বাংলা নিউজ > ময়দান > নন-স্ট্রাইকারকে রানআউটের সমর্থনে ইয়ান চ্যাপেল, একহাত নিলেন রোহিতকে

নন-স্ট্রাইকারকে রানআউটের সমর্থনে ইয়ান চ্যাপেল, একহাত নিলেন রোহিতকে

নন-স্ট্রাইকার আউট নিয়ে রোহিতকে এক হাত নিলেন চ্যাপেল।

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে গুয়াহাটিতে প্রথম ম্যাচের শেষ ওভারে ঘটনাটি ঘটে। সেই সময়ে দাসুন শানাকা ৯৮ রানে ব্যাট করছিলেন। যে সময়ে ঘটনাটি ঘটে। তখন শানাকা নন স্ট্রাইকার এন্ডে ছিলেন। বল করতে গিয়ে মহম্মদ শামি দেখেন, ক্রিজ ছেড়ে বের হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন শানাকা, তখন তাঁকে রানআউট করেন শামি।

বর্তমান সময়ে ক্রিকেটে নন-স্ট্রাইকারকে রানআউট বা মানকাডিং আউট করা নিয়ে নানা কারণে জোর চর্চা চলছে। তার উপর সম্প্রতি শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক দাসুন শানাকাকে নন-স্ট্রাইকার রানআউট করেছিলেন মহম্মদ শামি। কিন্তু সেই আপিল প্রত্য়াহার করে নেন রোহিত শর্মা। আর তাই নিয়ে নতুন করে শুরু হয়েছে তর্ক-বিতর্ক।

রোহিতের এই আচরণ অনেকেই প্রশংসায় ভরালেও, রবিচন্দ্রন অশ্বিন এর তীব্র সমালোচনা করেছিলেন। অশ্বিনের দাবি ছিল, এটি খেলারই একটি অংশ। নন-স্ট্রাইকারকে রানআউট বৈধ হলেও, এটি অনেকে মানতে পারেন না। এ বার অশ্বিনের পথেই হাঁটলেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক ইয়ান চ্যাপেল।

আরও পড়ুন: ফের দুরন্ত সেঞ্চুরি- সচিনের জোড়া নজির ভাঙলেন কোহলি, হল বিশ্বরেকর্ড

অশ্বিন বলেছিলেন, ‘যখন কেউ এলবিডব্লিউ বা ক্যাচের জন্য আম্পায়ারের কাছে আবেদন করে, তখন সে অধিনায়কের দিকে তাকিয়ে থাকে না। কৌন বনেগা ক্রোড়পতির মতো অমিতাভ বচ্চন হয়ে কেউ আম্পায়ারকে জিজ্ঞেস করে না, এর উত্তর কী হবে। সে আবেদন করে আউটের জন্য। আম্পায়ার সেই পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত নেন। বোলার আবেদন করলে আউট দেওয়া বা না দেওয়া নির্ভর করে আম্পায়ারের উপর। আর একজন ফিল্ডার আপিল করলে আম্পায়ারের দায়িত্ব থাকে, আউট দেওয়া বা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার।’

এ দিকে ইয়ান চ্যাপেল বলেছেন, ‘রোহিত যদি রানআউটের সিদ্ধান্তের সঙ্গে যেতেন, তবে সেটি আমি বেশি পছন্দ করতাম। ২০২০-২১-এ অস্ট্রেলিয়া সফরের সময়ে আমি রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে বলেছিলাম, ব্যাটারদের রান আউট করুন, যতক্ষণ না তাঁরা বুঝতে পারছেন, তাঁরা অবৈধ কাজ করছেন। ’

আরও পড়ুন: ভিডিয়ো- ধোনির মতো হেলিকপ্টার শটে ৯৭ মিটারের লম্বা ছক্কা, ৮টি ছয় মেরে নজির কোহলির

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে গুয়াহাটিতে প্রথম ম্যাচের সময়ে ঘটনাটি ঘটেছিল। এই ম্যাচের শেষ ওভারে ঘটনাটি ঘটে। সেই সময়ে দাসুন শানাকা ৯৮ রানে ব্যাট করছিলেন। যে সময়ে ঘটনাটি ঘটে। তখন শানাকা নন স্ট্রাইকার এন্ডে ছিলেন। বল করতে গিয়ে মহম্মদ শামি দেখেন, ক্রিজ ছেড়ে বের হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন শানাকা, তখন তাঁকে রানআউট করেন শামি।

শামি যখন আউটের জন্য আবেদন করেন, সেই সময়ে রোহিত শর্মা এগিয়ে এসে তাঁকে বাধা দেন। এবং আউটের আবেদন ফিরিয়ে নেন। এই ঘটনাটির পর শনাকা সেঞ্চুরি করেন। যদিও ম্যাচটি জেতে ভারত। আর রোহিত শর্মার এই কাজ প্রশংসিত হয়। তবে অনেকেই আবার রোহিতের এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করতে পারছেন না। তবে ভারত জিতে যাওয়ায় বিষয়টি নিয়ে আর খুব বেশি জলঘোলা হয়নি।

বন্ধ করুন