বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > 'পোষ মানেনি, পাপ যত বিদায় হয় ততই ভালো,' সব্যসাচীর তৃণমূলে ফেরা নিয়ে তোপ রাহুলের
 গত বছর এভাবেই সল্টলেক ইজেডসিসি–তে পরিদর্শনে গিয়েছিলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায়, সব্যসাচী দত্ত প্রমুখ। ফাইল ছবি সৌজন্য : টুইটার
 গত বছর এভাবেই সল্টলেক ইজেডসিসি–তে পরিদর্শনে গিয়েছিলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়, মুকুল রায়, সব্যসাচী দত্ত প্রমুখ। ফাইল ছবি সৌজন্য : টুইটার

'পোষ মানেনি, পাপ যত বিদায় হয় ততই ভালো,' সব্যসাচীর তৃণমূলে ফেরা নিয়ে তোপ রাহুলের

  • বরাবরই মুকুল ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত সব্য়সাচী। গত কয়েকদিন ধরেই তাঁর তৃণমূলের প্রত্যাবর্তন নিয়ে জল্পনাটা চলছিল।

গত বছরেও ইজেডসিসিতে বিজেপির উদ্যোগে আয়োজিত দুর্গাপুজোয় অন্যতম সক্রিয় ছিলেন সব্যসাচী দত্ত। আর ঠিক পুজোর মুখেই সেই সব্যসাচীই ফের চলে গেলেন তাঁর পুরানো ঘর তৃণমূলে। এদিন তৃণমূল মন্ত্রিসভার দুই হেভিওয়েট সদস্য পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও ফিরহাদ হাকিম সব্যসাচী দত্তকে ফের তৃণমূলে বরণ করে নেন। পুজোর আগেই কার্যত ঘর খালি হল বিজেপির। সব্যসাচী জানিয়েছেন, কিছু ভুল বোঝাবুঝির জন্য তিনি তৃণমূল ছেড়েছিলেন।   

এদিকে বরাবরই মুকুল ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত সব্য়সাচী। গত কয়েকদিন ধরেই তাঁর তৃণমূলের প্রত্যাবর্তন নিয়ে জল্পনাটা চলছিল। এনিয়ে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানিয়েছিলেন, আমি কিছু জানি না। তবে এবার সব্যসাচীর তৃণমূলে ফেরার পরে মুখ খুললেন বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা। তিনি বলেন, 'জঙ্গল থেকে সব পশু পক্ষী ধরে আনলে সেটা পোষ মানে না। আর এটা সবচেয়ে বড় দৃষ্টান্ত। আমি মনে করি পাপ যত বিদায় হয় ততই ভালো। এটাই বিজেপির সমস্ত লোক চাইছিল, যাচ্ছে না কেন? '

এরপর মুকুল রায়ের প্রসঙ্গেও মুখ খোলেন তিনি। রাহুল সিনহা বলেন, 'আমরা অনেক আগেই আশা করেছিলাম গুরু মুকুল যখন চলে গিয়েছে তখন  চলে যাবে এটাই ভেবেছিলাম। যাচ্ছে না কেন আমি মনে করি এটাই আমাদের অস্বস্তি বাড়াচ্ছিল। আজকে চলে যাওয়ার পরে হাঁফ ছেড়ে বাঁচলাম।' তবে এখানেই প্রশ্ন উঠছে বিজেপি নিজ উদ্যোগে তথাকথিত ‘পাপ’ বিদায় করছে না কেন? কেনই বা ভোটের আগে এই 'পাপ'দেরই জামাই আদর করে দলে ডেকে এনে টিকিট দেওয়ার ব্য়বস্থা করেছিল? বিজেপির নীচুতলাতেও এই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। 

 

বন্ধ করুন