বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > নয়া গৃহঋণে কম সুদের সুবিধা, এই তারিখ পর্যন্ত মিলবে সুযোগ
গৃহঋণে কিছুটা কম সুদ দেওয়ার সুযোগ মিলবে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য মিন্ট)
গৃহঋণে কিছুটা কম সুদ দেওয়ার সুযোগ মিলবে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য মিন্ট)

নয়া গৃহঋণে কম সুদের সুবিধা, এই তারিখ পর্যন্ত মিলবে সুযোগ

  • রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সেই নয়া সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে আবাসন ক্ষেত্র।

আবাসন ক্ষেত্রকে চাঙ্গা করতে নয়া গৃহঋণের ক্ষেত্রে নিয়ম পরিবর্তন করল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া (আরবিআই)। তার ফলে এবার থেকে বাড়তি টাকা অর্থ থাকলে গৃহঋণে কিছুটা কম সুদ দেওয়ার সুযোগ মিলবে।

শুক্রবার রিজার্ভ ব্যাঙ্কের তরফে জানানো হয়েছে, নয়া বাড়ির দামের কত শতাংশ অর্থ ধার করছেন ঋণগ্রহীতা, তার উপর ভিত্তি করে সুদের হার নির্ধারিত হবে। অর্থাৎ কোনও বাড়ির দাম যদি ১০০ টাকা হয় এলং ক্রেতা যদি ৯০ টাকা ধার নেন, তাহলে তাঁর বেশি সুদ দিতে হবে। আবার কেউ যদি ৭৫ টাকার গৃহঋণ নেন, তাহলে তাঁকে কম সুদ গুনতে হবে। স্পষ্ট ভাষায় বলতে গেলে যে ঋণগ্রহীতা যত কম ঋণ নেবেন, তাঁকে তত কম সুদ দিতে হবে। অর্থাৎ কম সুদের জন্য ঋণগ্রহীতার কাছে বাড়তি অর্থ থাকতে হবে।

আপাতত সেই সুবিধা নেই। বরং কেউ বাড়ির দাম ৮০ শতাংশ ঋণ নিলেও যে হারে সুদ দিতে হয়, ৯০ শতাংশ ধার নিলেও একই হারে সুদ গুনতে হয়। আরবিআইয়ের গভর্নর শক্তিকান্ত দাস জানিয়েছেন, কর্মসংস্থান এবং অর্থনৈতিক কাজে আবাসন ক্ষেত্রের অবদান বিচার করে ২০২২ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত যে নয়া গৃহঋণ নেওযা হবে, তার ক্ষেত্রে সেই নয়া সুবিধা মিলবে।

আবাসন ক্ষেত্রের বক্তব্য, প্রতিটি ঋণের ক্ষেত্রেই ব্যাঙ্কের ঝুঁকি থাকে। যে ঋণগ্রহীতা যত বেশি ধার নেন, তাঁর ক্ষেত্রে মূলধনী খাতে তত বেশি অর্থ রাখতে হয়। যত কম পরিমাণ ঋণ নেওয়া হয়, তত ঝুঁকির মাত্রা কম হবে। আর ঝুঁকি কম হওয়ায় ব্যাঙ্কের মূলধনী খাতে বরাদ্দ কমবে। তার ফলে সুদ কমানোর সুযোগ পাবে ব্যাঙ্কগুলি।

রিজার্ভ ব্যাঙ্কের সেই নয়া সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে আবাসন ক্ষেত্র। সেই মহলের বক্তব্য, ঝুঁকি কম হওয়ায় নগদ অর্থের জোগান বাড়বে। একইসঙ্গে আবাসন ক্ষেত্রকে চাঙ্গা করতে আরও পদক্ষেপের প্রয়োজন আছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট মহল।

বন্ধ করুন