বাড়ি > ঘরে বাইরে > অতিমারী আবহে লোক সভা ও রাজ্য সভার অধিবেশন চালু করতে ঐতিহাসিক উদ্যোগ
বর্ষাকালীন অধিবেশনে রাজ্য সভা ও লোক সভা চালু রাখার প্রক্রিয়া স্থির করতে সোমবার বৈঠকে বসলেন দুই কক্ষের অধ্যক্ষ।
বর্ষাকালীন অধিবেশনে রাজ্য সভা ও লোক সভা চালু রাখার প্রক্রিয়া স্থির করতে সোমবার বৈঠকে বসলেন দুই কক্ষের অধ্যক্ষ।

অতিমারী আবহে লোক সভা ও রাজ্য সভার অধিবেশন চালু করতে ঐতিহাসিক উদ্যোগ

  • সামাজিক দূরত্ব বিধি মানতে দুই কক্ষ মিলিয়ে লোক সভার অধিবেশনে বসবেন সাংসদরা।

সংসদের বর্ষাকালীন অধিবেশনে রাজ্য সভা ও লোক সভা চালু রাখার প্রক্রিয়া স্থির করতে সোমবার বৈঠকে বসলেন দুই কক্ষের অধ্যক্ষ ভেঙ্কাইয়া নায়ডু এবং ওম বিড়লা। দুই ঘণ্টার আলোচনায় স্থান পেয়েছে নিরাপদ দূরত্ববিধি-সহ অতিমারী সংক্রান্ত যবতীয় নির্দেশ মেনে অধিবেশন চালু রাখার পদ্ধতি সমূহ।

বৈঠকে ঠিক হয়েছে, সামাজিক দূরত্ব বিধি মানতে দুই কক্ষ মিলিয়ে লোক সভার অধিবেশনে বসবেন সাংসদরা। একই ভাবে বসতে হবে রাজ্য সভা অধিবেশনে হাজিরা দেওয়া সাংসদদেরও। এই ভাবে একদিন অন্তর অথবা শিফ্ট মেনে সংসদে দুই কক্ষের অধিবেশন চালু রাখার কথা চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে বলে ওয়াকিবহাল সূত্র জানিয়েছেন। সে ক্ষেত্রে একটি কক্ষের অধিবেশনে দিনের প্রথম ভাগে এবং অন্য কক্ষের অধিবেশন দিনের দ্বিতীয় ভাগে অনুষ্ঠিত হতে পারে। 

সংসদ আধিকারিকরা জানিয়েছেন, রাজ্য সভার কক্ষ ও গ্যালারি মিলিয়ে সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে ১২৭ জন সাংসদ বসতে পারেন। অন্য দিকে, লোক সভা কক্ষ ও গ্যালারি মিলিয়ে ২৯০ জনের বসার ব্যবস্থা করা সম্ভব। যে কক্ষের অধিবেশন অনুষ্ঠিত হবে, সেখানে স্থান সঙ্কুলান না হলে অন্য কক্ষে বসতে পারবেন সাংসদরা।

উল্লেখ্য, বর্তমানে রাজ্য সভায় মোট সাংসদ সংখ্যা ২৪৫ জন এবং লোক সভায় ৫৪২ জন। এ দিন দুই কক্ষেরই অধিবেশন স্থল ও গ্যালারি পরিদর্শন করেন সংসদের প্রিসাইডিং অফিসাররা। এর পরে নায়ডু ও বিড়লার মধ্যে সভা পরিচালনা নিয়ে সবিস্তারে কথা হয়। 

পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে সংসদের উভয় কক্ষ মিলিয়ে অধিবেশন করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপনা ও প্রযুক্তিগত খুঁটিনাটি যাচাই করে দুই সেক্রেটারি জেনারেলকে তিন-চার দিনের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বন্ধ করুন