বাংলা নিউজ > ময়দান > Ranji Final: ৪৯ রানে পিছিয়ে মুম্বই, হাতে ৮উইকেট,বাকি ১দিন, ট্রফির গন্ধ পাচ্ছে MP
দুরন্ত শতরান করেন রজত পতিদার। চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অপেক্ষায় মধ্যপ্রদেশ।

Ranji Final: ৪৯ রানে পিছিয়ে মুম্বই, হাতে ৮উইকেট,বাকি ১দিন, ট্রফির গন্ধ পাচ্ছে MP

  • বড় কোনও অঘটন না ঘটলে, এ বার রঞ্জিতে ২৩ বছর আগের আক্ষেপ মিটিয়ে নেওয়ার সুযোগ পেতে চলেছে মধ্যপ্রদেশ। চতুর্থ দিনের শেষে অন্তত সব দিকে থেকে এগিয়ে রয়েছেন রজত পতিদাররা। এখন শুধু মধ্যপ্রদেশের চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অপেক্ষা।

২৩ বছর আগে যে স্বপ্নটা ভেঙে গিয়েছিল, সেটা যেন পূরণ হতে দেখছেন চন্দ্রকান্ত পণ্ডিত। চতুর্থ দিনের শেষে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার আশাটা মধ্যপ্রদেশের আরও মাথাচারা দিয়ে উঠেছে। প্রথম ইনিংসে মধ্যপ্রদেশে ১৬২ রানের লিড পায়। স্বাভাবিক ভাবে এতেই তারা অ্যাডভান্টেজে চলে যায়। সেখানে মুম্বই ১১৩ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বসে রয়েছে। তারা এখনও ৪৯ রানে পিছিয়ে। হাতে মাত্র ১দিন রয়েছে। স্বাভাবিক ভাবেই মধ্যপ্রদেশের স্বপ্নপূরণ হওয়া যেন এখন সময়ের অপেক্ষা।

মুম্বইয়ের দ্বিতীয় ইনিংসে পৃথ্বী শ'র সঙ্গে যশস্বী জয়সওয়ালের বদলে ওপেন করতে নামেন হার্দিক তামোরে। আসলে যশস্বী ফিল্ডিং করার সময়ে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন। দীর্ঘ সময় মাঠে ছিলেন না তিনি। তাই মুম্বইয়ের দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে অন্তত ২ ঘণ্টার জন্য ব্যাট করতে নামায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে যশস্বীর। তামোরে ৩২ বলে ২৫ করেই আউট হয়ে যান। পৃথ্বী আউট হন ৫২ বলে ৪৪ করে। মধ্যপ্রদেশের কুমার কার্তিকেয় এবং গৌরব যাদব ১টি করে উইকেট নিয়েছেন।

চতুর্থ দিনের শেষে ক্রিজে রয়েছেন আরমান জাফর (৩৪ বলে ৩০ রান) এবং সুদেভ পার্কার (১৪ বলে ৯ রান)। তবে আলো কম থাকার কারণে সময়ের আগেই এ দিন খেলা শেষ করে দেন আম্পায়ার। এতে আখেরে সুবিধে হয় মধ্যপ্রদেশেরই।

এখন যা পরিস্থিতি, তাতে ১দিনের মধ্যে মধ্যপ্রদেশের সামনে বড় রানের টার্গেট ঝুলিয়ে দিয়ে, তাদের ব্যাট করতে পাঠিয়ে ১০ উইকেট তুলে নেওয়াটা, মুম্বইয়ের পক্ষে একেবারেই সহজ কাজ হবে না। তবে ক্রিকেটে অসম্ভব বলে কোনও কথা নেই। উল্টোদিকে মধ্যপ্রদেশ চাইবে, পঞ্চম দিন মুম্বইকে অল্প রানে দ্রুত অল আউট করে দিতে। যাতে তারা সামান্য কিছু রান তাড়া করে ম্যাচ জিতে প্রথম রঞ্জি চ্যাম্পিয়ন হওয়ার স্বাদ তারা পেতে পারে। এটা ঘটা একেবারেই অসম্ভব নয়। এমনিতেই প্রথম ইনিংসে লিড পাওয়ায়, ম্যাচ ড্র হলেই চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাবে এমপি।

আরও পড়ুন: ‘বাইরের আওয়াজ শুনব না’, শতরান করে কেএল-এর মতো কানে আঙুল দিয়ে সেলিব্রেশন যশ দুবের

১৯৯৮-৯৯ রঞ্জিতে ২৩ বছর আগে প্রথম বার ফাইনালে উঠেছিল মধ্যপ্রদেশ। কিন্তু কর্ণাটকের বিরুদ্ধে তারা সে বার হেরে যায়। এর পর ফের এই বছর ফাইনালে উঠেছে এমপি। মধ্যপ্রদেশ ২৩ বছর আগে যখন রঞ্জির ফাইনাল খেলেছিল, তখন সেই দলের অধিনায়ক ছিলেন চন্দ্রকান্ত পণ্ডিত। সে বার তিনি দলকে চ্যাম্পিয়ন করতে পারেননি। আর এ বার তিনি মধ্যপ্রদেশের কোচ। নিখুঁত অঙ্কে এই বছরের হিসেবটা মিলিয়ে ইতিহাস লিখতে চান চন্দ্রকান্ত পণ্ডিত। মধ্যপ্রদেশকে প্রথম বার রঞ্জি চ্যাম্পিয়ন করে ২৩ বছর আগের আক্ষেপটাও তিনি মেটাতে চান।

তৃতীয় দিনের শেষে মধ্যপ্রদেশের স্কোর ছিল ৩ উইকেটে ৩৬৮ রান। রজত পতিদার (৬৭) এবং অধিনায়ক আদিত্য শ্রীবাস্তব (১১) ক্রিজে ছিলেন। আদিত্য শনিবার সকালে ২৫ করে আউট হয়ে গেলেও, লড়াই চালান রজত পতিদার। রজত ১২২ করে আউট হন। এ ছাড়া মধ্যপ্রদেশের হয়ে সেঞ্চুরি করেছেন যশ দুবে (১৩৩) এবং শুভম শর্মা (১১৬)। অর্ধশতরান করেছেন সারাংশ জৈন (৫৭)। প্রথম ইনিংসে ৫৩৬ রানে অল আউট হয় মধ্যপ্রদেশ।

সরফরাজ খানের ১৩৪ রানের হাত ধরে মুম্বইয়ের প্রথম ইনিংস শেষ হয়েছিল ৩৭৪ রানে। পৃথ্বী শ' ৪৭, যশস্বী জয়সওয়াল ৭৮ রান করেন। জবাবে ব্যাট করতে নেমে চতুর্থ দিনের শেষে ম্যাচের রাশ পুরোটাই এখন মধ্যপ্রদেশের হাতে। বলা ভাল, রঞ্জিতে নতুন ইতিহাস লেখার অপেক্ষায় চন্দ্রকান্ত পণ্ডিতের ছেলেরা।

বন্ধ করুন