বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > সেপ্টেম্বরে সোনার দামে ঘাটতি থাকলেও মোটের উপরে লাভ লগ্নিতে, বলছেন বিশেষজ্ঞরা
মোটের ওপরে সেপ্টেম্বরে সোনার দামে উর্ধ্বগতি দেখা গিয়েছে, বলছেন বিশেষজ্ঞরা। ছবি: রয়টার্স। (REUTERS)
মোটের ওপরে সেপ্টেম্বরে সোনার দামে উর্ধ্বগতি দেখা গিয়েছে, বলছেন বিশেষজ্ঞরা। ছবি: রয়টার্স। (REUTERS)

সেপ্টেম্বরে সোনার দামে ঘাটতি থাকলেও মোটের উপরে লাভ লগ্নিতে, বলছেন বিশেষজ্ঞরা

  • সেপ্টেম্বরে সোনার দরের গতি উর্ধ্বগামীই রয়েছে বলে জানাচ্ছেন বাজার বিশেষজ্ঞরা।

গত ৭ অগস্টে সর্বকালীন উচ্চতায় পৌঁছানোর পরে বর্তমানে সোনার দাম প্রতি ১০ গ্রামে ৪,৬৩৪ টাকা কম যাচ্ছে। তা সত্ত্বেও গত মাসের তুলনায় সেপ্টেম্বরে সোনার দরের গতি উর্ধ্বগামীই রয়েছে বলে জানাচ্ছেন বাজার বিশেষজ্ঞরা।

পাশাপাশি গত মাসের সর্বোচ্চ দামের তুলনায় কেজিতে রুপোর দামও ১০,১০৩ টাকা কম যাচ্ছে। 

অথচ সেপ্টেম্বর মাসের ১৪ থেকে ১৮ তারিখের মধ্যে সোনার দাম প্রতি ১০ গ্রাম গিয়েছে ৫১,৩৯৪ টাকা থেকে ৫১,৬২০ টাকার মধ্যে। চলতি সপ্তাহের পাঁচটি কাজের দিনে ওঠানামার জেরে প্রতি ১০ গ্রামে সোনার দাম বেড়ছে ২২৬ টাকা। 

আবার এই সময়ের মধ্যে রুপোর দামও কেজিপ্রতি ৬৫,২২৩ টাকা থেকে বেড়ে ৬৫,৯০৫ টাকায় পৌঁছানোর ফলে প্রতি কেজিতে বেড়েছে ৬৮২ টাকা। এই ট্রেন্ড থাকা সত্ত্বেও বিশেষজ্ঞদের দাবি, দীপাবলির আগে সোনার দাম প্রতি ১০ গ্রামে ৬০ হাজারের কোঠায় পৌঁছে যাবে।

সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহেও সোনা-রুপোর দামে অস্থিরতা লক্ষ্য করা গিয়েছে। ৭ থেকে ১১ সেপ্টেম্বররে মধ্যে সোনার দাম প্রতি ১০ গ্রামে ৫১,০৬৫ টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ৫১,৩০৪ টাকা। অর্থাৎ মোট বৃদ্ধি হয় ৪২৩ টাকা। রুপোর দাম কেজিপ্রতি ৬৫,০১৭ টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ৬৫,৪২৪ টাকায়। অর্থাৎ বৃদ্ধি হয়েছে প্রতি কেজিতে ৪২৩ টাকা। 

আবার চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে প্রতি ১০ গ্রাম সোনার দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ৪৬৯ টাকা এবং প্রতি কেজি রুপোর দাম বেড়েছে ৩,৯৬৫ টাকা। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চলতি মাসে সোনার দাম পড়ার পিছনে আসল কারণ হল বাজারে টাকার দাম বৃদ্ধি পাওয়া। কোভিড সংকটের ফলে টাকার দামে পতন হলে নিরাপদ সম্পদ হিসেবে সোনায় বিনিয়োগের প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। আর উলটোটা দেখা যায়, টাকার দাম মজবুত হলে। 

বন্ধ করুন