দিল্লিতে চলছে জীবাণুনাশের কাজ (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
দিল্লিতে চলছে জীবাণুনাশের কাজ (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

COVID-19 Updates: দেশের ১৭০ জেলা হটস্পট, তামিলনাড়ুতে সর্বাধিক

  • দেশের মধ্যে তামিলনাডু়তে সবথেকে বেশি জেলায় ব্যাপক আকারে করোনা ছড়িয়েছে।

আগেই জানানো হয়েছিল, দেশের ১৭০টি জেলা হটস্পট। এবার সেই জেলার তালিকা প্রকাশ করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক।

আরও পড়ুন : Lockdown 2.0: যে তেরো কাজ করতে পারবেন না তেসরা মে পর্যন্ত..

সব রাজ্যের মুখ্যসচিবদের লেখা সেই চিঠিতে জানানো হয়েছে, দেশের জেলাগুলিকে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে - হটস্পট (লাল জোন), নন-হটস্পট ও অসংক্রামিত জেলা (সবুজ জোন)। হটস্পটকে আরও দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। একটি হল - যেখানে ব্যাপক আকারে করোনা ছড়িয়েছে (লার্জ আউটব্রেক)। সেই তালিকায় রয়েছে ১২৩ টি জেলা। অপরটি হল - যেখানে ক্লাস্টারে ছড়িয়েছে অর্থাৎ যে জেলার ক্ষেত্র বিশেষে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। সেই তালিকায় রয়েছে ৪৭ টি। এছাড়া নন-স্পট তালিকায় রয়েছে ২০৭ টি জেলা। সবুজ জোনে দেশের বাকি জেলাগুলি। অর্থাৎ যে জেলাগুলিতে শেষ করোনা আক্রান্তের হদিশ পাওয়ার ২৮ দিনের মধ্যে নতুন করে কারোর রিপোর্ট পজিটিভ আসেনি।

আরও পড়ুন : COVID-19 Updates: 'উপসর্গ ছাড়াই ভাইপো ও আমার রিপোর্ট পজিটিভ', জানালেন শেওড়াফুলির করোনা আক্রান্ত

দেশের মধ্যে তামিলনাডু়তে সবথেকে বেশি জেলায় ব্যাপক আকারে করোনা ছড়িয়েছে অর্থাৎ লার্জ আউটব্রেক হয়েছে। সেখানে ২২টি জেলায় ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা। মহারাষ্ট্রে দেশের মধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সবথেকে বেশি। সেখানে কয়েকটি অঞ্চলের মধ্যে করোনার ব্যাপক প্রভাব লক্ষ্য করা গিয়েছে। মহারাষ্ট্রের ১১ টি জেলা লার্জ আউটব্রেকের তালিকায় রয়েছে। রাজস্থান ও অন্ধ্রপ্রদেশের ১১টি জেলায় করোনার প্রভাব ভয়াবহ। দিল্লি ও উত্তরপ্রদেশের ন'টি করে জেলা, তেলাঙ্গানার আটটি জেলা, কেরালা এবং জম্মু ও কাশ্মীরে ছ'টি করে জেলায় করোনার সংক্রমণের প্রভাব সর্বাধিক। গুজরাত, হরিয়ানা, কর্নাটক, পঞ্জাবে লার্জ আউটব্রেক জেলার সংখ্যা যথাক্রমে পাঁচ, চার, তিন ও চার। পশ্চিমবঙ্গের চারটি জেলায় (কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগনা, হাওড়া ও পূর্ব মেদিনীপুর) করোনার প্রভাব সবথেকে মারাত্মক। এছাড়াও বিহার, ওড়িশা, ছত্তিশগড়, চণ্ডীগড় ও উত্তরাখণ্ডের একটি করে জেলা এই তালিকায় রয়েছে।

আরও পড়ুন : পুলিশ ডেকে করোনা ত্রাণে ১০,০০০ দান অশীতিপর অধ্যাপকের, মুগ্ধ নেটবিশ্ব

পাশাপাশি, আরও ৪৭ টি জেলা হটস্পট তালিকায় থাকলেও সেখানে ব্যাপক আকারে করোনা ছড়িয়ে পড়েনি অর্থাৎ লার্জ আউটব্রেক হয়নি। সেই ক্লাস্টার জেলা সর্বাধিক রয়েছে অসম, হিমাচল প্রদেশ ও কর্নাটকে। তিন রাজ্যে পাঁচটি করে জেলা ক্লাস্টার তালিকাভুক্ত। উত্তরপ্রদেশ ও পঞ্জাবের চারটি জেলাও সেই তালিকায় রয়েছে। মহারাষ্ট্র, বিহারে তিনটি করে এবং হরিয়ানা, উত্তরাখণ্ড, জম্মু-কাশ্মীর ও ঝাড়খণ্ডে দুটি করে জেলা ক্লাস্টার তালিকাভুক্ত। এছাড়া দিল্লি, ছত্তিশগড়, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ, কেরালা, লাদাখ, মধ্যপ্রদেশ, ওড়িশা, রাজস্থান এবং তেলাঙ্গানার একটি করে জেলা ক্লাস্টার তালিকার অন্তর্ভুক্ত। বাংলার কোনও জেলা অবশ্য এই তালিকায় নেই।

আরও পড়ুন : স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস, কলকাতায় বর্ষা ঢুকবে ১১ জুন- IMD

নন-হটস্পট তালিকায় সেই জেলাগুলি রয়েছে, যেখানে করোনা আক্রান্তের হদিশ পাওয়া গিয়েছে। তবে তা অত্যধিক হয়। তবে ভবিষ্যতে হটস্পট হতে পারে - সেই আশঙ্কায় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা আগে থেকেই সেখানে বিশেষ নজরদারি চালানো হবে। সেই তালিকায় উত্তরপ্রদেশের সবথেকে বেশি ২১ জেলা রয়েছে। মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, গুজরাত, রাজস্থান ও কর্নাটকের যথাক্রমে ১৭, ১৫, ১৪, ১২ ও ১১ টি জেলা নন-হটস্পট তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের আটটি জেলা (কালিম্পং, জলপাইগুড়ি, হুগলি, নদিয়া, পশ্চিম বর্ধমান, পশ্চিম মেদিনীপুর, দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও দার্জিলিং) সেই তালিকায় রয়েছে। অসম, বিহার, ওড়িশার সাতটি করে জেলা এবং ঝাড়খণ্ডের তিনটি জেলাকে নন-হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া কেরালার ছ'টি এবং দিল্লি, মিজোরাম ও মেঘালয়ের একটি করে জেলা এই তালিকায় রয়েছে।

বন্ধ করুন