বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘‌মমতার বিপরীতে মুখ ছিল না’‌, হারের বিশ্লেষণে দলকে জানালেন সব্যসাচী
বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত। (ছবি সৌজন্য ফেসবুক)
বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত। (ছবি সৌজন্য ফেসবুক)

‘‌মমতার বিপরীতে মুখ ছিল না’‌, হারের বিশ্লেষণে দলকে জানালেন সব্যসাচী

  • এই দুই প্রধান কারণেই ভরাডুবি বলে দলের বৈঠকে জানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন বিধাননগরের বিজেপির পরাজিত প্রার্থী।

এখন একুশের নির্বাচনের পরাজয় নিয়ে কাটাছেঁড়া করতে শুরু করেছে বিজেপি। এই হারের প্রকৃত কারণ কী?‌ তা জানতে আসরে নেমেছে সংঘ পরিবারও। কিন্তু তাঁরা সিদ্ধান্তে পৌঁছবার আগেই হারের কারণ খুঁজে পেয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে দলবদলু বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত। তিনি মনে করেন, বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের ভাষা বুঝতে পারেননি বাংলার সাধারণ মানুষ। তার উপর মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কোনও মুখ ছিল না। এই দুই প্রধান কারণেই ভরাডুবি বলে দলের বৈঠকে জানিয়েছেন বলে দাবি করেছেন বিধাননগরের বিজেপির পরাজিত প্রার্থী।

একুশের নির্বাচনের আগে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন সব্যসাচী দত্ত। তারপর তিনি বিধাননগর কেন্দ্রে প্রার্থীও হন। আর সুজিত বসুর কাছে হেরেও যান। তখন থেকেই তিনি খানিকটা বেসুরো হয়েছেন। সম্প্রতি তিনি বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে শ্রদ্ধা করেন বলে জানিয়েছেন। আবার তিনি সিনিয়র নেত্রী। দল তাঁকে প্রেডিক্ট করতে পারেনি–সহ নানা সময়ে নানা কথা বলেছেন। এবার অবশ্য বিজেপির বৈঠকে যোগ দিয়ে সব্যসাচী জানান, ‘কেন্দ্রীয় নেতাদের ভাষা বুঝতে অসুবিধা হয়েছে সাধারণ মানুষের। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুখ না থাকাও বিপর্যয়ের একটা বড় কারণ।’‌

এদিন অবশ্য সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেন, ‘‌আমরা যে ভাষায় কথা বলতে অভ্যস্ত সেই ভাষায় আদানপ্রদানের দূরত্ব তৈরি হয়েছিল। বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব অনেক ভালো এবং গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন। সাধারণ মানুষ ও গ্রাম বাংলার মানুষ তা বুঝতেই পারেননি। আমাদের ব্যর্থতা আমরা বোঝাতে পারিনি। বুথে বুথে যাওয়ার কথা ছিল। ইস্তেহারের কথা বুথের মানুষকে বোঝাতেই পারিনি।’‌

নরেন্দ্র মোদীই ছিলেন রাজ্যে প্রচারের মুখ। এই কৌশল খাটেনি বলে মত সব্যসাচীর। তাঁর কথায়, ‘‌২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে ১৮টি আসন পেয়েছিল বিজেপি। তখন সেই নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদী মুখ ছিলেন। কিন্তু একুশের নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদী, অমিত শাহ এবং জেপি নড্ডারা যে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হবেন না, তা সবাই জানত। আর উল্টোদিকে স্বীকৃত ও পরীক্ষিত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে আমাদের মুখ ছিল না।’‌

বন্ধ করুন