১ বছর পর ভাইরাল হয়েছে সেই চিঠি।

এমনিতে ঋণগ্রস্ত জাতীয় উড়ান সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়ার ক্ষমতা নিজেদের হাতে ফিরে পেতে চলেছে টাটা সনস। তারপরই কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ টুইটারে ইন্দিরার লেখা একটি চিঠি সামনে এনেছেন। ১৯৭৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি জাহাঙ্গির রতনজি দাদাভাই টাটাকে এয়ার ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যানের পদ ছেড়ে দিতে বলা হয়েছিল। তারপরেই সেই চিঠি লিখেছিলেন ভারতের একমাত্র মহিলা প্রধানমন্ত্রী।

কী ছিল চিঠিতে?

ইন্দিরা লিখেছিলেন, 'আপনি (টাটা) শুধুমাত্র চেয়ারম্যান ছিলেন না, আপনি ছিলেন (এয়ার ইন্ডিয়ার) প্রতিষ্ঠাতা এবং লালন-পালনকারী। যিনি ব্যক্তিগত স্তরে গভীর উদ্বেগ বোধ করতেন। সাজসজ্জা থেকে এয়ার হোস্টেসদের শাড়ি - ক্ষুদ্রতম বিষয়ে আপনি নিখুঁতভাবে মনোযোগ দেওয়ার ফলে এয়ার ইন্ডিয়া আন্তর্জাতিক স্তরে উঠেছিল। এমনকী সেই তালিকার শীর্ষে নিয়ে গিয়েছিল। '

১৯৩২ সালে এয়ার ইন্ডিয়ার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন জাহাঙ্গির রতনজি দাদাভাই টাটা। সেই সময় উড়ান সংস্থার নাম ছিল টাটা এয়ারলাইন্স। ১৯৪৬ সালে সংস্থার নাম পালটে রাখেন এয়ার ইন্ডিয়া। তবে স্বাধীনতার পর সরকারের সঙ্গে টাটার সম্পর্কের সমীকরণ পালটে গিয়েছিল। ১৯৪৭ সালের অক্টোবর এয়ার ইন্ডিয়া ইন্টারন্যাশনাল চালুর পরামর্শ দিয়েছিল টাটা গ্রুপ। প্রস্তাব অনুযায়ী, সরকারের হাতে থাকত ৪৯ শতাংশ মালিকানা। অতিরিক্ত দু'শতাংশ শেয়ারও কেনার সুযোগ ছিল। টাটার দখলে থাকত ২৫ শতাংশ শেয়ার। বাকি শেয়ার থাকত অন্যান্য বেসরকারি সংস্থার হাতে। কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই সেই প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছিল সরকার। পাঁচ বছর পর এয়ার ইন্ডিয়ার জাতীয়করণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। জাতীয়করণ সত্ত্বেও ২৫ বছর এয়ার ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান ছিলেন জাহাঙ্গির রতনজি দাদাভাই টাটা। ১৯৭৮ সালে তাঁকে এয়ার ইন্ডিয়া এবং ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের বোর্ড থেকে সরিয়ে দিয়েছিল মোরারজি দেশাইয়ের সরকার।  

তারপরই ইন্দিরা চিঠি লিখে বলেছিলেন, ‘আপনি এবং আপনার উড়ান সংস্থাকে নিয়ে গর্বিত আমরা। কেউ আপনার থেকে এই সন্তুষ্টি বা সরকারের কৃতজ্ঞতা ছিনিয়ে নিতে পারবে না।’ দু'জনের মধ্যে ‘ভুল বোঝাবুঝির’ বিষয়টির উল্লেখ করে চিঠিতে ইন্দিরা দাবি করেছিলেন, তাঁকে প্রবল ‘চাপের’ মধ্যে কাজ করতে হত। সেইসঙ্গে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, ‘অসামরিক বিমান পরিবহণ মন্ত্রকের মধ্যে রেষারেষি’ ছিল। যে ইন্দিরা গান্ধীর সরকার ১৯৮০ সালের এপ্রিলে জাহাঙ্গির রতনজি দাদাভাই টাটাকে দুটি সংস্থার বোর্ডে ফিরিয়ে এনেছিল। কিন্তু ফিরে আসেননি তিনি।

তবে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর চিঠির উত্তর দিয়েছিলেন টাটা। বলেছিলেন, ‘উড়ান সংস্থা গড়ে তোলার জন্য আমার ভূমিকার বিষয়ে আপনি যা উল্লেখ করেছেন, তাতে আমি অভিভূত।’ সহকর্মী, কর্মী এবং সরকারকেও ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন জাহাঙ্গির রতনজি দাদাভাই টাটা।

বন্ধ করুন