বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Purulia: এবার বানান ভুল করলেন স্কুল শিক্ষকরাই! নেট মাধ্যমে তোলপাড়, অস্বীকার করল স্কুল
স্কুলের আবেদনপত্রে বানান ভুল।

Purulia: এবার বানান ভুল করলেন স্কুল শিক্ষকরাই! নেট মাধ্যমে তোলপাড়, অস্বীকার করল স্কুল

  • পুরুলিয়া জেলার বোরো থানা এলাকার দীঘি হাইস্কুলের আবেদন পত্রে বানান ভুল করার অভিযোগ উঠেছে। আবেদনপত্র ইংরেজিতে যে ‘স্কুল’ বানানটি রয়েছে তাতে লেখা রয়েছে ‘scholl’ যদিও স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, এতে স্কুলশিক্ষকদের কোনও ভুল নেই, এটি মুদ্রণজনিত ভুল।

উচ্চ মাধ্যমিকে অকৃতকার্য ছাত্রীর 'আমব্রেলা' বানান ভুল নিয়ে রঙ্গতামাশা, কটুক্তিতে ভরে উঠেছিল সোশ্যাল মিডিয়া। এবার স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধেই বানান ভুল করার অভিযোগ উঠল। এই নিয়ে এখন তোলপাড় হয়ে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়া। পুরুলিয়ার একটি হাইস্কুলের আবেদনপত্রে বানান ভুলের অভিযোগ উঠেছে। ওই আবেদনপত্রে “স্কুল" বানানটি ভুল রয়েছে বলে দেখা যাচ্ছে। যদিও আবেদনপত্রে বানান ভুলের অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। তবে শিক্ষকরাই যদি ভুল করে তাহলে ছাত্রছাত্রীরা কী শিখবে? এখন এই প্রশ্নে তোলপাড় হয়ে উঠেছে নেটমাধ্যম।

পুরুলিয়া জেলার বোরো থানা এলাকার দিঘী হাইস্কুলের আবেদন পত্রে বানান ভুল করার অভিযোগ উঠেছে। আবেদনপত্র ইংরেজিতে যে ‘স্কুল’ বানানটি রয়েছে তাতে লেখা রয়েছে ‘scholl’ যদিও স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, এতে স্কুলশিক্ষকদের কোনও ভুল নেই, এটি মুদ্রণজনিত ভুল। আগে মুদ্রণজনিত ভুলের কারণেই এই বানান ছিল। তবে এখন তা ঠিক করা হয়েছে। কোনও ছাত্র দুষ্টুমি করে এখন তা নেট মাধ্যমে পোস্ট করেছে। প্রসঙ্গত, উচ্চমাধ্যমিকে অকৃতকার্য ছাত্রীর ‘আমব্রেলা’ বানান নিয়ে ভুল নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কটুক্তি, রঙ্গতামাশা শুরু হয়েছিল। ওই ছাত্রীর মায়ের দাবি, এই ঘটনার জেরে ওই ছাত্রী আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে।

এই অবস্থায় স্কুলে বানান ভুকের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পরেই রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থাকে কাঠগড়ায় তুলে শাসক দলকে দায়ী করেছে বিজেপি। দলের পুরুলিয়া জেলা সভাপতি বিবেক রাঙা বলেন, রাজ্যের শিক্ষা ব্যবস্থা পুরোপুরি শেষ হয়ে গিয়েছে। আগে বাংলা বোর্ডের ছাত্র-ছাত্রীদের নম্বরকে ভালো চোখে দেখা হত। কিন্তু, এখন আর তা হয় না।

বন্ধ করুন