বাংলা নিউজ > ময়দান > টি২০ বিশ্বকাপ > শামির পাশে দাঁড়িয়ে নেটিজেনদের কদর্য আক্রমণের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ সচিনের
মহম্মদ সামি এবং সচিন তেন্ডুলকর।
মহম্মদ সামি এবং সচিন তেন্ডুলকর।

শামির পাশে দাঁড়িয়ে নেটিজেনদের কদর্য আক্রমণের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ সচিনের

  • পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অবশ্য মহম্মদ শামি মোটেও ভাল পারফরম্যান্স করতে পারেনি। ৩.৫ ওভার বল করে ৪৩ রান দেন তিনি। এর পরেই তাঁকে নিয়ে জঘন্য ইঙ্গিত করে আক্রমণ করা হয়েছে। তাঁকে ম্যাচের পর পাকিস্তানে চলে যেতে বলার পাশপাশি, তিনি এমন পারফর্ম করতে কত টাকা নিয়েছেন, এমনই কদর্য ভাষায় তাঁকে আক্রমণ করা হয়েছে।

রবিবার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ১০ উইকেটে বাজে ভাবে হেরেছে ভারত। ভারত প্রথমে ব্যাট করে তাও ১৫১ রানের লক্ষ্য রেখেছিল পাকিস্তানের সামনে। এটা যে খুব সহজ চ্যালেঞ্জ ছিল, তা কিন্তু নয়। তবে ভারতের বিশ্ববন্দিত ফাস্ট বোলিং আক্রমণকে এই ম্যাচে একদমই নির্বিষ দেখিয়েছে। এমন কী স্পিনাররাও যে কিছু করে উঠতে পেরেছেন, তাও নয়। তবে দলের হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পরেই নেটপাড়ার একাংশের জঘন্য আক্রমণের শিকার হয়েছেন ভারতের তারকা ফাস্ট বোলার মহম্মদ শামি। আর শামির পাশে দাঁড়িয়ে এ বার সেই নিয়ে সরব হয়েছেন ভারতের মাস্টার ব্লাস্টার সচিন তেন্ডুলকর।

সত্যি কথা বলতে, মহম্মদ শামি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মোটেও ভাল পারফরম্যান্স করতে পারেনি। ৩.৫ ওভার বল করে ৪৩ রান দেন তিনি। ভারতীয় বোলারদের মধ্যে তিনিই সবচেয়ে বেশি রান দিয়েছেন। কিন্তু রবিবার পুরো দলটাই ব্যর্থ হয়েছে। একা শামি নন। তা সত্ত্বেও শামিকে নিয়ে জঘন্য ইঙ্গিত করে আক্রমণ করা হয়েছে। তাঁকে ম্যাচের পর পাকিস্তানে চলে যেতে বলার পাশপাশি, তিনি এমন পারফর্ম করতে কত টাকা নিয়েছেন, এমনই কদর্য ভাষায় আক্রমণ করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে শামির পাশে দাঁড়িয়ে টুইট করেছেন সচিন।

টুইটে তিনি লিখেছেন, ‘আমরা যখন টিম ইন্ডিয়াকে সমর্থন করি, তখন কিন্তু আমরা টিম ইন্ডিয়ার হয়ে যারা প্রতিনিধিত্ব করছে, সকলকে সমর্থন করি। মহম্মদ শামি কমিটেড, বিশ্ব মানের বোলার। অন্যান্য ক্রীড়াবিদদের মতো, ওরও একটি খারাপ দিন যেতেই পারে। আমি শামি এবং টিম ইন্ডিয়ার পাশে দাঁড়াচ্ছি।’

রবিবার টসে জিতে ভারতকে ব্যাট করতে পাঠান পাক অধিনায়ক বাবর আজম। প্রথমে ব্যাট করতে নেমেই দলের ১ রানের মাথায় রোহিত শর্মাকে ফেরান শাহিন আফ্রিদি। ১ বল খেলে শূন্য রানে আউট হন তিনি। এর পর আফ্রিদি ফেরান কেএল রাহুলকে। তখন দলের রান মাত্র ৬। দলের ৩১ রানের মাথায় আউট হন সূর্যকুমার যাদব। একমাত্র বিরাট কোহলির ৪৯ বলে ৫৭ এবং ঋষভ পন্তের ৩০ বলে ৩৯ রানের সৌজন্যে ১৫১ রান করে ভারত। বিরাট, পন্ত ছাড়া বাকিরা কেউ ১৫ রানের গণ্ডি টপকাতে পারেননি।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৩ বল বাকি থাকতে ১০ উইকেটে সহজে ম্যাচ জিতে নেয় পাকিস্তান। ৫৫ বলে ৭৯ রান করে অপরাজিত থাকেন মহম্মদ রিজওয়ান। ৫২ বলে ৬৮ রান করে অপরাজিত থাকেন বাবর আজম। ১৭.৫ ওভারে কোনও উইকেট না হারিয়ে ১৫২ রান করে নেয় পাকিস্তান।

বন্ধ করুন