জগদীপ ধনখড়। ফাইল ছবি
জগদীপ ধনখড়। ফাইল ছবি

এটা বীরত্ব দেখানোর সময় নয়, মমতাকে খোঁচা রাজ্যপালের, পালটা সমালোচনা কল্যাণের

  • মুখ্য়মন্ত্রীর সমালোচনা করে একগুচ্ছ পরামর্শ দিলেন ধনখড়

করোনা পরিস্থিতির মধ্যে পত্রযুদ্ধের পর ফের একবার মুখ্যমন্ত্রীকে খোঁচা পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের। মঙ্গলবার জোড়া টুইটে বাছা বাছা বিশেষণে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বেঁধেন তিনি। সঙ্গে দিয়েছেন একগুচ্ছ পরামর্শ।

এদিন রাজ্যপাল লিখেছেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আপনি পশ্চিমবঙ্গের মানুষের দিকে নজর দিন। ভাষণ না দিয়ে তাদের যন্ত্রণা কমানোর চেষ্টা করুন। রাজ্যের পরিস্থিতি খতিয়ে দেখছে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল। এটা রাজ্যপাল বা কেন্দ্রে বিরুদ্ধে আক্রমণ শানানোর সময় নয়। বীরত্ব না দেখিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনুন।‘

সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীকে রাজ্যপালের পরামর্শ, ‘দোষ খোঁজা, দোষারোপ করা বা দায় এড়ানোর চেষ্টা বন্ধ করে মানুষের পাশে দাঁড়ান। এই সঙ্কট থেকে মুক্তি পেতে কেন্দ্রের সঙ্গে হাত মিলিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিন। এব্যাপারে দেশের থেকে রাজ্যকে আলাদা করে দেখা অসাংবিধানিক। বিশেষ করে এই সময় তা একেবারেই করা উচিত নয়।‘



বলে রাখি, গত সপ্তাহেই রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রীর মধ্যে চরম বিবাদ বাঁধে। রাজ্যপালের আচরণ ও তাঁর চিঠির ভাষা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে তাঁকে চিঠি দেন মুখ্যমন্ত্রী। তাতে তিনি লেখেন, ‘মনে রাখবেন, আমি গর্বিত রাজ্যের নির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী। আর আপনি মনোনীত রাজ্যপাল।’ এর পরই ১৪ পাতার চিঠিতে মমতাকে জবাব দেন ধনখড়। তাতে তিনি লেখেন, ‘আমি মনোনীত নই, নিযুক্ত।’ সঙ্গে মমতাকে তিনি লেখেন, ‘করোনা সঙ্কটের মধ্যেও আপনার সংখ্যালঘু তোষণ দৃষ্টিকটূ। নাটক না করে কাজের কাজটা করুন।’ এদিন রাজ্যপালের ভূমিকার সমালোচনা করে তাঁকে একটি চিঠি দিয়েছেন শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি লেখেন, 'আপনার আচরণে মনে হয় আপনি বিজেপির আদর্শে অনুপ্রাণিত। অন্য কোনও উদ্দেশ্যে লাগাতার মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করে চলেছেন আপনি।'




বন্ধ করুন